সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮, ০২:২২ পূর্বাহ্ন

কত দামে বিক্রি হলো হকিংয়ের হুইলচেয়ার?

বিজ্ঞানের জটিলতম বিষয়গুলো সহজ সরলভাবে তুলে ধরায় সিদ্ধহস্ত ছিলেন স্টিফেন হকিং। গত মার্চে পৃথিবী ছেড়ে চলে গেলেও রেখে গেছেন প্রচুর গবেষণার পাণ্ডুলিপি। হকিংয়ের এমনই কিছু পাণ্ডুলিপি ও ব্যবহার্য কিছু জিনিস সম্প্রতি তোলা হয়েছিল নিলামে, যার মধ্যে ছিল তার হুইলচেয়ারও।

বৃহস্পতিবার বেশ চড়া মূল্যেই বিক্রি হয়েছে স্টিফেন হকিংয়ের এই জিনিসগুলো। ব্রিটেনের নিলাম সংস্থা ‘ক্রিস্টিজ’-এর পক্ষ থেকে অনলাইনে এই নিলামের আয়োজন করা হয়। তাতে রাখা হয় হকিংয়ের ব্যবহার করা একটি মোটরচালিত হুইলচেয়ার, একাধিক নিবন্ধের পাণ্ডুলিপি এবং বেশ কিছু মেডেল। নিলামে তোলা হয়, হকিংয়ের সই করা ও আঙুলের ছাপ দেওয়া ‘আ ব্রিফ হিস্ট্রি অব টাইম’-এর একটি কপি এবং ১৯৬৫ সালে তার লেখা একটি গবেষণাপত্রও।

এর মধ্যে হকিংয়ের ব্যবহার করা মোটরচালিত হুইলচেয়ারটি বিক্রি হয় ২ লাখ ৯৬ হাজার ৭৫০ পাউন্ডে। হকিংয়ের পিএইচডির গবেষণাপত্র ‘প্রপার্টি অব এক্সপ্যান্ডিং ইউনিভার্সেস’ বিক্রি হয় ৫ লাখ ৮৪ হাজার ৭৫০ পাউন্ডে। হকিংয়ের আঙুলের ছাপসহ ‘আ ব্রিফ হিস্ট্রি অব টাইম’ বইয়ের কপিটি বিক্রি হয় ৬৮ হাজার ৭৫০ পাউন্ডে। ১৯৭৪ সালে প্রকাশিত হকিংয়ের একটি লেখা বিক্রি হয় ৭ হাজার ৫০০ পাউন্ডে। হকিংয়ের মেডেলগুলো বিক্রি হয় তার হুইলচেয়ারটির প্রায় সমান দামেই।

নিলাম থেকে পাওয়া অর্থের একটা বড় অংশ হকিংয়ের পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছে নিলাম সংস্থা ক্রিস্টি। হুইলচেয়ার বিক্রির অর্থ যাবে ‘স্টিফেন হকিং ফাউন্ডেশন’ এবং মোটর নিউরন ডিজিস অ্যাসোসিয়েশনে। এই মোটর নিউরন ডিজিসে আক্রান্ত হয়েই আজীবন হুইলচেয়ারবন্দি ছিলেন হকিং।

বৃহস্পতিবার হকিংয়ের ব্যবহৃত জিনিসের সঙ্গে আরও কিছু গুরুত্বপূর্ণ জিনিস নিলামে তোলা হয়। এসবের মধ্যে ছিল স্যার আইজ্যাক নিউটনের সই করা ব্যাঙ্ক ঋণ সংক্রান্ত একটি নথি, চার্লস ডারউইনের লেখা কিছু চিঠি এবং নিউটন সম্পর্কে অ্যালবার্ট আইনস্টাইনের একটি লিখিত অভিমত। নিলামে ওঠামাত্র বিক্রি হয়ে যায় সেগুলোও। সব মিলিয়ে বৃহস্পতিবারের নিলাম থেকে ১৮ লাখ পাউন্ডেরও বেশি অর্থ উঠে আসে। সূত্র: গার্ডিয়ান


© All rights reserved 2018 newspabna.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!