রবিবার, ১৮ অগাস্ট ২০১৯, ০৭:৩৩ অপরাহ্ন

‘জার্মানির পর স্পেন ও ব্রাজিল শক্তিশালী দল’

ফিলিপ লাম ও শোয়েনস্টেইগারের অবসরের পর জার্মান দলের মাঝমাঠের নেতৃত্বে আছেন টনি ক্রুজ। রিয়াল মাদ্রিদের হয়ে চ্যাম্পিয়নস লীগের শিরোপার হ্যাটট্রিকে মাঝমাঠে আলো ছড়িয়েছেন এই জার্মান তারকা। দেশের হয়ে ২০১৪ বিশ্বকাপ জিতেছেন। জোয়াকিম লোর দল বিশ্বকাপ ধরে রাখতে চাইলে মাঝমাঠে ভরসা রাখতে হবে টনি ক্রুজের ওপরও। যদিও ক্রুজ মনে করেন, পরপর দুবার বিশ্বকাপ জেতা অত্যন্ত কঠিন কাজ। আজ থাকছে জার্মান মিডফিল্ডার টনি ক্রুজের সাক্ষাৎকার

প্রশ্ন: ২০১৪ বিশ্বকাপের শিরোপা ধরে রাখতে জার্মানিকেই সবচেয়ে বেশি ফেভারিট মানা হচ্ছে। আপনি কী মনে করেন?

টনি ক্রুজ: শুনে ভালো লাগছে, কিন্তু এটা মোটেও সহজ কাজ নয়। ২০ বারের বিশ্বকাপে মাত্র দুটি দল এ রকমটি করতে পেরেছে। এটাই বাস্তব। সফলভাবে পরপর বিশ্বকাপের শিরোপা ধরে রাখা সবচেয়ে কঠিন কাজ। আমাদের আরও ভালো খেলতে হবে, যেমনটি ২০১৪ সালের বিশ্বকাপে খেলেছি।

প্রশ্ন: কোন ক্ষেত্রে জার্মানির সবচেয়ে বেশি উন্নতি করা দরকার বলে আপনি মনে করেন?

টনি ক্রুজ: সব সময়ই উন্নতির সুযোগ থাকে। উন্নতি করার কোনো সীমা নেই। রক্ষণ বলেন আর আক্রমণভাগ, সব জায়গাতেই উন্নতির দরকার রয়েছে। আমাদের দলসহ বাকি দলগুলোর খেলার ধরন পরিবর্তন হয়েছে। আমরা কিছু বড় দলের সঙ্গে খেলেছি, যদিও আগের মতো প্রভাব বিস্তার করতে পারিনি। তবে গত চার বছরের দৃশ্য দেখলে বলা যায়, আমরা অবশ্যই উন্নতি করেছি।

প্রশ্ন: গত বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে ব্রাজিলের সঙ্গে ৭-১ গোলে পাওয়া জয়সূচক ম্যাচটিতে আপনি দুই গোল করেছিলেন। কিন্তু কয়েক দিন আগে ব্রাজিলের সঙ্গে প্রীতি ম্যাচে জার্মানি ০-১ গোলে হেরে যায়। এটা কিসের ইঙ্গিত দেয়?

টনি ক্রুজ: তারা (ব্রাজিল) যে অনেক উন্নতি করেছে, এটা তারই ইঙ্গিত। তাদের দলে আমারই ক্লাব সতীর্থ ক্যাসেমিরোর মতো অনেক ভালো খেলোয়াড় রয়েছে। ২০১৪ সালের ব্রাজিল দলের থেকে ২০১৮ সালের দল অনেক শক্তিশালী। এবার বিশ্বকাপে অল্প কিছু দল রয়েছে, যারা নিজেদের আরও উন্নত করেছে। আমাদের সেগুলো মাথায় রেখেই নিজেদের প্রস্তুত করতে হবে। নিঃসন্দেহে আমরা অন্যতম ফেভারিট দল, তবে সবার ঊর্ধ্বে নই।

প্রশ্ন: আর কোন দলকে এগিয়ে রাখবেন?

