বুধবার, ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৫:৩৮ পূর্বাহ্ন

।।পাবনা-১।। অধ্যাপক আবু সাইয়িদকে নিয়ে বিব্রত আ’লীগ

 

মনসুর আলম খোকন, সাঁথিয়া প্রতিনিধি : যিনি আজীবন বঙ্গবন্ধুর আদর্শ লালন করেছেন, যার গায়ে সর্বদা শোভা পেতো মুজিব কোট, যিনি সাঁথিয়া-বেড়ার মানুষকে ‘জয় বাংলা’ বলতে শিখিয়েছেন, যিনি ছিলেন স্বাধীনতাবিরোধী শক্তির আতংক, যার দীর্ঘ বছরের অক্লান্ত প্রচেষ্টায় সাঁথিয়া-বেড়ায় আ’লীগ একটি শক্তিশালী সংগঠন হিসেবে দাঁড়িয়েছে, বঙ্গবন্ধুর স্নেহভাজন, আশীর্বাদপুষ্ট সেই মানুষটি স্বাধীনতার ৪৬ বছর পর আজ ধানের শীষ প্রতীকে নির্বাচন করতে যাচ্ছেন- এ কি বিশ্বাসযোগ্য!

আ’লীগের সাবেক তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক, সাবেক তথ্য প্রতিমন্ত্রী অধ্যাপক ড. আবু সাইয়িদকে নিয়ে এখন এ প্রশ্নই ঘুরপাক খাচ্ছে মানুষের মনে।

জানা গেছে, পাবনা-১ (সাঁথিয়া-বেড়া) আসনে অধ্যাপক আবু সাইয়িদ ঐক্যফ্রন্টের ব্যানারে ধানের শীষ প্রতীকে নির্বাচন করতে যাচ্ছেন।

এ লক্ষ্যে তিনি সম্প্রতি আ’লীগের মনোনয়ন না পেয়ে ড. কামাল হোসেনের গণফোরামে যোগদান করেছেন।

বিষয়টি স্থানীয় আওয়ামী লীগসহ অনেকের কাছেই অপ্রত্যাশিত ও বিব্রতকর বলে একাধিক সূত্র জানিয়েছে।

ষাটের দশকে অধ্যাপক আবু সাইয়িদ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আহবানে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতা ছেড়ে দিয়ে রাজনীতিতে প্রবেশ করেন।

১৯৭০ সালের জাতীয় নির্বাচনে তিনি পাবনা- ১ আসন থেকে জাতীয় পরিষদ সদস্য (এমএনএ) নির্বাচিত হন।

বাংলাদেশ সংবিধান প্রণয়ন কমিটির তিনি সর্বকনিষ্ঠ সদস্য ছিলেন।

সে সময় বঙ্গবন্ধু তাকে পাবনা জেলা বোর্ডের গভর্নর হিসেবেও নিযুক্ত করেন।

তিনি এ আসনে ২০০১ সাল পর্যন্ত প্রতিটি জাতীয় নির্বাচনে আ’লীগের প্রার্থী হিসেবে একজন শক্তিশালী প্রতিদ্বন্দ্বি ছিলেন।

১৯৯৬ সালের নির্বাচনে জামায়াতে ইসলামীর শীর্ষনেতা মাওালানা মতিউর রহমান নিজামী ও বিএনপি’র কেন্দ্রীয় নেতা, সাবেক প্রতিমন্ত্রী মেজর (অব:) মনজুর কাদেরকে পরাজিত করে এমপি নির্বাচিত হন এবং সে সময় তথ্য মন্ত্রনালয়ে প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পান।

২০০৭ সালে ওয়ান ইলেভেনে সংসকারপন্থী হওয়ার ফলে ২০০৮ সালে আওয়ামী লীগের মূলধারা থেকে তিনি ছিটকে পড়েন ।

সেবার এ আসনে তার পরিবর্তে আ’লীগের প্রার্থী করা হয় এ্যাড. শামসুল হক টুকুকে।

তিনি চারদলীয় জোটের প্রার্থী মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীকে পরাজিত করে বিজয়ী হয়ে প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পান।

২০১৪ সালের জাতীয় নির্বাচনে অধ্যাপক আবু সাইয়িদ এ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে টুকুর নিকট হেরে যান।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি আ’লীগের মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন।

সাঁথিয়া-বেড়ার অধিকাংশ আ’লীগ নেতাকর্মীর ধারণা ছিল জনমত জরিপের ভিত্তিতে এবার অধ্যাপক আবু সাইয়িদকেই এ আসনে আ’লীগের মনোনয়ন দেয়া হবে। কিন্তু তা হয়নি।

এ আসনে শামসুল হক টুকুকেই মনোনয়ন দেয়া হয়েছে। এর পরেই তিনি গণফোরামে যোগ দেন। ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী হিসেবে তিনি ধানের শীষ প্রতিকে লড়বেন বলে তার ঘনিষ্ঠরা জানান।

আ’লীগের এক সময়ের ডাকসাইটে নেতা আ’লীগ প্রার্থীর বিরুদ্ধেই লড়বেন এটা অনেকের কাছেই অপ্রত্যাশিত ও বিব্রতকর বলে আ’লীগের একাধিক সূত্র জানান।

 

 

  • 55
    Shares


বিজয় নিশান উড়ছে ঐ…

© All rights reserved 2018 newspabna.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!