রবিবার, ১৮ অগাস্ট ২০১৯, ১০:৩৫ পূর্বাহ্ন

ডেঙ্গু নিয়ে সর্বশেষ যে তথ্য দিলেন পাবনার চিকিৎসকরা

পাবনা প্রতিনিধি : পাবনা জেনারেল হাসপাতালে হাসপাতালে ৩১ জন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি হয়েছে এবং গত এক সপ্তাহে শাতধিক ডেঙ্গু আক্রান্ত মানুষ চিকিৎসা সেবা নিয়ে চলে গেছে।

আজ মঙ্গলবার (৩০ জুলাই) বিকেল পর্যন্ত এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন, হাসপাতালের সংশ্লিষ্ট দ্বায়িত্বশীল চিকিৎসকবৃন্দ।

মহামারি ধারণ করা ডেঙ্গু নিয়ে মঙ্গলবার বিকেলে পাবনা প্রেসক্লাবের ভিআইপি মিলনায়তনে জেলায় কর্মরত সাংবাদিকদের সাথে মত বিনিময় সভায় মিলিত হন বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশন (বিএমএ) পাবনা শাখার নেতৃবৃন্দ।

পাবনা প্রেসক্লাবের সভাপতি বিশিষ্ট শিক্ষাবীদ প্রফেসর শিবজিত নাগের সভাপতিত্বে ডেঙ্গু নিয়ে বিস্তারিত আলোচনায় অংশ নেন ডায়রিয়া বিশেষজ্ঞ, জেলা বিএমএ’র সহসভাপতি ডা. সাইফুদ্দিন ইয়াহিয়া, সহসভাপতি, পাবনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সহকারী অধ্যাপক, গাইনী স্পেশালিষ্ট ডা. শাহিন ফেরদৌস শানু ও পাবনা জেনারেল হাসপাতালের আরএমও (ভারপ্রাপ্ত) ও বিএমএ‘র সাধারন সম্পাদকক ডা. আকসাদ আল মাসুর আনান, প্রেসক্লাব সম্পাদক আঁখিনুর ইসলাম রেমন।

মত বিনিময় সভায় জানানো হয়, মঙ্গলবার পর্যন্ত পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ৩১ জন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি রয়েছেন। গত এক সপ্তাহে শতাধিক ডেঙ্গু রোগী চিকিৎসা সেবা নিয়ে বাড়ি ফিরেছেন।

তারা বলেন, হাসপাতালে ভর্তিকৃত রোগীদের মধ্যে ৩০ জনই ঢাকা থেকে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে এসেছেন। বাকি ১ জন পাবনাতেই ছিলেন।

জেলা বিএমএ’র সম্পাদক ডা. আকসাদ আল মাসুর আনান বলেন, ডেঙ্গু নিয়ে ভয়ের কিছু নেই। সাধারণ জ্বরের মতোই চিকিৎসা চালাতে হবে।

পরীক্ষা নিরীক্ষার মাধ্যমে রোগ নির্নয় করতে হবে। ঈদে ঢাকা ও চট্টগ্রাম থেকে আসা স্বজনরা ডেঙ্গু ভাইরাস বা জীবানু সাথে নিয়ে আসলে এ জেলাতেও মহামারি আকার ধারণ করতে পারে বলে তিনি ধারণা করছেন।

তিনি বলেন, ইতোমধ্যে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ডেঙ্গু বহনকারী মানুষকে সংশ্লিষ্ট স্থান ত্যাগ থেকে বিরত থাকার পরামর্শ দিয়েছেন।

ঈদের সময়ে চিকিৎসক পাওয়া যায় না এমন প্রশ্নে ডা. ইয়াহিয়া বলেন, সরকার এবারে চিকিৎসকদের ছুটি বাতিল করেছেন।

এই মহামারি ডেঙ্গু থেকে শুধু চিকিৎসকই নন, সমাজের প্রত্যেক স্তর থেকে নিজেদের নিরাপত্তার ব্যবস্থা নিজেরা করলেই ডেঙ্গু প্রতিহত করা সম্ভব।

ডা. শাহিন ফেরদৌস বলেন, ডাক্তারের উপর নির্ভর করা হবে রোগীর জন্য বোকামি। নিজেকে সচেতন হতে হবে। অন্যকেও সচেতন করতে হবে।

জেলা প্রশাসন, জেলার স্বাস্থ্য বিভাগ, পৌরসভা, জনপ্রতিনিধি থেকে শুরু করে সমাজের সকল স্তরের মানুষকে জনসচেতনা বৃদ্ধিতে বসে না থেকে নিজ নিজ অবস্থান থেকে ব্যাপক প্রচার প্রচারণাও চালাতে হবে। তবেই ডেঙ্গু রোধ করা সম্ভব।

হাসপাতালে ডেঙ্গু রেজিস্টারসহ একটি ওয়ার্ড খোলা হয়েছে বলে জানানো হয়।

মত বিনিময়সভায় পাবনায় কর্মরত স্থানীয়, আঞ্চলিক, জাতীয় দৈনিক পত্রিকা, অনলাইন ভিত্তিক সংবাদ মাধ্যম এবং বিভিন্ন টিভি চ্যানেলের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।


    পাবনায় নামাজের সময়সূচি
    ওয়াক্তসময়
    সুবহে সাদিকভোর ০৪:১৩
    সূর্যোদয়ভোর ০৫:৩৫
    যোহরদুপুর ১২:০২
    আছরবিকাল ১৬:৩৭
    মাগরিবসন্ধ্যা ১৮:৩০
    এশা রাত ২০:০০
© All rights reserved 2019 newspabna.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!