রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৫:৫৬ অপরাহ্ন

দেশের প্রায় ৫ কোটি মানুষ থাইরয়েড সমস্যায় আক্রান্ত

বাংলাদেশের মোট জনসংখ্যার মধ্যে প্রায় ৫ কোটি মানুষ থাইরয়েডজনিত সমস্যায় আক্রান্ত। এর মধ্যে ৩ কোটি মানুষ জানেন না তারা এ সমস্যায় আক্রান্ত। এদের বেশিরভাগই গ্রামে বসবাস করেন। বিশ্ব থাইরয়েড দিবস উপলক্ষে শনিবার রাজধানীর বারডেম মিলনায়তনে আয়োজিত সচেতনতামূলক সভায় এসব কথা বলেন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা।

বাংলাদেশ এন্ডোক্রাইন সোসাইটির সভাপতি অধ্যাপক ডা. মো. ফারুক পাঠানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বারডেম জেনারেল হাসপাতালের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. জাফর এ লতিফ। উপস্থিত ছিলেন সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ডা. মো. হাফিজুর রহমান, সহ-সভাপতি অধ্যাপক ডা. এসএম আশরাফুজ্জামান, সহ-সভাপতি অধ্যাপক ডা. এমএ হাসানাত, সহ-সভাপতি ডা. এমএ সামাদ, নির্বাহী সদস্য অধ্যাপক ডা. মো. ফরিদুদ্দিন, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক সম্পাদক ডা. কাজী আলী হাসান, বিজ্ঞান ও গবেষণা সম্পাদক ডা. নাজমুল কবীর কুরায়েশী, সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. শাহজাদা সেলিম প্রমুখ।
বক্তারা বলেন, বর্তমানে দেশের মানুষের শরীরে অতিরিক্ত অ্যান্টিবডির সংখ্যা ব্যাপক হারে বেড়ে গেছে; এটা ক্ষতিকর। থাইরয়েডজনিত রোগ বিশ্বের ১ নম্বর রোগ। বাংলাদেশে সম্ভাব্য থাইরয়েড হরমোনজনিত রোগীর সংখ্যা প্রায় ৫ কোটি। যার মধ্যে প্রায় ৩ কোটি রোগীই জানেন না তাদের এ সমস্যা রয়েছে। এ রোগ প্রতিরোধে জনসচেতনতাই মুখ্য।

বিশেষজ্ঞদের মতে, থাইরয়েড হরমোন কম বা বেশি নিঃসৃত হওয়া উভয়ই রোগের সৃষ্টি করে। তাই বিয়ের আগে বা গর্ভধারণের পূর্বে নারীদের অবশ্যই থাইরয়েড পরীক্ষা করিয়ে নেয়া উচিত। এ রোগের আশঙ্কা থাকলে যথাযথ চিকিৎসা পদ্ধতি গ্রহণ করে গর্ভধারণ করা উচিত। অন্যথায় শিশুও এ রোগে আক্রান্ত হতে পারে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, এ রোগের সুনির্দিষ্ট কোনো লক্ষণ না থাকায় এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হচ্ছে। তবে এ হরমোনের তারতম্যের ফলে শারীরিক ও মানসিক বৃদ্ধি, হঠাৎ করে শরীর মোটা ও চিকন হওয়া, মাসিকের বিভিন্ন সমস্যা, ত্বকের বিভিন্ন সমস্যা, হার্টের সমস্যা, চোখ ভয়ংকর আকারে বড় হয়ে যাওয়া, বন্ধ্যত্ব, এমনকি ক্যান্সারের সৃষ্টি হতে পারে। সাধারণত একজন পুরুষের বিপরীতে ১০ জন নারী থাইরয়েডে আক্রান্ত হন। বাংলাদেশকে আয়রণ ঘাটতির অঞ্চল হিসেবে উল্লেখ করে বিশেষজ্ঞরা বলেন, এ এলাকায় প্রচুর পরিমাণে আয়রন ঘাটতি থাকায় থাইরয়েডের মতো মারাত্মক সব রোগের প্রকোপ দেখা দিচ্ছে। যা সম্পর্কে দেশের সাধারণ মানুষ জানেন না।

বাংলাদেশে থাইরয়েডের বর্তমান পরিস্থিতি সম্পর্কে চিকিৎসকরা বলেন, বাংলাদেশে থাইরয়েড সমস্যার সব ধরনকে একসঙ্গে হিসাব করলে তা মোট জনসংখ্যার প্রায় ৩০ শতাংশের কাছাকাছি হবে। প্রাপ্তবয়স্ক নারীদের প্রায় ২ শতাংশ এবং পুরুষদের প্রায় শূন্য দশমিক ২ শতাংশ হাইপার থাইরয়েডিজম (থাইরয়েড ও হরমোনের বৃদ্ধিজনিত সমস্যা) রোগে ভোগে। ২০ থেকে ৩০ বছর বয়সের মধ্যে এ রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা বেশি থাকে। এছাড়া প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষ ও নারীর মধ্যে ৩ দশমিক ৯ শতাংশ থেকে ৯ দশমিক ৪ শতাংশ হারে হাইপোথাইরয়েডিজম (থাইরয়েড ও হরমোনের ঘাটতিজনিত সমস্যা) থাকতে পারে। এছাড়া ৭ ভাগ নারী ও পুরুষ সাবক্লিনিক্যাল হাইপোথাইরয়েডিজমে ভোগে। নবজাতক শিশুদেরও থাইরয়েডের হরমোন ঘাটতিজনিত সমস্যা (কনজেনিটাল হাইপোথাইরয়েডিজম) হতে পারে। খুলনা বিভাগে চালানো এক জরিপে দেখা গেছে, ৯২৫ জন নারীর মধ্যে ২০ দশমিক ৪৩ ভাগই থাইরয়েড সমস্যায় আক্রান্ত। থাইরয়েড গ্রন্থিটি গলার সামনের দিকে অবস্থিত প্রজাপতিসদৃশ একটি গ্রন্থি। যা ট্রাকিয়া বা শ্বাসনালিকে পেঁচিয়ে থাকে। যদিও এটি একটি ছোট গ্রন্থি, কিন্তু এর কার্যকারিতা ব্যাপক। থাইরয়েড গ্রন্থি থেকে নিঃসৃত হরমোন মানব পরিপাক প্রক্রিয়ায় অন্যতম ভূমিকা পালন করে। ভ্রূণ অবস্থা থেকে আমৃত্যু থাইরয়েড হরমোনের প্রয়োজন অপরিহার্য।


    পাবনায় নামাজের সময়সূচি
    ওয়াক্তসময়
    সুবহে সাদিকভোর ০৪:২৯
    সূর্যোদয়ভোর ০৫:৪৭
    যোহরদুপুর ১১:৫১
    আছরবিকাল ১৬:১৪
    মাগরিবসন্ধ্যা ১৭:৫৫
    এশা রাত ১৯:২৫
© All rights reserved 2019 newspabna.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!