বুধবার, ২০ ফেব্রুয়ারী ২০১৯, ০৭:১১ অপরাহ্ন

ভাঙ্গুড়ায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবন ও জমি দখলের অভিযোগ

 

ভাঙ্গুড়া প্রতিনিধিঃ পাবনার ভাঙ্গুড়ায় বাওসি এনজিও পরিচালিত হরিহরপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ঘর ও জমি অষ্টমিনষা টেকনিক্যাল এন্ড বিজনেস ম্যানেজমেন্ট ইন্সটিটিউট কর্তৃক দখলের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ বিষয়ে গত ২৭ জুলাই পাবনা জেলা প্রশাসক বরাবরে লিখিত অভিযোগ করেন ওই প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কে এম আবু সাঈদ।

পাশাপাশি অনুলিপি দিয়েছেন স্থানীয় সাংসদ, ইউএনওসহ বিভিন্ন দফতরে।

অভিযোগে তিনি উল্লেখ করেছেন, ১৯৯৮ সালে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের শিক্ষা বিভাগের বাধ্যতামুলক শিক্ষা বাস্তবয়ন পরিবীক্ষণ ইউনিট প্রাথমিক ও গণশিক্ষা বিভাগের বাপ্রশি/ এর বিজ্ঞপ্তি মোতাবেক বিদ্যালয় বিহীন গ্রামে প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপনের জন্য বিভিন্ন এনজিওদের নিকট দরখাস্ত আহ্বান করে।

সেই আহবানে সাড়া দিয়ে বাওসি এনজিও আবেদন করেন।

আবেদনে ভাঙ্গুড়া, চাটমোহর থানার ৬টি বিদ্যালয় মহাপরিচালক প্রাথমিক শিক্ষা পরিবীক্ষণ বাস্তবায়ন ইউনিট অনুমোদন দেন।

তাদেরই একটি হলো হরিহরপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়।

শর্ত মোতাবেক বিদ্যালয় নির্মানের জন্য পৌর সদরের বাহিরে ৩৩ শতক নিষ্কন্টক জমি প্রাথমিক ও গণশিক্ষা বিভাগের মহাপরিচালকের অনুকুলে রেজিষ্ট্রিও করে দেওয়া হয়।

এরই ধারাবাহিকতায় ১৯৯৮সালে প্রাথমিক ও গণ শিক্ষা বিভাগ বিদ্যালয়টিকে ৫ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয় যা দিয়ে একটি ঘর নির্মাণ করেছিল বাওসি এনজিও।

এভাবে ১৯৯৯ সাল হতে ২০০৩ সাল পযর্ন্ত ৪জন শিক্ষক দ্বারা বিদ্যালয়টি সুন্দুর ভাবে চলতে থাকে এবং শিক্ষার্থীরা সরকারি নিয়মানুয়ায়ী উপবৃত্তিও পেয়ে আসছিল বলে আবেদনে উল্লেখ করা হয়।

কিন্তু ২০০৪ সালে বাওসি এনজিও বেতন বন্ধ করলে বিদ্যালয়ের শিক্ষকবৃন্দ হতাশ হয়ে পড়েন। ফলে দাবী আদায়ের লক্ষ্যে শিক্ষকবৃন্দ বিদ্যালয় কিছুদিন বন্ধ রাখা হয়।

এরমধ্যে পাশের গ্রামের মো. শাহিনুর ইসলাম বিদ্যালয়ের জমিদাতার এক ছেলেকে লোভ দেখিয়ে বাওসি বিদ্যালয়কে পুঁজি করে নিয়োগ বাণিজ্য চরিতার্থ করার লক্ষ্যে বাওসি বিদ্যালয়কে দখল করে অষ্টমনিষা টেকনক্যাল এন্ড বিজনেস ইন্সটিটিউট প্রতিষ্ঠিত করে বলে অভিযোগ।

অপরদিকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো.মিজানুর রহমান ২০০৫ সালের ২২শে মার্চ তারিখে স্বাক্ষারিত জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার বরাবারে প্রেরিত এক তদন্ত প্রতিবেদনেও বিদ্যালয়টি ছিল বলে উল্লেখ করা হয় ।

এবিষয়ে অষ্টমনিষা টেকনিক্যাল এন্ড বিজনেস ম্যানেজমেন্ট ইন্সটিটিউট কলেজের অধ্যক্ষ মো. শাহিনুর ইসলাম জানান, বাওসি বিদ্যালয় ছিল বলে তার জানা নাই আর ভবন, জায়গা এখন যা কিছু দৃশ্যমান সবই অষ্টমনিষা টেকনিক্যাল এন্ড বিজনেস ম্যানেজমেন্ট ইন্সটিটিউটের বলে তিনি দাবী করেন।

 


    পাবনায় নামাজের সময়সূচি
    ওয়াক্তসময়
    সুবহে সাদিকভোর ০৫:১০
    সূর্যোদয়ভোর ০৬:২৮
    যোহরদুপুর ১২:১২
    আছরবিকাল ১৬:১৯
    মাগরিবসন্ধ্যা ১৭:৫৬
    এশা রাত ১৯:২৬
© All rights reserved 2019 newspabna.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!