বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০১৯, ০৮:৫৫ পূর্বাহ্ন

পাবনা-৪ আসনের নির্বাচনী মাঠে মেজর জেনারেল (অব:) এ.এস.এম নজরুল ইসলাম রবি

মেজর জেনারেল এ.এস.এম নজরুল ইসলাম রবি (অব:)

 

নিজস্ব প্রতিনিধি : একাদশ জতীয় সংসদ নির্বাচনের দিনক্ষণ যতই এগিয়ে আসছে ক্ষমতাসিন দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য প্রার্থীদের আনাগোনা ততই বৃদ্ধি পাচ্ছে।

সংসদীয় আসন পাবনা-৪ (ঈশ্বরদী- আটঘরিয়া) এ নৌকা প্রতীক নিয়ে ভোটের মাঠে অবতীর্ন হওয়ার জন্য গনসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন মেজর জেনারেল (অব:) এ.এস.এম নজরুল ইসলাম রবি।

মহান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালিন সময়ে বাঙালি অফিসার হিসেবে তিনি পাকিস্তানি ক্যান্টমেন্টে বন্দী জীবন যাপন করেন ও অকথ্য নির্যাতন ভোগ করেন।

তিনি হলেন সাবেক ডিজিএফআই এর প্রধান পাবনা জেলার আটঘরিয়া উপজেলার উজ্জ্বল নক্ষত্র বেরুয়ান গ্রামের সূর্য সন্তান মেজর জেনারেল (অব:) এ.এস.এম নজরুল ইসলাম রবি।

তাঁর পিতার নাম আলহাজ এ্যাড: শাহাদত আলী (সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক ছিলেন), মাতার নাম মোছা: রাবেয়া খাতুন। তিনি নিজ গ্রামে বেরুয়ানে ১৯৫০ সালের ৩০ জানুয়ারি জন্ম গ্রহন করেন।

নজরুল ইসলাম রবি সড়াবাড়িয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রাথমিক শিক্ষা সম্পন্ন করেন। পাবনা রাধানগর মজুমদার (আর.এম) একাডেমী থেকে ১৯৬৬ সালে মাধ্যমিক পাশ করেন।

এরপর সরকারি এডওয়ার্ড কলেজে ভর্তি হন। দু’বছর পড়াশুনা করেন। কিন্তু পরীক্ষা না দিয়ে পরের বছর ১৯৬৯ সালে ঈশ্বরদী সরকারি কলেজ থেকে উচ্চ-মাধ্যমিক পরীক্ষা দেন এবং কৃতিত্বের সাথে পাশ করেন।

তারপর রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ইংরেজি বিষয়ে অনার্সে ভর্তি হন। সেই বছর তিনি সেনাবাহিনীর কমিশন অফিসার হিসেবে নির্বাচিত হন এবং ১৯৭০ সালে সেনা অফিসার পদে যোগ দেন।

পরবর্তী পদোন্নতিতে তিনি মেজর জেনারেল পদে উন্নিত হন। তিনি বাংলাদেশ প্রতিরক্ষা গোয়েন্দা সংস্থা ডিজিএফআই এর মহাপরিচালক পদে স্থলাভিসিক্ত হন।

তিনি চাকুরিরত অবস্থায় ও অবসরকালীন সময়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ সফর করেন। তিনি সৌদি আরব, দুবাই, ভারত, পাকিস্তান, মিয়ানমার, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর, ফিলিপাইন, চীন, গ্রীস, ইংল্যান্ড, আমেরিকা, অস্ট্রেলিয়া, থাইল্যান্ড, কেনিয়া, রুয়ান্ডা, ইথিওপিয়াসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ সফর করেন। ১৯৯৮ সালে তিনি স্বস্ত্রীক সৌদি আরবে পবিত্র হজব্রত পালন করেন।

