শুক্রবার, ১৮ জানুয়ারী ২০১৯, ০১:১৫ অপরাহ্ন

পাবনার প্রতিটি এলাকায় গড়ে উঠুক ‘মানবতার দেয়াল’

 

রনি ইমরান: পৃথিবী সৃষ্টির শুরু থেকেই সময়- অসময়ে মানুষই মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে। তারা যুগে যুগে একটি বার্তাই দিয়েছে যে মানবতাই শক্তি, মানবতাই মুক্তি।

এখনও যুদ্ধ নয়, মানবতা দিয়েই পৃথিবী গড়তে চায় অনেক মানুষ। মানুষ জানে শুধু নিজের জন্য বেঁচে থাকাই বেঁচে থাকা নয়; অসহায় মানুষের চোখের পানি মুছে দিয়ে বেঁচে থাকার নামই জীবন।

ইতিহাস সাক্ষ্য দেয়, যারা মানুষের পাশে আস্থা হয়ে দাড়িয়েছে তারাই শ্রেষ্ঠ, তারাই মানবতার কারিগর।

সমাজে বেশীর ভাগ মানুষ যখন ঝামেলাহীন জীবন বলতে বোঝে শুধু নিজের জন্য বেঁচে থাকা- তখন কিছু তরুণ দাড়িয়ে গেছে মানবতার প্রশ্নে।

তাঁরা নিজেদের অবস্থান থেকে সাধ্যমতো এগিয়ে আসার চেষ্টা করছে ।

সম্প্রতি দেশের বিভিন্ন এলাকায় তরুণদের মধ্যে এমন একটি মহৎ উদ্যোগ লক্ষ্য করা যাচ্ছে। যার নাম দেওয়া হয়েছে ‘মানবতার দেয়াল’।

রাজধানী থেকে শুরু করে দেশের বিভিন্ন এলাকায় তরুণরা ‘মানবতার দেয়াল’ নামে একটি স্বেচ্ছাসেবা কার্যক্রম শুরু করেছেন।

তাঁরা একটি দেয়াল নির্ধারণ করেছেন যেখানে লেখা রয়েছে- আপনার অপ্রয়োজনীয় জিনিস রেখে যান। তার পাশেই লেখা রয়েছে- আপনার প্রয়োজনীয় জিনিস নিয়ে যান।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের কল্যাণে এই মহৎ উদ্যোগটি রাজধানীসহ দ্রুত দেশের বিভিন্ন জেলায় ছড়িয়ে পড়ছে।

বিবিসি বাংলা সূত্রে জানা যায়, এই মানবতার দেয়ালটির পথম উদ্যোক্তা মাগুরা জেলার শালিখা উপজেলার আড়পারা স্কুলের প্রধান শিক্ষক ইসায়মিন আকতার।

তিনি ২০১৪ সালে তার স্কুলে এ কার্যক্রম চালু করেন। তিনিই প্রথম অসহায় শিতার্তদের কথা চিন্তা করে এমন মহৎ উদ্যোগ নেন।

পরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম তা ছড়িয়ে পড়লে জেলা শহর গুলোতে কিছু মানবতাবাদী তরুণ এ উদ্যোগ নেয়।

পাবনায় শহরের ইন্দারা মোড়ে মাসখানেক আগে নির্মাণ করা হয় ‘মানবতার দেয়াল’ তবে তা একটি জায়গায় সীমাবদ্ধ রয়েছে। যেখানে যানজটের কারনে দাড়ানো দায়।

পাবনায় তরুন সমাজসেবকদের অনুপ্রেরণা দানকারী ডাঃ রাম দুলাল ভৌমিক বলেন, এটি একটি মহৎ কাজ। এ ধরনের উদ্যোগ প্রসংশনীয়। সারা বছর এ ধরনের কার্যক্রম চালু থাকলে মানুষের মধ্যে একটি বন্ধন তৈরী হবে।

পাবনায় মাছরাঙা টেলিভিশনের উত্তরাঞ্চলীয় ব্যুরো চিফ সাংবাদিক উৎপল মির্জা বলেন, মানবতার দেয়াল এটি তরুণদের একটি মহৎ উদ্যোগ। এসব তরুণদের উৎসাহ দিতে হবে।

একাজে উদ্যোগী কয়েকজন তরুণের সাথে কথা বলে বিষয়টি বেশ ইতিবাচক সাড়া ফেলেছে বলে মনে হয়েছে।

আশার কথা হলো ‘মানবতার দেয়াল’ শীর্ষক এই কার্যক্রমের মধ্যে তারুণ্যের যে নব উদ্যাম সৃষ্ট হয়েছে তা সত্যিই অন্যদের অনুপ্রেরণা যোগাবে।

এই কার্যক্রম শুধু সুবিধাবঞ্চিত মানুষের হাতে শীতবস্ত্র বা সাধারণ পোশাক পৌঁছে দেওয়া নয়, বরং মানবিক জনগুরুত্ব আরও অনেক বিষয় এর সঙ্গে সম্পৃক্ত হতে পারে।

রাজধানী থেকে জেলা শহরই শুধু নয় প্রতিটি এলাকায় গড়ে উঠুক মানবতার দেয়াল। দৃঢ়ভাবে সৃষ্টি হোক সামাজিক বন্ধন।

মানবতাবাদী তরুণরা হাতে হাত রেখে প্রতিটি পাড়া- মহল্লায় গড়ে তুলুক ভালোবাসার ‘মানবতার দেয়াল’ এমন প্রত্যাশা সকলের। জয় হোক মানবতার।

 

 


© All rights reserved 2018 newspabna.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!