মঙ্গলবার, ২১ মে ২০১৯, ০৪:৫৮ পূর্বাহ্ন

বৃষ্টিভেজা টেস্টে তামিমের রোদেলা ব্যাটিং

প্রথম দু’দিনের খেলা বৃষ্টিতে ভেসে যাওয়ার পর অবশেষে রোববার তৃতীয়দিনে মাঠে গড়াল ওয়েলিংটন টেস্ট। তৃতীয়দিনের খেলার অকাল সমাপ্তি ঘটাতে অবশ্য শেষ সেশনে যথারীতি হানা দিয়েছে বৃষ্টি। তার আগে দু’দলের প্রথম ইনিংস মিলিয়ে ৭২.৪ ওভারে উইকেট পড়েছে ১২টি।

বৃষ্টিবিঘিœত দিনের শুরু ও শেষটা যদি বাংলাদেশের হয়, তবে মাঝের সময়টা শুধুই নিউজিল্যান্ডের। ইনিংস ব্যবধানে হারা হ্যামিল্টন টেস্টের প্রথম ইনিংসের সঙ্গে আশ্চর্য মিল রেখে ওয়েলিংটনেও বাংলাদেশের ব্যাটিংয়ের গল্পটা আক্ষেপের। দুর্দান্ত শুরুর পর শর্ট বলে আত্মাহূতি দিয়ে হতাশার শেষ। হ্যামিল্টনে প্রথম ইনিংসে সেঞ্চুরি করা তামিম ইকবাল ওয়েলিংটনের প্রথম ইনিংসে করলেন ৭৪ রান। উদ্বোধনী জুটিতে এলো ৭৫ রান।

এক উইকেটে ১১৯ রান তুলে ফেলার পর ফিরে আসে ব্যাটিং ধসের সেই পুরনো দৃশ্যপট। নিল ওয়াগনারের শর্ট বলের ছোবলে ৯২ রানে বাকি নয় উইকেট হারিয়ে ২১১ রানে শেষ বাংলাদেশের প্রথম ইনিংস। এর মধ্যে মাত্র পাঁচ রানে পড়েছে শেষ চার উইকেট। তারপরও দিনটা ঠিক চূড়ান্ত হতাশা নিয়ে শেষ করতে হয়নি বাংলাদেশকে। বৃষ্টি হানা দেয়ার আগে জোড়া ছোবলে নিউজিল্যান্ডকে কাঁপিয়ে দিয়েছেন বাংলাদেশের তরুণ পেসার আবু জায়েদ। দুই উইকেটে ৩৮ রানে তৃতীয়দিন শেষ করেছে স্বাগতিকরা। আট উইকেট হাতে রেখে প্রথম ইনিংসে ১৭৩ রানে পিছিয়ে নিউজিল্যান্ড।

বেসিন রিজার্ভের সবুজ আউটফিল্ডের সঙ্গে উইকেটের বিশেষ ফারাক নেই। টানা দু’দিনের বৃষ্টিতে উইকেটে আর্দ্রতাও ছিল যথেষ্ট। নিউজল্যান্ডের একাদশে পাঁচ পেসার। এমন বৈরী কন্ডিশনে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নামা ছিল ভীষণ চ্যালেঞ্জিং। অথচ সব শঙ্কা উড়িয়ে দিয়ে বাংলাদেশের শুরুটা ছিল দারুণ।

দুই ওপেনার তামিম ও সাদমান ইসলামের জমাট ব্যাটিংয়ে কিছুতেই দাঁত বসাতে পারছিলেন না ট্রেন্ট বোল্ট ও টিম সাউদি। ৭৫ রানের উদ্বোধনী জুটির পথে দারুণ এক কীর্তি গড়েন তামিম ও সাদমান। সিরিজে বাংলাদেশের টানা তৃতীয় পঞ্চশোর্ধ্ব রানের উদ্বোধনী জুটি এটি।

চলতি শতাব্দীতে নিউজিল্যান্ডের মাটিতে আর কোনো সফরকারী দলের উদ্বোধনী জুটির এই কীর্তি নেই। ২১তম ওভারে সাদমানকে ২৭ রানে ফিরিয়ে এই জুটি ভাঙেন কলিন ডি গ্র্যান্ডহোম। সঙ্গীকে হারিয়েও ছন্দপতন হয়নি তামিমের। মুমিনুল হককে (১৫) নিয়ে আরেকটি সম্ভাবনাময় জুটি গড়ে তোলার পথে ছিলেন তামিম। কিন্তু লাঞ্চের ঠিক আগে আক্রমণে এসেই সব এলোমেলো করে দেন ওয়াগনার। হ্যামিল্টনের মতোই শর্ট বলে তিনি ধসিয়ে দেন বাংলাদেশকে।

মুমিনুল ও মোহাম্মদ মিঠুনকে দ্রুত ফেরানো ওয়াগনার সবচেয়ে বড় ধাক্কাটা দেন লাঞ্চের পর। শর্ট বলে বাজে শট খেলে ওয়াগনারকে নিজের উইকেটটি উপহার দিয়ে আসেন ১১৪ বলে ৭৪ রান করা তামিম। আগের টেস্টের দুই সেঞ্চুরিয়ান সৌম্য সরকার (২০) ও মাহমুদউল্লাহও (১৩) ফিরেছেন উইকেট উপহার দিয়ে।

এরপর যা একটু লড়াই করেছেন লিটন দাস (৩৩)। তাকে ফেরান টিম সাউদি। লেজ মুড়িয়ে দেয়া কাজটা সারেন ৩৮ রানে তিন উইকেট নেয়া বোল্ট। তবে মাত্র ২৮ রানে চার উইকেট নিয়ে আসল সর্বনাশটা করেছেন ওয়াগনার।

ব্যাটিংয়ের মতো বোলিংয়েও বাংলাদেশের শুরুটা ছিল দাপুটে। নতুন বলে রীতিমতো আগুন ঝরিয়েছেন আবু জায়েদ ও ইবাদত হোসেন। ইবাদত উইকেট না পেলেও আট রানের মধ্যেই প্রথম টেস্টের দুই সেঞ্চুরিয়ান জিত রাভাল ও টম লাথামকে ফিরিয়ে দেন আবু জায়েদ।

এরপর বৃষ্টি হানা দেয়ার আগে বাকিটা সময় নিরাপদে কাটিয়ে দেন কেন উইলিয়ামসন (১০) ও রস টেলর (১৯)।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  


    পাবনায় নামাজের সময়সূচি
    ওয়াক্তসময়
    সুবহে সাদিকভোর ০৩:৪৭
    সূর্যোদয়ভোর ০৫:১৪
    যোহরদুপুর ১১:৫৫
    আছরবিকাল ১৬:৩৪
    মাগরিবসন্ধ্যা ১৮:৩৬
    এশা রাত ২০:০৬

পাবনা এলাকার সেহেরি ও ইফতারের সময়সূচি

© All rights reserved 2019 newspabna.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!