মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০১৯, ১২:৩৭ পূর্বাহ্ন

মুসলিম উম্মাহর ঐক্য চান প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মুসলিমবিশ্বের ঐক্যের ওপর গুরুত্বারোপ করে বলেছেন, এই উম্মাহর একসঙ্গে থাকা উচিত। তিনি বলেন, মুসলিমবিশ্বের দেশগুলোর মধ্যে সৃষ্ট সংঘাতে ওই দেশগুলোর জনগণকেই ভোগান্তির শিকার হতে হয়। এজন্য মুসলিম উম্মাহর মধ্যে কোনো সমস্যা দেখা দিলে তা আলাপ-আলোচনার মাধ্যমেই সমাধানের আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।

বাংলাদেশে নবনিযুক্ত ইরানের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ রেজা নাওফর বুধবার সকালে প্রধানমন্ত্রীর তেজগাঁও কার্যালয়ে তার সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতে এলে শেখ হাসিনা এ অভিমত ব্যক্ত করেন। বৈঠকের পর প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন।

বৈঠকে দু’দেশের মধ্যে অভিন্ন সাংস্কৃতিক বন্ধনের কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের পররাষ্ট্রনীতি হচ্ছে- ‘সবার সঙ্গে বন্ধুত্ব এবং কারও সঙ্গে বৈরিতা নয়।’ ইরানের জনগণকে সাহসী হিসেবে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ইরানের অর্থনীতির উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি হচ্ছে।

বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের অসাধারণ দিকগুলো তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশের জনগণের জীবনমানের উন্নয়নে তার সরকার কঠোর পরিশ্রম করে যাচ্ছে। তিনি বলেন, আমরা দারিদ্র্যের হার ২১ শতাংশে নামিয়ে এনেছি এবং আমাদের উন্নয়ন নীতিমালা হচ্ছে গ্রামকেন্দ্রিক।

বাংলাদেশে বিরাজমান ধর্মীয় সম্প্রীতির কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এখানে সব ধর্মের মানুষ একত্রে যে কোনো ধর্মীয় উৎসবে অংশগ্রহণ করে। তিনি বাংলাদেশে নবনিযুক্ত ইরানের রাষ্ট্রদূতকে স্বাগত জানিয়ে ইরানের রাষ্ট্রপতির প্রতি শুভেচ্ছা জ্ঞাপন করেন।

শেখ হাসিনা বাংলাদেশে দায়িত্ব পালনকালীন তার সরকারের পক্ষে থেকে সম্ভাব্য সব ধরনের সহযোগিতা প্রদানে রাষ্ট্রদূতকে আশ্বাস দেন। প্রধানমন্ত্রী ২০১২ সালে ষষ্ঠ ন্যাম সম্মেলন এবং ১৯৯৭ সালে ওআইসি সম্মেলনে যোগ দিতে তার ইরান সফরের কথা স্মরণ করেন।

ইরানের রাষ্ট্রদূত বৈঠকে ৩০ ডিসেম্বরের সাধারণ নির্বাচনে তার দলের বিপুল বিজয়ে ইরানের রাষ্ট্রপতির পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানান। রেজা নাওফর শেখ হাসিনাকে একজন বিচক্ষণ ও দূরদর্শী প্রধানমন্ত্রী হিসেবে অভিহিত করে বলেন, আমরা ইরানের সব মানুষ আপনাকে ভালোবাসি।

প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব মো. নজিবুর রহমান এবং প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব সাজ্জাদুল হাসান এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

প্রধানমন্ত্রী জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে অফিস করবেন আজ : একাদশ সংসদের প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব গ্রহণের পর আজ প্রথমবার জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে অফিস করবেন শেখ হাসিনা। আরও পাঁচ বিভাগ ও মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে এই মন্ত্রণালয়টিও রয়েছে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্বে।

জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বরণ করে নিতে সম্পূর্ণ প্রস্তুত জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। এরই মধ্যে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীর রুমসহ প্রতিটি কক্ষ ও বারান্দা ঘষামাঝা করে পরিষ্কার করা হয়েছে।

আজ সকালে প্রধানমন্ত্রীকে তার মন্ত্রণালয়ে স্বাগত জানাবেন জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মো. ফরহাদ হোসেন ও সচিব ফয়েজ আহম্মদসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। অফিস করার পাশাপাশি জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সঙ্গে মতবিনিময় করবেন

। সেখানে কর্মকর্তাদের পদোন্নতিসহ বিভিন্ন বিষয়ের গুরুত্বপূর্ণ ফাইল, প্রকল্প ও ১০০ দিনের কর্মসূচির বিষয়গুলো নিয়ে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনা করবেন প্রধানমন্ত্রী। এ সময় এসব বিষয়ে সিদ্ধান্ত ও দিকনির্দেশনাও দেবেন তিনি।

মন্ত্রণালয় আরও বলছে, নিজের মন্ত্রণালয় ও বিভাগ ছাড়াও পর্যায়ক্রমে প্রতিটি মন্ত্রণালয়ই পরিদর্শন করবেন শেখ হাসিনা। এবার সরকার দায়িত্ব গ্রহণের পর প্রতিটি মন্ত্রণালয় ১০০ দিনের কর্মসূচি ঘোষণা করছে। সেসব কর্মসূচিসহ মন্ত্রণালয়ের অন্যান্য কার্যক্রমের খোঁজখবরও নেবেন তিনি।

এদিকে প্রধানমন্ত্রীর আগমন উপলক্ষে সচিবালয় এলাকায় নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হবে। এরই মধ্যে মোতায়েন করা হয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বাড়তি সদস্য। প্রধানমন্ত্রী জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে থাকার সময়ে দর্শনার্থীদের প্রবেশও সীমিত থাকবে।


    পাবনায় নামাজের সময়সূচি
    ওয়াক্তসময়
    সুবহে সাদিকভোর ০৪:১০
    সূর্যোদয়ভোর ০৫:৩১
    যোহরদুপুর ১১:৫৭
    আছরবিকাল ১৬:৩১
    মাগরিবসন্ধ্যা ১৮:২৩
    এশা রাত ১৯:৫৩
© All rights reserved 2019 newspabna.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!