সোমবার, ২০ মে ২০১৯, ০৪:২৭ অপরাহ্ন

পাঠ্য পুস্তক ব্যবহারের ব্যতিক্রমী উদ্যোগ ‘বাংলাদেশী বুক ব্যাংক’

অর্থনীতিবিদগণের মতে স্বল্প সম্পদের সুষম বন্টনের মাধ্যমে একটি জাতির অর্থনৈতিক বৈষম্য দূর করা সম্ভব । ঠিক সে ভাবে আমরা দেখতে পাই যে, আমাদের সমাজের যারা স্বচ্ছল তাদের ছেলে মেয়েদেরকে হাজার / লাখ টাকা খরচ করে বই কিনে দেন।

আর অন্যদিকে সাধারণ পরিবার বইকেনা তো দূরের কথা সংসারের খরচ চালাতে হিমশিম খায়।

আমাদের কলেজ , ইউনিভার্সিটি , মেডিকেল বা ইঞ্জিনিয়ারিং এর বইগুলি অনেক দামি আর সব স্টুডেন্টরা প্রয়োজন অনুযায়ী বই কেনার সামর্থ থাকে না ।আমরা সবাই মিলে স্বল্প বইয়ের সুষম বন্টন করতে পারি তবেই , আমরা আমাদের কলেজ বা ইউনিভার্সিটির পাঠ্যপুস্তকের অভাব পূরণ করতে সক্ষম হবো বলে আশা করি।

আমরা সকলে জানি, প্লাস্টিক দ্রব্যের ব্যবহার আমাদের নদীর নাব্যতার উপর প্রভাব ফেলছে বড় বড় কলকারখানার বর্জ্য ও কালো ধোয়ার ফলশ্রুতিতে আমাদের জলবায়ু পরিবর্তনের উপর কুপ্রভাব পড়ছে।

এখন দেখা যায় অনাবৃষ্টি ও অতিবৃষ্টি, অ্যাসিড রেইন, সময়মত গরম না শীত পড়েনা , আবার অনেক সময় অতি গরম বা ঠান্ডা পড়ে ।

আমরা কম বেশি সকলে এই সমস্যার কথা জানি, কিন্তু এর সঠিক সমাধান জানা থাকলেও সমাধানের উপায়গুলির যথার্থ প্রয়োগ করা আদৌও সম্ভব কি ?

আমরা যদি আমাদের ব্যবহৃত পাঠ্যপুস্তক গুলি ‘বাংলাদেশী বুক ব্যাংক’ এর ওয়েব সাইট এর মাধ্যমে অন্য কে প্রদান করি তবে সে বইটির সুস্থ ব্যবহার হবে বলে মনে করি। অপ্রতুল পাঠ্যপুস্তক গুলির সুষ্ঠ ব্যবহার করতে সক্ষম না হই তবে আমাদের মানব সম্পদ উৎপাদনে কিঞ্চিৎ ব্যাঘাত হতেও পারে ।

আমরা যাই করি না কোনো বা যেটাই করি না কেন আর যেভাবেই থাকি , আমরা কিন্তু আমাদের দেশ মা কে অনেক ভালোবাসি ।

আমরা সবাই মনে প্রানে চাই আমাদের এই ছোট্ট সুন্দর জণ্মভূমিটা পৃথিবীর সবচেয়ে উন্নত আর শুভ দেশে পরিণত হউক । যদি আমরা সেটাই চাই আমাদের দেশের ছাত্রদের পাশে দাঁড়াতে হবে, ওদের পড়াশুনার সুযোগ ও পরিবেশ তৈরী করে দিতে হবে ।

আমাদের মাঝে অনেকেই আছেন যারা একটু সুজোগ পেলেই পড়াশুনা করে পৃথিবীর বুকে দেশের নাম উজ্জ্বল করার মতো প্রতিভা রাখে ।

আমরা যদি আমাদের অব্যবহৃত পাঠ্যপুস্তক গুলি ‘বাংলাদেশী বুক ব্যাংক’ এর ওয়েব সাইট এর মাধ্যমে অন্য কে প্রদান করি তবে সে বইটির সুস্থ ব্যবহার হবে বলে মনে করি।

অপ্রতুল পাঠ্যপুস্তক গুলির সুষ্ঠ ব্যবহার করতে সক্ষম না হই তবে আমাদের মানব সম্পদ উৎপাদনে কিঞ্চিৎ ব্যাঘাত হতেও পারে । আমরা যাই করি না কোনো বা যেটাই করি না কেন আর যেভাবেই থাকি , আমরা কিন্তু আমাদের দেশ মা কে অনেক ভালোবাসি ।

আমরা সবাই মনে প্রানে চাই আমাদের এই ছোট্ট সুন্দর জণ্মভূমিটা পৃথিবীর সবচেয়ে উন্নত আর শুভ দেশে পরিনিত হউক । যদি আমরা সেটাই চাই, আমাদের দেশের ছাত্রদের পাশে দাঁড়াতে হবে, ওদের পড়াশুনার সুযোগ ও পরিবেশ তৈরী করে দিতে হবে ।

আমাদের মাঝে অনেকেই আছেন যারা একটু সুযোগ পেলেই পড়াশুনা করে পৃথিবীর বুকে দেশের নাম উজ্জ্বল করার মতো প্রতিভা রাখে । আজকের ছাত্ররাইতো কালকের জাতীয় ও আন্তর্জাতিক নীতিমালার লেখক ।

সুতরাং এই ছাত্ররাই লেখা পড়া শেষ করে অনেকেই আমলা , অর্থনীতিবিদ, সাংবাদিক, রাজনীতিবিদ, ব্যবসায়ী, বিজ্ঞানী, ইঞ্জিনিয়ার, কৃষক বা অন্য পেশায় নিজেকে নিবেদিত করে আমাদের বাংলাদেশ কে সোনার বাংলাতে পরিণত করবে ।

কিন্তু দুঃখের বিষয় আমাদের অনেক ছাত্রই আছে যারা তাদের জীবনের চাহিদা মেটানোর জন্য ছাত্র পড়ায়, হোটেলে বা রেস্তোরাতে অল্প পারিশ্রমিকে কাজ করে আবার অনেকে অটো-রিক্সা চালায় ।

যে সময় বিদ্যা অর্জন করবে সে সময় অনেক ছাত্ররাই জীবনের প্রয়োজন মেটাতে কলুর বলদের মতো ব্যস্ত । আমরা হয়তো পারবোনা সার্বিক অবস্থার পরিবর্তনে আনতে, তবে চাইলেই আমরা পারি আমাদের অব্যবহৃত বইটি সল্প মূল্যে বিক্রি না করে অন্য ছাত্র কে পড়তে দিতে ।

আসুন আমরা সবাই অন্যকে সন্মান করি আর বই দান করে মানব সম্পদ তৈরিতে সাহায্য করি।

আরও বিস্তারিত জানতে ক্লিক করুন-
www.bangladeshibookbank.com

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  


    পাবনায় নামাজের সময়সূচি
    ওয়াক্তসময়
    সুবহে সাদিকভোর ০৩:৪৮
    সূর্যোদয়ভোর ০৫:১৪
    যোহরদুপুর ১১:৫৫
    আছরবিকাল ১৬:৩৪
    মাগরিবসন্ধ্যা ১৮:৩৬
    এশা রাত ২০:০৬

পাবনা এলাকার সেহেরি ও ইফতারের সময়সূচি

© All rights reserved 2019 newspabna.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!