শুক্রবার, ১৮ জানুয়ারী ২০১৯, ০২:৪১ অপরাহ্ন

মনোনয়ন বাণিজ্যে বৃহত্তর ক্ষতি হয়েছে বিএনপি ও বেগম জিয়ার

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির হতাশাজনক পরাজয়ের জন্য মনোনয়ন বাণিজ্যকেই দায়ী করছেন দলটির মনোনয়নবঞ্চিত একাধিক নেতারা। শুধু অর্থের বিনিময়ে দলীয় প্রতীক অদক্ষ এবং অযোগ্য ব্যক্তিদের হাতে তুলে দেয়ায় বিএনপির এমন লজ্জাজনক পরাজয় ঘটেছে বলে মনে করছেন নেতারা। চূড়ান্ত পরনির্ভরশীলতা এবং লোভের ফাঁদে পা দেয়ায় বিএনপিকে আজ এমন হতাশাজনক দিন দেখতে হচ্ছে বলেও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন দলটির কয়েকজন ক্ষুব্ধ নেতা।

বিএনপির একাধিক দায়িত্বশীল সূত্রের খবরে জানা গেছে, নির্বাচনে জনরায় বিএনপির বিপক্ষে যাওয়ার কারণ খুঁজে পাচ্ছেন না হতাশ নেতারা।

দলের পরীক্ষিত, যোগ্য এবং উপযুক্ত নেতাদের কঠিন পরীক্ষার সময় অবমূল্যায়ন করায় বিএনপিকে এমন দুর্যোগের মধ্যে পড়তে হয়েছে এবং অবস্থার দ্রুত পরিবর্তন না ঘটালে দলটিকে অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতে দীর্ঘ সংগ্রাম করতে হবে বলেও শঙ্কা প্রকাশ করেছেন একাধিক বঞ্চিত নেতারা। হাইকমান্ড উপযুক্ত এবং সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত নিতে ব্যর্থতার পরিচয় দেয়ায় বিএনপির অবনমন ঘটে তৃতীয় শ্রেণির রাজনৈতিক দলে পরিণত হয়েছে বলে মনে করছেন তারা।

বিএনপির এমন বিপর্যয়ের বিষয়টির জন্য হাতে গোনা কজন রাজনীতিবিদকে দায়ী করে দলটির মনোনয়নবঞ্চিত নেতা আসাদুজ্জামান রিপন ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। আসাদুজ্জামান রিপনের মতে, বিএনপি নির্বাচনের শুরুতেই নিজেদের ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে। বিএনপির মতো বৃহত্তর একটি রাজনৈতিক দলকে কেন ড. কামালের মতো চতুর রাজনীতিবিদের সঙ্গে হাত মেলাতে হবে? ড. কামালের ক্রমাগত হুংকার-হুমকিতে বিএনপি ভেবেছিলো বিপদের দিনে তিনিই হতে পারেন কাণ্ডারি। ড. কামালের খুঁটির জোর শক্ত ভেবে বিএনপি সকল সিদ্ধান্তের দায়িত্ব তুলে দিয়ে ঐতিহাসিক ভুল করেছে। ড. কামালদের বিশ্বাস করার মাসুল আগামীতেও দিতে হবে বিএনপিকে। এছাড়া মনোনয়নকালীন সময়ে একদম ওপেনে চাঁদাবাজি হয়েছে। অনেকটা নিলামের মতো করে যে বেশি দাম হাঁকাতে পেরেছেন, তিনিই ধানের শীষের প্রতীকে বাগিয়ে নিয়েছেন। এক্ষেত্রে নুন্যতম প্রার্থীর গ্রহণযোগ্যতা, মেধা, রাজনৈতিক প্রজ্ঞার মূল্যায়ন করা হয়নি। মনোনয়ন বিক্রি করে লাভবান হয়েছেন লন্ডনে অবস্থান করা বিএনপির মালিক, দেশের হাতেগোনা কিছু চাটুকার নেতা এবং পার্টি অফিসকে বাসা বানানো এক নেতা। পর্যালোচনা করলে একটি বিষয় স্পষ্ট প্রতীয়মান হয় যে, এই নির্বাচনে বিএনপির অনেক নেতাই লাভবান হয়েছেন, আগামী পাঁচবছর পার্টি অফিসকেন্দ্রিক পিকনিক এবং আড্ডাবাজীর পুঁজি যোগাড় করেছেন। কিন্তু সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বিএনপি এবং বেগম খালেদা জিয়া। বিএনপি নেতারা এই সত্য অনুধাবন করতে পারছেন না।


© All rights reserved 2018 newspabna.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!