বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯, ১১:৩৮ অপরাহ্ন

আইপিএলের উদ্বোধনী ম্যাচে ম্যান অব দ্য ম্যাচ হরভজন সিং

আইপিএলের ১২তম আসরের উদ্বোধনী ম্যাচে হরভজন সিংহে ম্যান অব দ্য ম্যাচ নির্বাচিত হয়েছেন। বিরাট কোহলির নেতৃত্বাধীন রয়েল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুকে ৭ উইকেটে পরাজিত করে মহেন্দ্র সিং ধোনির নেতৃত্বাধীন চেন্নাই সুপার কিংস।

খেলায় চেন্নাই সুপার কিংসের পক্ষে ইমরান তাহির চার ওভার বল করে মাত্র ৯ রানে তিন উইকেট শিকার করেন। আর হরভজন সিং চার ওভার বল করে ২০ রান দিয়ে তিন উইকেট শিকার করেন। দুজনই সমান সংখ্যক উইকেট শিকার করলেও যেখানে হরভজন খরচ করেছেন ২০ রান সেখানে ইমরান তাহির যেহেতু মাত্র ৯ রান দিয়েছেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত ম্যান অব দ্যা ম্যাচের পুরস্কার হরভজনের হাতেই তুলে দেয় আইপিএল কর্তৃপক্ষ।

এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগের জনপ্রিয় মাধ্যম ফেসবুকে আলোচনা ও সমালোচনার ঝড় বইছে। ইমরান তাহির ভক্তদের মতে, যেহেতু মাত্র ৯ রানে ইমরান তাহির ৩টি উইকেট শিকার করেছেন সেহেতু তিনিই ম্যান অব দ্যা ম্যাচ পাওয়ার যোগ্য। আর হরভজন ভক্তদের দাবি, ইমরানের শিকার করা উইকেটের চেয়ে হরভজনের শিকার করা উইকেটগুলোর গুরুত্ব বেশি ছিল। এজন্যই দিনশেষে ম্যান অব দ্যা ম্যাচ হন হরভজন!

এর আগে আইপিএলের এবারের আসরে প্রথমেই টসে জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন মাহেন্দ্র সিং ধোনী। তার সিদ্ধান্ত যে সঠিক ছিল তা মাত্র ৭০ রানে অলআউট করে দিয়ে ইমরান তাহিররা প্রমাণ করে দিয়েছেন।

প্রথমে ব্যাট করে ইমরান তাহির এবং র স্পিনে বিভ্রান্ত হয়ে ৭০ রানে অলআউট বেঙ্গালুরু। টার্গেট তাড়া করতে নেমে নির্ধারিত ওভারের ১৪ বল আগে দলের জয় নিশ্চিত করে চেন্নাই সুপার কিংস।

ইনিংসের চতুর্থ ওভারে দলকে ব্রেক থ্রু এনে দেন হরভজন সিং। জাতীয় দলের সাবেক এই তারকা অফ স্পিনারকে বাউন্ডারি হাঁকাতে গিয়ে ডিপ মিডউইকেটে থাকা রবিন্দ্র জাদেজার হাতে ক্যাচ তুলে দেন দিয়ে ফেরেন কোহলি।

কোহলির পর মঈন আলীকে সাজঘরে ফেরান হরভজন সিং। এরপর চতুর্থ ওভারে বোলিংয়ে এসে বেঙ্গালুরুর তারকা ব্যাটসম্যান এবি ডি ভিলিয়ার্সকে আউট করেন ভাজ্জি।

আইপিএলে ক্যারিয়ারের ১৫০তম ম্যাচ খেলতে নেমে কোহলি-মাঈন আলী-ভিলিয়ার্সকে আউট করে ড্যারেন ব্রাভোকে পেছনে ফেলেন হরভজন সিং। ১৩৮ উইকেট শিকারের মধ্য দিয়ে আইপিএল সেরা বোলারের তালিকায় শীর্ষ চারে উঠে এসেছেন হরভজন। ১৫৪ উইকেট শিকার করে সবার ওপরে আছেন লাসিথ মালিঙ্গা। ১৪৬ উইকেট শিকার করে দ্বিতীয় পজিশনে অমিত মিশ্র।

হরভজনের কারিশমা শেষ হতে না হতেই শুরু হয় ইমরান তাহিরের লেগ স্পিন। তার শিকার হয়ে একের পর এক সাজঘরে ফেরেন শিভম দুবে, নভদীপ সাইনি ও যুজবেন্দ্র চাহাল।

সময়ের ব্যবধানে উইকেট পতনের কারণে শেষ পর্যন্ত ১৭.১ ওভারে ৭০ রানেই অলআউট বেঙ্গালুরু। দলের হয়ে সর্বোচ্চ ২৯ রান করেন ওপেনার পার্থিব প্যাটেল। তিনি ছাড়া দলের ১০জন ব্যাটসম্যান দুই অঙ্কের ফিগার রান করতে পারেননি।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

বেঙ্গালুরু: ১৭.১ ওভারে ৭০/১০ (প্যাটেল ২৯, ভিলিয়ার্স ৯, মঈন আলী ৯, কোহলি ৬, গ্রান্ডহোম ৪, চাহাল ৪, দুবে ২, সাইনি ২, যাদব ১, হিটমার ০, সিরাজ ০*; ইমরান ৩/৯, হরভজন ৩/২০)।

চেন্নাই: ১৭.৪ ওভারে (রাইডু ২৮, রায়না ১৯, যাদব ১২*, জাদেজা ৫*)।

ফল: চেন্নাই সুপার কিংস ৭ উইকেটে জয়ী।


    পাবনায় নামাজের সময়সূচি
    ওয়াক্তসময়
    সুবহে সাদিকভোর ০৪:৩৯
    সূর্যোদয়ভোর ০৫:৫৬
    যোহরদুপুর ১১:৪৪
    আছরবিকাল ১৫:৫৪
    মাগরিবসন্ধ্যা ১৭:৩১
    এশা রাত ১৯:০১
© All rights reserved 2019 newspabna.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!