মঙ্গলবার, ২০ অগাস্ট ২০১৯, ০৬:০৯ অপরাহ্ন

আইমারসেট লন্ডন পুরস্কার পাচ্ছেন পাবনার কৃতীসন্তান ড. সাজিদ



মহিউদ্দিন ভূঁইয়া : ইনস্টিটিউট অব মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং, সাইন্স অ্যান্ড টেকনোলজি (আইমারসেট) লন্ডন পুরস্কার ২০১৯ এর জন্য নির্বাচিত হয়েছেন বাংলাদেশ মেরিন একাডেমির কমান্ড্যান্ট (২০০৭ সাল থেকে) এবং পাবনার কৃতীসন্তান প্রখ্যাত নৌপ্রকৌশলী ড. মো. সাজিদ হোসেন।

পাবনা এলাকায় তিনি মেরিন ইঞ্জিনিয়ার রুশো নামে সমধিক পরিচিত।

মেরিন শিক্ষা উন্নয়ন ও সফলতায় বিশেষ অবদান রাখার স্বীকৃতি-স্বরূপ তিনি এই বিশেষ সম্মাননা পুরস্কারে ভূষিত হবেন।

গত ১৫ ফেব্রুয়ারি তারিখের দাফতরিক এক পত্রে সাজিদ হোসেন-এর এই পুরস্কার প্রাপ্তির বিষয়টি নিশ্চিত করেছে আইমারসেট।

আগামী ১৫ মার্চ লন্ডনের গিল্ডহলে আইমারসেট কাউন্সিল অধিবেশনে ড. সাজিদ হোসেনকে আনুষ্ঠানিকভাবে এই পুরস্কার (ট্রফি) প্রদান করা হবে।

উল্লেখ্য যে, ড. সাজিদ হোসেন ২০১৭ থেকে যুক্তরাজ্য ইঞ্জিনিয়ারিং কাউন্সিলের একজন চার্টার্ড ইঞ্জিনিয়ার, ২০১৬ থেকে আইএমও মেরিটাইম অ্যামব্যাসেডর, ২০১৩ থেকে সুইডেনের ওয়ার্ল্ড মেরিটাইম ইউনিভার্সিটির বোর্ড অব গভর্নরসের একজন গভর্নর এবং ২০০৬ থেকে আইমারসেট-এর ফেলো ও চার্টার্ড মেরিন ইঞ্জিনিয়ার।

১২০ টি দেশের প্রায় ২২ হাজার মেরিন প্রফেশনালদের পেশাদার সংস্থা হলো (আইমারসেট)। জাতিসংঘের অঙ্গসংস্থা ইন্টারন্যাশনাল মেরিটাইম অর্গানাইজেশন (আইএমও)- এ পরামর্শদাতার মর্যাদায় কাজ করে থাকে।

১৯৮০ সালে সাজিদ হোসেন বাংলাদেশ শিপিং করপোরেশনের বিদেশগামী জাহাজে ক্যাডেট ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে যোগ দেন এবং চাকরির ধারাবাহিকতায় ১৯৯১ সালে জাহাজের প্রধান প্রকৌশলী পদে উন্নীত হন।

এরপর বাংলাদেশ মেরিন একাডেমিতে নৌপ্রকৌশল বিভাগের বিভাগীয় প্রধান (প্রধান প্রকৌশলী : ১৯৯৫-২০০৯), চুক্তিভিত্তিক কমান্ড্যান্ট (২০০৯-২০১২), ডেপুটি কমান্ড্যান্ট (২০১২- ২০১৫) পদে চাকরি করেন। জুলাই ২০১৫ সালে তিনি কমান্ড্যান্ট পদে পদোন্নতি পান।

ড. সাজিদ হোসেন রুশোর লেখা একটি থিসিস (এস্টাব্লিশমেন্ট অব এ মেরিটাইম ইউনিভার্সিটি ইন বাংলাদেশ ), ২১টি গ্রন্থ, ত্রিশটি গবেষণাপত্র ও প্রায় ২৭৫ টি পেশাগত নিবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে ।

১৯৬০ সালে তিনি পাবনা শহরে জন্মগ্রহণ করেন। মহান মুক্তিযুদ্ধে সাত নম্বর সেক্টরে নওগাঁর উত্তর সীমান্তে মধুপুর মুক্তিযোদ্ধা ক্যাম্পের চার জন কিশোর মুক্তিযোদ্ধা-সহযোগির অন্যতম ছিলেন সাজিদ হোসেন রুশো।

রুশোর পিতা আলহাজ অ্যাডভোকেট আমজাদ হোসেন (১৯৩৪ -২০১৫) ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নিবেদিতপ্রাণ রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব, বঙ্গবন্ধুর একান্ত সহচর, মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক ও মুক্তিযোদ্ধা (সাত নম্বর সেক্টর) এবং পাবনা সদর আসনের সংসদ সদস্য (১৯৭৩-১৯৭৫)।

মাতা অধ্যাপিকা জান্নাতুল ফেরদৌসও (১৯৩৯-২০১২) ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের একজন অন্যতম নির্ভিক নেত্রী, পাবনা-সিরাজগঞ্জ সংরিক্ষত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য (১৯৯৬-২০০১) এবং মহান মুক্তিযুদ্ধের একজন মুক্তিযোদ্ধা (সাত নম্বর সেক্টর )। এক ভাই ও দুই বোনের মধ্যে সাজিদ হোসেন জ্যেষ্ঠ।

সাজিদ হোসেন পাবনা জেলা স্কুল ও রাজশাহী ক্যাডেট কলেজে অধ্যয়ন করেন। তিনি রাজশাহী ক্যাডেট কলেজ থেকে ১৯৭৬ ও ১৯৭৮ সালে যথাক্রমে এসএসসি (সম্মিলিত মেধাতালিকায় তৃতীয় স্থান ) ও এইচএসসি (স্টার মার্কস ) পাস করেন।

১৯৮২ সালে বাংলাদেশ মেরিন একাডেমি, চট্টগ্রাম থেকে প্রী-সী মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং (দ্বিতীয় স্থান) এবং ১৯৮৯ সালে সাউথ টাইনসাইড কলেজ, যুক্তরাজ্য থেকে ক্লাস ওয়ান মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি লাভ করেন।

১৯৯৮ সালে তিনি ওয়ার্ল্ড মেরিটাইম ইউনিভার্সিটি, সুইডেন থেকে এমএসসি ইন মেরিটাইম সেফটি অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং) ডিগ্রি লাভ করেন এবং ২০০৯ সালে পেশাগত উৎকর্ষের স্বীকৃতিস্বরূপ অর্জন করেন ডিএসসি ইন মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি।

আমরা ড. সাজিদ হোসেন-এর দীর্ঘায়ু ও কর্মময় জীবনের সফলতা কামনা করি। আমিন।

(লেখক মহিউদ্দিন ভূঁইয়া’র ফেসবুক পেজ থেকে সংগৃহীত)




    পাবনায় নামাজের সময়সূচি
    ওয়াক্তসময়
    সুবহে সাদিকভোর ০৪:১৪
    সূর্যোদয়ভোর ০৫:৩৬
    যোহরদুপুর ১২:০২
    আছরবিকাল ১৬:৩৬
    মাগরিবসন্ধ্যা ১৮:২৮
    এশা রাত ১৯:৫৮
© All rights reserved 2019 newspabna.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!