মঙ্গলবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১২:৩৮ পূর্বাহ্ন

তথ্য প্রযুক্তির সহজলভ্যতা, সরকারি সেবায় সুবিধা পাচ্ছে দেশবাসী

সরকারি সেবা সহজ করে জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে কাজ করছে বর্তমান সরকার। ডিজিটাল বাংলাদেশ গঠন করার মাধ্যমে সরকারি সেবা সহজলভ্য করতে সরকার এরই মধ্যে ই-গভর্মেন্ট সেবা চালু করেছে।

জানা গেছে, দেশে দেড় হাজারের মতো সরকারি সেবা রয়েছে। এসব সেবা ডিজিটাইজড করার মাধ্যমে দুর্নীতির মাত্রা জিরো লেভেলে আনতে কাজ করছে সরকার। পাশাপাশি জনসেবার বিষয়টি মাথায় রেখে হয়রানি বন্ধে সরকারের ডিজিটাল কার্যক্রমের সুবিধা পেতেও শুরু করেছে দেশবাসী। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি সেবার মান বৃদ্ধির কারণে সরকারি সেবা হয়েছে সহজলভ্য ও এবং সাশ্রয়ী।

বিভিন্ন তথ্যানুসারে, ডিজিটাল সেবা চালুকরণে দক্ষিণ এশিয়ার অনেক দেশের চেয়ে অল্প সময়ে এগিয়ে গেছে বাংলাদেশ। জনগণের দ্বারপ্রান্তে সরকারি সেবা পৌঁছে দেয়ার ক্ষেত্রে উন্নত বিশ্বকে মডেল রেখে দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে দেশ। পৃথিবীর অন্যান্য দেশের সঙ্গে একযোগে বাংলাদেশেও ফাইভ-জি নেটওয়ার্ক সেবা চালু হবে। ইন্টারনেটের মূল্য কমিয়ে আনা হয়েছে, বাড়ানো হয়েছে সেবা। যার কারণে সরকারি কাজে এসেছে গতি।

সরকারের বিভিন্ন প্রকল্প অনুমোদন, বাস্তবায়ন এবং তদারকিতে ডিজিটাল পদ্ধতি অনুসরণ করছে সরকার। সরকারি টেন্ডার প্রক্রিয়ায় লেগেছে তথ্য-প্রযুক্তির ছোঁয়া। যার কারণে দুর্নীতি কমেছে এবং বেড়েছে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা। মন্ত্রণালয়, সচিবালয়, সরকারি অফিস-আদালত, স্থানীয় পৌরসভা পর্যন্ত বিস্তৃত হয়েছে ই-সেবা। বিদ্যুৎ-গ্যাস বিল দেয়া থেকে শুরু করে যাবতীয় সেবা এখন তথ্য প্রযুক্তির সেবায় গ্রহণ করতে পারছে মানুষ।

২০০৮ সালে যখন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণের কাজ শুরু করেন, তার আগের সরকারের আমলে বাংলাদেশ পরপর ৫ বার দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল৷ এখন প্রযুক্তি ব্যবহারের ফলে মানুষের সময়, অর্থ-দুর্নীতি সবই কমে এসেছে৷ আগে কিছু করতে হলে মানুষকে শারীরিকভাবে সেখানে উপস্থিত হতে হতো৷ এখন অটোমেশনের ফলে শারীরিক উপস্থিতি যেমন কমছে, তেমনি দুর্নীতিও কমছে৷ গত ৯ বছরে প্রযুক্তির ব্যবহারের ফলে সারা বিশ্বে লক্ষ্য করলে দেখা যাবে, দুর্নীতির সূচক অনেকটা সম্মানজনক জায়গায় এসেছে বাংলাদেশ। সবই সম্ভব হয়ে সরকারি সেবা ডিজিটাল সিস্টেমের আওতায় আনার জন্য। আগে এটিএম কার্ড ছিল না, মোবাইল ব্যাংকিং ছিল না৷ এখন ৫ কোটিরও বেশি মানুষ অনলাইন ব্যাংকিং সেবা নিচ্ছেন৷ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এখানে একটা বৈপ্লবিক পরিবর্তন এনেছেন ন্যাশনাল পেমেন্ট সুইচ স্থাপনের মাধ্যমে৷ ব্যাংকিং সেক্টরে এখন অর্ধেক লেনদেন অনলাইনে হচ্ছে। মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে প্রতিদিন প্রায় ১২শ’ কোটি টাকা লেনদেন হচ্ছে। তেমনি করে কোটি কোটি টাকা রেমিট্যান্স আসছে ডিজিটাইজড সিস্টেমে।

এক কথায় তথ্য প্রযুক্তির ছোঁয়ার পাল্টে যাচ্ছে বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক চিত্র। পাল্টাচ্ছে মানুষের জীবনমান। সরকারি সেবায় গতি ও স্বচ্ছতা বাড়ায় দেশ এগিয়ে যাচ্ছে দূর্বার গতিতে।


    পাবনায় নামাজের সময়সূচি
    ওয়াক্তসময়
    সুবহে সাদিকভোর ০৪:৩০
    সূর্যোদয়ভোর ০৫:৪৮
    যোহরদুপুর ১১:৫১
    আছরবিকাল ১৬:১২
    মাগরিবসন্ধ্যা ১৭:৫৩
    এশা রাত ১৯:২৩
© All rights reserved 2019 newspabna.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!