টনি ক্রুজ: স্পেন ও ব্রাজিল অন্যতম শক্তিশালী দুটি দল। রিয়াল মাদ্রিদে খেলি বলেই আমি তাদের খুব ভালোভাবে চিনি। অ্যাসেনসিওর সঙ্গে ইস্কো ও ভাজকোয়েজ স্পেনকে শক্তিশালী দলে পরিণত করেছে। তাদের দলে অভিজ্ঞ অধিনায়ক সার্জিও রামোস ও সহ-অধিনায়ক আন্দ্রেস ইনিয়েস্তার মতোও খেলোয়াড় রয়েছে। রিয়ালের মার্সেলো ও ক্যাসেমিরোর দক্ষতায় ব্রাজিলও প্রস্তুত। যেখানে আরও বড় তারকা আছে, যারা অনেক বড় ক্লাবে খেলছেন।

প্রশ্ন: আর কোন দল?

টনি ক্রুজ: ফ্রান্স, পর্তুগাল, ইংল্যান্ড ও আর্জেন্টিনা। ঐতিহ্যগতভাবে বড় দলগুলো বিশ্বকাপে ভালো খেলে থাকে। অবশ্যই ইতালিকে মিস করব। বিশ্বকাপ ও ইতালিকে আলাদা করা যায় না। এটা আজ্জুরি সমর্থকদের জন্য সত্যিই হতাশার।

প্রশ্ন: গত তিনটি বিশ্বকাপেই ইউরোপিয়ান দেশ শিরোপা অর্জন করেছে। আপনি কি মনে করেন, এবার এটি পরিবর্তন হতে যাচ্ছে?

টনি ক্রুজ: ভবিষ্যদ্বাণী করা কঠিন। তবে আমি মনে করি, ইউরোপে আয়োজিত বিশ্বকাপের শিরোপা ইউরোপের কোনো দেশেরই জেতা উচিত। অন্য মহাদেশ থেকে শিরোপা নিয়ে যাওয়া খুব কঠিন। দুটি দলই সেটা করতে পেরেছে। ব্রাজিল ১৯৫৮ সালে এটি করেছিল আর আমরা গতবার ব্রাজিলে করেছি। অন্য মহাদেশের মাটিতে নিজেদের মানিয়ে নিয়ে সেরা খেলাটা সর্বদাই চ্যালেঞ্জের কাজ। যদিও ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনা আপনাকে যে কোনো সময় তাক লাগিয়ে দিতে পারে। তাদের অধিকাংশ খেলোয়াড়ই ইউরোপে খেলে থাকে। তারপরও আমি মনে করি, ইউরোপে এবারও শিরোপা থাকবে।

প্রশ্ন: ফিলিপ লাম, মিরোস্লাভ ক্লোসা ও শোয়েনস্টেইগার ২০১৪ বিশ্বকাপের পর অবসর নিয়েছেন…

টনি ক্রুজ: তাদের মতো কিংবদন্তির অবসরের বিষয়টি দলের জন্য অত্যন্ত কঠিন। সব দলকেই এ বিষয়টির মুখোমুখি হতে হয়। আপনি কীভাবে তাদের মতো অভিজ্ঞদের জায়গা পূরণ করবেন? তাদের সবাই দেশের হয়ে অনেক দিন ফুটবল খেলেছে এবং নিজেদের কিংবদন্তির স্থানে প্রতিষ্ঠিত করেছে। আমাদের কিছুটা সময় লেগেছে সেরা কিছু মেধা খুঁজে বের করতে। তবে জার্মান ফুটবলকে তারা যা দিয়েছে, তা অবিস্মরণীয়।


    পাবনায় নামাজের সময়সূচি
    ওয়াক্তসময়
    সুবহে সাদিকভোর ০৪:১৩
    সূর্যোদয়ভোর ০৫:৩৫
    যোহরদুপুর ১২:০২
    আছরবিকাল ১৬:৩৭
    মাগরিবসন্ধ্যা ১৮:৩০
    এশা রাত ২০:০০
© All rights reserved 2019 newspabna.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!