বৃহস্পতিবার, ১৭ জানুয়ারী ২০১৯, ০৬:১৩ অপরাহ্ন

নবজাতকের গোসল

জন্মের পরপরই অনেকে বাচ্চাকে গোসল করানোর জন্য অস্থির হয়ে পড়েন। তাদের ধারণা, যত দ্রুত সম্ভব শিশুর শরীরের ময়লাগুলো পরিস্কার করা যাবে, ততই শিশুর জন্য মঙ্গল। আবার অনেকে মনে করেন, চুল কাটার পর কিংবা নাভি পড়ার পর গোসল করানো উত্তম।

চিকিৎসাবিজ্ঞান বলে, স্বাভাবিক বাচ্চাদের জন্মের ৪৮ থেকে ৭২ ঘণ্টা পর গোসল করানো উচিত। এর আগে গোসল করানো ঠিক নয়। শিশুকে পরিচ্ছন্ন রাখতে নিয়মিত গোসল করাতেই হবে। শীতকালে আবার ঘন ঘন গোসল না করালেও চলে। এ সময় মলত্যাগ ও প্রস্রাবের পর শিশুকে ভালোভাবে পরিস্কার রাখতে হবে। প্রস্রাব বা মলত্যাগ করার পর শিশুকে গোসলের উদ্যোগ নিতে হবে। এ সময় ঘর বা বাথরুমের তাপমাত্রা যেন স্বাভাবিক থাকে তা দেখে নিতে হবে। গোসলের আগে যিনি গোসল করাবেন, তার হাত ভালো মতো ধুয়ে নিতে হবে। গোসলের জন্য আগে থেকেই বাথটাবে বা গামলাতে স্বাভাবিক তাপমাত্রার অথবা শীতকালে কুসুম গরম পানি তৈরি রাখুন। শিশুর গা মোছানো ছাড়াও ভেজা শরীর ধরার জন্য বাড়তি কাপড় বা টাওয়েল পরিধেয় কাপড়ের সঙ্গে রাখুন। গোসলের আগে শিশুর কাপড়চোপড় খুলে, মলমূত্র থাকলে তা পরিস্কার করে তারপর শিশুকে বাথটাবে নামাতে হবে।

অনেকে গোসলের পানিতে সামান্য ডেটল বা স্যাভলন দিয়ে থাকেন। অনেকে আবার বাড়তি সতর্কতা হিসেবে ব্যবহার করেন নিমপাতা। আসল ব্যাপারটি হলো পানি হতে হবে স্বচ্ছ ও পরিস্কার। নাভি যাতে না ভেজে, সেদিকে বাড়তি খেয়াল রাখা চাই। মনে রাখবেন, নবজাতক প্রথমবার পানির স্পর্শ পেয়ে কেঁদে উঠতে পারে। বাচ্চাকে তাই ধীরে ধীরে পানির সংস্পর্শে আনুন। কিছুক্ষণ পরেই বাচ্চা পানির সঙ্গে মানিয়ে নেবে। তবে বেশি কান্না করলে পানি থেকে উঠিয়ে নিন। শিশুর জন্য বিশেষভাবে তৈরি কম ক্ষারযুক্ত সাবান, শ্যাম্পু ব্যবহার করুন। সাবান কেনার সময় তার পিএইচ লেভেল দেখে নিন। এই লেভেল সাতের নিচে থাকলেই ভালো। গোসলের আগে বাচ্চার শরীরে খাঁটি শর্ষের তেল লাগাতে অস্থির হয়ে পড়েন। তেল মাখলে শিশুর শরীর সবল থাকবে বা হাড্ডি শক্ত হবে- তা ভ্রান্ত ধারণা। গরমে বাচ্চার মাথায় ও ত্বকে তেল মাখাবেন না। এর ফলে শিশুর লোমকূপ বন্ধ হয়ে উল্টো ক্ষতির আশঙ্কা থাকে। গোসলের সময় শিশুর কান, বগল, কুচকি, কানের পেছনটা নরম কাপড় দিয়ে আলতো করে ঘষে দিতে হবে। মাথার ময়লাগুলো আলতো করে ঘষে পরিস্কার করে ফেলুন। পায়খানা-প্রস্রাবের রাস্তা খুব ভালো করে ধুতে হবে। তবে সব সময় খেয়াল রাখবেন নাকে-কানে যেন পানি না ঢোকে। চার-পাঁচ মিনিটে গোসলের পর্ব শেষ করে সঙ্গে সঙ্গে শরীরটা মুছে কাপড় পরিয়ে দেবেন। আসলে গোসল করানোর পুরো প্রক্রিয়াটাতে নিরবচ্ছিন্ন মনোযোগ প্রয়োজন। প্রয়োজনে বাড়তি লোকের সাহায্য নিন।


© All rights reserved 2018 newspabna.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!