বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০১৯, ০৯:৩৮ অপরাহ্ন

রাজশাহীতে শেষ হলো ২ দিনব্যাপী কবি জীবনানন্দ কবিতা মেলা

রাজশাহীতে দুই দিনব্যাপী কবি জীবনানন্দ কবিতা মেলা শেষ হয়েছে। রাজশাহীর কবিকুঞ্জ’র আয়োজনে শনিবার নগরীর শাহমখদুম কলেজে মেলার সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন রাজশাহী সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। এতে সভাপতিত্ব করেন কবিকুঞ্জের সভাপতি রুহুল আমিন প্রামাণিক।

সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, ‘সংস্কৃতি চর্চা আদিযুগ থেকে আমাদের দেশে প্রচলিত ছিল, আজো আছে। তবে পৃষ্ঠপোষকতার অভাবে সংস্কৃতি চর্চার অগ্রগতি হচ্ছে না। আমরা ইতিহাসের দিকে তাকালে দেখতে পারি, রাজা-বাদশারা তাদের রাজসভায় কবি, সাহিত্যিক, পণ্ডিত, চিকিৎসক রাখতেন। তাদের সংস্কৃতি চর্চার জন্য অনুপ্রেরণা দিতেন। এসময় নীরব সংস্কৃতি চর্চা ছিল। তারা নীরবে সাধনা করতেন। তাদের এই সাধনা আমাদের সংস্কৃতি তথা বাঙালিয়ানায় পরিণত করেছেন। নরপশু থেকে তৈরি করেছে মানুষ। তারাই আমাদের বেঁচে থাকার খোরাক জুগিয়েছেন। মানুষের কাছে সংস্কৃতিকে গ্রহণযোগ্য করেছেন। তাই আমরা এ যুগের কবি-সাহিত্যিকদের পৃষ্ঠপোষকতার মাধ্যমে নতুন কিছু সৃষ্টির জন্য উদ্ধুদ্ধ করতে পারি।’

রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মুক্তিযুদ্ধের কথা স্মরণ করে বলেন, ‘৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধ আমাদের সব কিছু ধ্বংস করেছে ঠিকই কিন্তু আমাদের মধ্যে বাঙালিয়ানা বোধটা আরও দৃঢ় করে দিয়েছে। আমরা যে বাঙালি জাতি এটা মনে প্রাণে ধারণ করার অনুপ্রেরণা দিয়েছে। পাকিস্তানিরা আমাদের রবীন্দ্র সংগীত গাইতে দিত না। তারা তাদের জাতীয় সংগীত জোর করে আমাদের ওপর চাপিয়ে দিতে চেয়েছিল। কিন্তু বঙ্গবন্ধু এবং এদেশের মানুষের বাঙালিয়ানার কাছে তারা পরাজিত হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, আমাদের দেশে এখনও সংস্কৃতিপ্রেমী লোক আছেন। তা দেশনেত্রী শেখ হাসিনাকে দেখলে বোঝা যায়। তিনি একাধারে যেমন সংস্কৃতিপ্রেমী অন্যদিকে গুণীজনকে পৃষ্ঠপোষকতায় পারদর্শী। তিনি ক্রিকেটার, ফুটবলার, কবি, সাহিত্যিকসহ সকলকে সম্মান করতে জানেন। তাই আমাদের সকলকে কবি সাহিত্যিকদের পৃষ্ঠপোষকতা করতে হবে। তাহলে শুধুমাত্র আমাদের বাহ্যিক দিকের পরিবর্তন হবে না, সাথে মনুষ্যত্বের পরিবর্তন হবে।’

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন শিক্ষাবিদ ও কবি জুলফিকার মতিন, কবি তসিকুল ইসলাম রাজা, কবি মাহবুবুর রহমান খান বাদশা, কবি সরোজ দেব, বাংলাদেশ গ্রাম থিয়েটারের বিভাগীয় সমন্বয়ক নাট্যকার কামরুলতাহ সরকার কামা, দিলতীর কবি প্রাণজি বসাক প্রমুখ।


    পাবনায় নামাজের সময়সূচি
    ওয়াক্তসময়
    সুবহে সাদিকভোর ০৪:১৫
    সূর্যোদয়ভোর ০৫:৩৫
    যোহরদুপুর ১১:৫৮
    আছরবিকাল ১৬:৩১
    মাগরিবসন্ধ্যা ১৮:২১
    এশা রাত ১৯:৫১
© All rights reserved 2019 newspabna.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!