বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০১৯, ০৮:২৬ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :

এইচএসসি পরীক্ষা প্রশ্নফাঁস মুক্ত রাখতে আবারও মাঠে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী

২০১৯ সালের মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) পরীক্ষায় সফলতা ধরে রাখার পর এবার উচ্চ মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এইচএসসি) পরীক্ষায় শৃঙ্খলা বজায় রাখতে নানা পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। পাশাপাশি সহযোগিতা করছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা এরই মধ্যে মাঠ পর্যায়ের কাজ শুরু করে দিয়েছে বলে জানা গেছে। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, বিগত সময়ের ন্যায় এবারের এইচএসসি পরীক্ষায় শতভাগ শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে বদ্ধপরিকর আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও সরকার।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, এইচএসসি পরীক্ষাতেও প্রশ্নপত্র ডিজাইন, প্রশ্নপত্র বিতরণে ডিজিটাল সিস্টেম ব্যবহারসহ শিক্ষা কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ওপর নিয়মিত মনিটরিং করা হবে।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিভিন্ন দায়িত্বশীল সূত্রগুলো বলছে, প্রশ্নপত্র ফাঁস চক্রকে হাতেনাতে ধরতে মাঠ পর্যায়ে ছদ্মবেশে সক্রিয় থাকবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। আগে থেকেই প্রতারক চক্রের একটি ডাটাবেজ তৈরি করা আছে। তাদের টার্গেট করা হয়েছে। এছাড়া যারা নতুন করে এই অপরাধের দিকে ধাবিত হবে তাদেরকে শনাক্ত করা হবে। তাই এইচএসসি পরীক্ষায় সচেতনতা তৈরিতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকে প্রশ্নপত্র ফাঁসকারী চক্রের ফাঁদে পা না দেয়ার জন্য শিক্ষার্থীদের অনুরোধ জানানো হচ্ছে।

সূত্র বলছে, বিভিন্ন সময়ে সংঘটিত প্রশ্নপত্র ফাঁসের মতো জঘন্য প্রতারণা রোধে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা সতর্ক অবস্থান নিয়েছে। যদি কোনো শিক্ষার্থীর কাছে পরীক্ষার আগে ফাঁস হওয়ার নামে সত্য বা মিথ্যা প্রশ্নপত্র পাওয়া যায়, তাহলে ওই শিক্ষার্থীকেও আইনের আওতায় আনা হবে। এতে ওই শিক্ষার্থীর ক্যারিয়ার ধ্বংস হয়ে গেলে তার দায়-দায়িত্ব সংশ্লিষ্ট শিক্ষার্থী ও তার অভিভাবকদেরই নিতে হবে।

এছাড়া, প্রশ্নপত্র ফাঁসের প্রচারণার সঙ্গে বিভিন্ন সময় তৎপর থাকা বেশকিছু ব্যক্তি, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম বিশেষ করে ফেসবুক-হোয়াটস অ্যাপ-ইমোর বিভিন্ন পেজ, গ্রুপে জড়িতদের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নজরদারিতে নেয়া হয়েছে। প্রশ্নপত্র ফাঁসের কোনো ইঙ্গিত কিংবা আভাস পেলেই তাৎক্ষণিক ভাবে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। প্রশ্নপত্র ফাঁস চক্রের সদস্যদের সন্ত্রাসী হিসেবে বিবেচনা করে কঠোর হাতে দমন করার ব্যাপারেও দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এ জন্য শিক্ষক, শিক্ষার্থী, অভিভাবকসহ সবার সহযোগিতা দরকার বলেও মনে করেন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। সবাই ঐক্যবদ্ধ হলে কেউ এমন জঘন্য অপরাধ করার সুযোগ পাবে না বলেও মনে করেন তারা।

প্রসঙ্গত, আগামী ২ এপ্রিল থেকে শুরু হতে যাচ্ছে উচ্চ মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এইচএসসি) পরীক্ষা।


    পাবনায় নামাজের সময়সূচি
    ওয়াক্তসময়
    সুবহে সাদিকভোর ০৩:৫৪
    সূর্যোদয়ভোর ০৫:২২
    যোহরদুপুর ১২:০৫
    আছরবিকাল ১৬:৪৪
    মাগরিবসন্ধ্যা ১৮:৪৭
    এশা রাত ২০:১৭
© All rights reserved 2019 newspabna.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!