সোমবার, ২২ জুলাই ২০১৯, ০১:৪১ অপরাহ্ন

যুব এশিয়া কাপেও ভারত চ্যাম্পিয়ন

বাংলাদেশ দলকে ৩ উইকেটে হারিয়ে এশিয়া কাপের শিরোপা জিতে নিয়েছিল রোহিত শর্মার নেতৃত্বাধীন ভারতীয় ক্রিকেট দল। এক সপ্তাহ ব্যবধানে শ্রীলংকাকে ১৪৪ রানে হারিয়ে যুব এশিয়া কাপের শিরোপাও নিজেদের করে নিয়েছে ভারত।

রোববার আগে ব্যাট করে ৩ উইকেটে ৩০৪ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর গড়ে ভারত। টার্গেট তাড়া করতে নেমে ৩৮.৪ ওভারে ১৬০ রানেই অলআউট হয়ে যায় শ্রীলংকা। ১৪৪ রানের বিশাল ব্যবধানে জয় লাভ করে ভারত।

এই জয়ের মধ্য দিয়ে এশিয়া কাপের সাত আসরে পাঁচবার একক চ্যাম্পিয়ন হল ভারত। তবে ২০১২ সালের তৃতীয় আসরে পাকিস্তানের সঙ্গে যৌথভাবে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল তারা।

আবারও ফাইনালে এসে হতাশ করল শ্রীলংকা। অনূর্ধ্ব-১৯ এশিয়া কাপের সপ্তম আসরের মধ্যে এনিয়ে চারবার ফাইনালে ভারতের বিপক্ষে হেরে গেল শ্রীলংকা। আগের তিন ফাইনালে হেরে যাওয়া দলটি এবারও পারেনি সেই হারের আক্ষেপ ঘোচাতে।

১৯৮৯ সালে বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত যুব এশিয়া কাপের প্রথম আসরের ফাইনালে শ্রীলংকাকে ৭৯ রানে হারিয়ে শিরোপা নিজেদের করে নেয় ভারত। এরপর ২০০৩ সালে ফের ফাইনালে ভারতের কাছেই ৮ উইকেটে হেরে ট্রফি হাতছাড়া করেছিল লংকানরা।

এরপর ২০১২, ২০১৪ এবং সবশেষ ২০১৭ সালের যুব এশিয়া কাপের ফাইনালের আগেই বিদায় নেয় শ্রীলংকা। তবে মাঝে ২০১৬ সালে ফাইনালে খেলেও সেই ভারতের কাছেই ৪০ রানে হেরে যায় লংকানরা।

রোববার মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস জিতে প্রথমে ব্যাট করে ভারত। উদ্বোধনীতে ১২১ রানের জুটি গড়ে দলকে চ্যালেঞ্জিং স্কোর গড়ার পথ সহজ করে দেন দুই ওপেনার যশসভী জয়সওয়াল ও অনুজ রাওয়াত।

৭৯ বলে চারটি চার ও তিন ছক্কায় ৫৭ রান করে ফেরেন রাওয়াত। ১১৩ বল খেলে আট চার ও এক ছক্কায় ৮৫ রান করেন জয়সওয়াল। ৩১ রান করে ফেরেন পাদিকল।

এরপর চতুর্থ উইকেটে আয়ুস বদনিকে সঙ্গে নিয়ে অবিচ্ছিন্ন ১১০ রানের জুটি গড়েন অধিনায়ক সিমরান সিং। মাত্র ৩৭ বল খেলে তিন চার ও চারটি ছক্কার সাহায্যে ৬৫ রান করেন সিমরান। ২৮ বল খেলে দুই চার ও পাঁচটি ছক্কায় ৫২ রান করেন বদনি।

রাওয়াত, জয়সওয়াল সিমরান এবং বদনির ফিফটিতে ভর করে ৩ উইকেটে ৩০৪ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর গড়ে ভারত।

টার্গেট তাড়া করতে নেমে হারশ ত্যাগীর ঘূর্ণি বলে বিভ্রান্ত হয়ে নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারিয়ে ম্যাচ থেকে কার্যত ছিটকে যায় শ্রীলংকা। ব্যাটিং ব্যর্থতার কারণে শেষ পর্যন্ত ফাইনালের মতো গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে ৩৮.৪ ওভারে ১৬০ রানেই অলআউট হয়ে যায় শ্রীলংকা।

দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৪৯ রান করেন ওপেনার ফারনান্দো। এছাড়া ৪৮ রান করেন নবোদ পারনাভিথন। ৩১ রান করেন পাসিন্দু সোরিয়াবন্দর। ১২ রান করেন অধিনায়ক নিপুন ধননজয়া। বাকি ৭ জন ব্যাটসম্যান দুই অঙ্কের ফিগার রান করতে না পারায় পরাজয় এড়ানো সম্ভব হয়নি।

ভারতের হয়ে অফ স্পিনার হারশ ত্যাগী ১০ ওভারে মাত্র ৩৮ রান খরচায় শিকার করেন ৬ উইকেট।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

ভারতীয় যুব দল: ৫০ ওভারে ৩০৪/৩ (জয়সওয়াল ৮৫, সিমরন ৬৫*, রাওয়াত ৫৭, বদনি ৫২*)।

শ্রীলংকা যুব দল: ৩৮.৪ ওভারে ১৬০/১০ (ফারনান্দো ৪৯, পারনাভিথন ৪৮, সোরিয়াবন্দর ৩১, ধননজয়া ১২; হারশ ত্যাগী ৬/৩৮)।

ফল: ভারত ১৪৪ রানে জয়ী।

ম্যাচসেরা: হারশ ত্যাগী (ভারত)।


    পাবনায় নামাজের সময়সূচি
    ওয়াক্তসময়
    সুবহে সাদিকভোর ০৩:৫৬
    সূর্যোদয়ভোর ০৫:২৩
    যোহরদুপুর ১২:০৫
    আছরবিকাল ১৬:৪৪
    মাগরিবসন্ধ্যা ১৮:৪৬
    এশা রাত ২০:১৬
© All rights reserved 2019 newspabna.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!