মেজর জেনারেল (অব:) নজরুল ইসলাম রবি ১৯৭৬ সালের ফেব্রুয়ারি মাসের ৬ তারিখে পাবনা শহরের কাচারীপাড়া মহল্লার মরহুম এ্যাড: মোফাজ্জল হোসেনের কন্যা মাহমুদা ইসলাম মিরার সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। তিনি এক ছেলে ও এক মেয়ের জনক।

মেয়ে ডা: মেহেরিবান আমাতুল্লাহ ঢাকার বিখ্যাত শিকদার মেডিক্যাল কলেজ থেকে এম.বি.বি.এস ডিগ্রী লাভ করে বর্তমানে বঙ্গবন্ধু মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে গাইনি বিভাগে স্পেশালিস্ট হিসেবে কর্মরত আছেন। ঠাকুরগাঁও জেলার বানিয়াডাঙ্গি উপজেলার সেনা অফিসার মেজর জাবের বিন জব্বার এর সাথে তার বিবাহ হয়।

ছেলে সাঈদ উদ্দিন আবদুল্লাহ বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অফ প্রফেসনালস এ উচ্চ শিক্ষার জন্য অধ্যায়ন করছে।

তিনি আশির দশকে নকশবন্দি মোজাদ্দেদীয়া তরিকার ভূবন বিখ্যাত পীর টাংগাইল প্যারাডাইসপাড়া দরবারে মোজাদ্দেদীয়ার হযরত মওলানা শাহ সুফি মকিম উদ্দিন আহমেদ নকশবন্দি মোজাদ্দেদী (র:) এর হাতে বায়াত গ্রহন করেন এবং ১৯৯৪ সালে তাকে তরিকার খেলাফত প্রদান করা হয়।

পরবর্তীকালে তারই সুযোগ্য সাহেবজাদা নকশবন্দি মোজাদ্দেদীয়া তরিকার বর্তমান পীর ড: খাজা আব্দুল হালিম ইমামে সানি (মা: আ:) প্রতি বছর বেরুয়ান মোজাদ্দেদীয়া খানকা শরিফে আগমন করেন এবং দীর্ঘ ২২ বছর যাবত সেখানে ফেব্রুয়ারি মাসের শেষ সপ্তাহে বার্ষিক মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে।

এছাড়া বেরুয়ান মোজাদ্দেদীয়া খানকা শরীফে প্রতিমাসে মাসিক মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

পাবনা জেলার প্রত্নতত্ব বিভাগের তালিকাভুক্ত আড়াইশ বছরের পুরনো বেরুয়ান ঐতিহাসিক জামে মসজিদের মোতাওয়াল্লি হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন।

মসজিদের পাশে তার নিজস্ব জমিতে একটি হাফেজিয়া মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করেছেন। তার পাশেই বেরুয়ান পোস্ট অফিস এবং শিশু ও মাতৃকল্যান কেন্দ্র গড়ে তোলার জন্য জমি দান করেছেন।

তিনি এতিম, দু:স্থদের সহায়তা দানের উদ্দেশ্যে পাবনা- সিরাজগঞ্জ ও টাংগাইল ৩ জেলা ব্যাপি মুজাদ্দেদীয়া মানব কল্যান (মুমাক) নামে একটি সংস্থা গড়ে তুলেছেন। যার মাধ্যমে এতিম, দু:স্থদের চিকিতসাসেবা- আর্থিক সহায়তা এবং গরীব মেধাবী ছাত্র- ছাত্রীদেরকে বৃত্তি প্রদান করে আসছেন।

 


    পাবনায় নামাজের সময়সূচি
    ওয়াক্তসময়
    সুবহে সাদিকভোর ০৩:৫৪
    সূর্যোদয়ভোর ০৫:২২
    যোহরদুপুর ১২:০৫
    আছরবিকাল ১৬:৪৪
    মাগরিবসন্ধ্যা ১৮:৪৭
    এশা রাত ২০:১৭
© All rights reserved 2019 newspabna.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!