শুক্রবার, ১৮ জানুয়ারী ২০১৯, ০১:১৩ অপরাহ্ন

অতিরিক্ত ভারি মেকআপ- ডেকে আনে সর্বনাশ

যখন তখন, যেখানে সেখানে প্রস্তুত থাকতে হয় এখন সেলফি তোলার জন্য। এর ফলে বার কয়েক সাজিয়ে-গুছিয়ে নেওয়া হয় নিজেকে। আইলাইনার-মাশকারা থাকুক না নিত্যসঙ্গী হয়ে। কিন্তু নিত্য ভারি মেকআপ? এমন জনের অভাব নেই আমাদের চারপাশে। বয়স কম হোক কিংবা ছাপিয়ে যাওয়া নিজেকে সাজতে ভালোবাসেন অনেকেই। আর সেটা ভারি মেকআপ।

এই ভারি মেকআপ কী পরিমাণে ক্ষতি করে, করতে পারে আমাদের ত্বকে, তা কি ভেবে দেখেছি কখনও? যদি না হই সচেতন, ভুক্তভোগী হতে হবে নিজেকেই। অতিরিক্ত মেকআপ এড়িয়ে চললে যেসব সমস্যা পিছু নেবে না, তা জেনে নিতে পারি।

ব্রণ দিয়ে শুরু…

ব্রণ হয় বয়োসন্ধিতেই। তাই বলে গুটি গুটি বয়সের অন্য সময়টাতে দেবে না উঁকি, তা কী হয়? অতিরিক্ত মেকআপের কারণে আপনাকে পড়তে হবে এই সমস্যায়। প্রতিদিন কড়া মেকআপের কারণে এবং তা ঠিকমতো পরিস্কার করা না হলে মুখের লোমকূপ যায় বন্ধ হয়ে, তার কারণে বিভিন্ন সময় আমাদের বহন করতে হয় ব্রণঘটিত সমস্যাকে। এই সমস্যা বাড়তেই থাকে অযত্নে-অবেহলায় পড়ে!

ত্বকে অ্যালার্জি

যেখানে যতটুকু দরকার, বুঝতে পারি না আমরা অনেক সময়। মনের খুশিতে নিজেকে সাজিয়ে নিই। এবং তা কড়া মেকআপের প্রলেপে। অনেক সময় সাজগোজের সঠিক পণ্যটি আমরা করতে পারি না বাছাই। যার কারণে ত্বকেই হোক কিংবা চুলে আমাদের পড়তে হয় অ্যালার্জির সমস্যায়। কেননা অতিরিক্ত সাজসজ্জার সরঞ্জাম আমাদের ত্বকে অ্যালার্জির অন্যতম কারণ।

সঙ্গী যখন ডার্ক সার্কেল

চোখ যে মনের কথা বলে…! মনের কথাকে আরও স্পষ্ট করে ফুটিয়ে তোলার জন্য হয়তো অতিরিক্ত সাজ সেজেই ফেললেন। এবং সাজের নিয়ম অনুযায়ী রিমুভ করলেন আপনার চোখের নিচের হাজারো জঞ্জাল। সেই ছোট্ট ছোট্ট সাজের জঞ্জালকেই যে নিত্য বয়ে বেড়াতে হবে আপনার চোখকে। কেননা প্রতিনিয়ত সাজসজ্জা এবং তা তোলার জন্য আপনার চোখে যে চাপ পড়বে তা থেকে এক সময় নিত্যসঙ্গী হয়ে যাবে ডার্ক সার্কেলটি।

র‌্যাশ রয়ে যায় র‌্যাশে

সাজগোজ। হৈ-হুল্লোড়। অনুষ্ঠান শেষ। সাজসজ্জার প্রলেপ তোলাও শেষ। ক্ষণিকের অতিরিক্ত প্রলেপ তো হলো শেষ। কিন্তু তার র‌্যাশ যে যায় রয়ে। র‌্যাশ রয়ে যায় র‌্যাশে। কারণ অতিরিক্ত সাজ আপনার ত্বকে বাড়তি চাপ ফেলে, যার কারণে মুখে-গলায়-ঘাড়ে র‌্যাশ আক্রমণের শিকার হতে পারেন আপনি।

বাড়বে বয়স বাড়বে বলিরেখা

বাড়বে বয়স। বাড়বে বলিরেখা। লুকানোর নেই কিছুই। কিন্তু সময়ের আগেই বলিরেখা হাজির হয়ে যাবে আপনার ত্বকে। এর একমাত্র কারণ অতিরিক্ত সাজ। সেটা চোখে হতে পারে। গালে কিংবা মুখাবয়বে। অতিরিক্ত সাজসজ্জা, প্যানক্যাক-ব্লাশনে মাখামাখি আপনার চেহারাটি খানিক জৌলুস বৃদ্ধি করলেও একটা সময় কি যাতনা অতিরিক্ত সাজে বুঝে যাবেন আপনি।

২০৬টি হাড়ের শরীর

এ এক অবাক করা তথ্য বটে। নিজেকে সাজিয়ে তোলার ব্যাপারে সচেতন থাকলেও আমরা সচেতন থাকি না কোন ব্র্যান্ডের কোন পণ্যটি ব্যবহার করছি। স্বীকৃত কোনো ব্র্যান্ডের ভালো পণ্য ব্যবহার ত্বকের অনেক ক্ষতিসাধন থেকে বাঁচিয়ে দেবে আমাদের। কিন্তু না জেনে-বুঝে আমরা যদি পণ্য বাছাইয়ে করে ফেলি, কোনো ভুলে? সেই মাশুল যেমন দিতে হবে আমাদের ত্বককে, তেমনি ফুসফুসকে। মুখের ত্বকে ব্যবহারিক পণ্য কীভাবে ক্ষতি করতে পারে ফুসফুসের? ২০৬টি হাড়ের শরীর তো অঙ্গাঙ্গি। একটির ক্ষতিসাধনে অন্যটিরও হবে।

মেছতা যত চিন্তার কারণ

কথিত আছে, মেছতা হয় চিন্তার কারণে। সেই প্রবাদের বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা তো এখন প্রতিনিয়ত হাতের কাছেই আমাদের। ত্বকের ওপর অনর্থর হুড়োহুড়ি- চাপের কারণে বসত করতে পারে মেছতা আপনার দুই গালে। এবং তা আপনার অতিরিক্ত মেকআপের কারণেই।

সাজ ডেকে আনে ক্যান্সার

কপালে উঠে গেল চোখ? সাজের সঙ্গে আবার ক্যান্সারের কী সম্পৃক্ত হতে পারে? সাজব মনের খুশিতে। সেই খুশিতে মনের সঙ্গে খেলবে নিজের ত্বকও। কিন্তু ক’জন আমরা জানি যে চড়া মেকআপে সাজিয়েছিলাম আমাদের ত্বকখানি, তা কি পুরোপুরি মুছে ফেলতে পেরেছি ত্বক থেকে? বিন্দুমাত্র যায়নি রয়ে। থেকে থেকে, জমে জমে একটা ক্ষতির পাহাড় হয়তো জমে যায় ত্বকটিতে। অজান্তেই নিজের ত্বকে ডেকে আনতে পারি ক্যান্সার নামক রোগটিকে। তাই সাবধান!


© All rights reserved 2018 newspabna.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!