বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০১৯, ০৮:২৯ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :

বর্ষার শুরুতেই প্রাণ ফিরেছে পদ্মায়

ছবি : মুক্তাদির মুক্তো

 

নিজস্ব প্রতিনিধি : এবছর বর্ষার শুরুতেই প্রাণ ফিরেছে পদ্মায়। ধীরে ধীরে শুরু হয়েছে স্রোতধারা। পাবনা জেলার দক্ষিণ-পশ্চিমে পদ্মা নদী প্রবাহিত।

নদীর এ প্রবাহে ভেসে চলেছে কচুরিপানা। চলছে জেলেদের নৌকা। আর তাদের জালে উঠে আসছে ছোট ছোট মাছ।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, বর্ষায় নিয়মিতভাবে বৃষ্টিপাত হওয়ায় পদ্মা নদীর পানি বাড়ছে। পাশাপাশি ফারাক্কা বাঁধ হয়েও ভারত থেকে কিছু পানি আসছে।

ভারতের গঙ্গা নদী রাজশাহীর গোদাগাড়ী ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার মধ্যবর্তী এলাকা দিয়ে পদ্মা হয়ে বাংলাদেশে ঢুকেছে।

কিন্তু বছরের বেশিরভাগ সময় পদ্মার এসব এলাকা বিস্তীর্ণ বালুচরে পরিণত হয়। এর প্রভাব পড়ে প্রাকৃতিক পরিবেশ ও কৃষিতে।

তবে কেবল বর্ষা এলেই পদ্মা নদীতে পানি বাড়ে। মাস দু’য়েক পর আবার চর পড়ে নদীতে।

পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) জানিয়েছে, পদ্মার পানির উচ্চতা ১৮ দশমিক ৫০ মিটারের বেশি হলে তাকে বিপদসীমা অতিক্রম হিসেবে ধরা হয়।

গেল ১৫ বছরে মাত্র দুই বার পদ্মা নদীর পানি বিপদসীমা অতিক্রম করেছে। এর মধ্যে ২০০৪ থেকে ২০১২ সাল পর্যন্ত টানা ৯ বছর রাজশাহীতে পদ্মার পানি বিপদসীমা অতিক্রম করেনি।

কেবল ২০০৩ সালের ১৯ সেপ্টেম্বর রাজশাহীতে পদ্মার সর্বোচ্চ উচ্চতা ছিল ১৮ দশমিক ৮৫ মিটার।

এরপর ২০১৩ সালের ৭ সেপ্টেম্বর রাজশাহীতে পদ্মা বিপদসীমা অতিক্রম করে। ওই বছর পদ্মার সর্বোচ্চ উচ্চতা ছিল ১৮ দশমিক ৭০ মিটার।

সর্বশেষ গেল বছরের ২৮ আগস্ট পদ্মার পানির প্রবাহ উঠেছিল সর্বোচ্চ ১৮ দশমিক ৪১ মিটার। এরপর থেকেই কমতে শুরু করে পানি।

এক সময় কয়েকভাগে নদী বিভক্ত হয়ে পরিণত হয় বালুচরে।

পাউবো সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছরের মার্চে একবার পদ্মার পানির সর্বনিম্ন উচ্চতা হয়েছিল মাত্র ৭ দশমিক ৯৬ মিটার।

এরপর গত ২৩ জুন থেকে পদ্মার পানির উচ্চতা আবার বাড়তে শুরু করেছে।

সর্বশেষ সোমবার পদ্মার পানির উচ্চতা মাপা হয় ১০ দশমিক ৪৮ মিটার।

এখন ক্রমেই পানি বৃদ্ধি পেতে থাকবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট বিভাগের কর্মকর্তারা।

এদিকে পদ্মাপাড়ের জেলেরা জানিয়েছেন, নদীতে পানি বৃদ্ধি শুরু হওয়ায় জালে দেশি ছোট মাছ ধরা পড়ছে বেশি। তাই জেলেরা নৌকা-জাল নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়েছেন পদ্মায়।

এসব জেলেরা কয়েকমাস আগে থেকেই নতুন নৌকা-জাল তৈরি করে পদ্মায় পানি বৃদ্ধির অপেক্ষায় ছিলেন।

এখন পানি বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে তারা নেমে পড়েছেন নদীতে।

 


    পাবনায় নামাজের সময়সূচি
    ওয়াক্তসময়
    সুবহে সাদিকভোর ০৩:৫৪
    সূর্যোদয়ভোর ০৫:২২
    যোহরদুপুর ১২:০৫
    আছরবিকাল ১৬:৪৪
    মাগরিবসন্ধ্যা ১৮:৪৭
    এশা রাত ২০:১৭
© All rights reserved 2019 newspabna.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!