মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০১৯, ১২:৫১ পূর্বাহ্ন

সংসদে এসে কার্যকর ভূমিকা রাখতে বিএনপির প্রতি আহ্বান

বিএনপিকে সংসদে এসে কার্যকর ভূমিকা রাখার আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। একই সঙ্গে প্রধান বিরোধী দল জাতীয় পার্টি আওয়ামী লীগের নতুন সরকারের ভুলত্রুটি ধরিয়ে দেবে বলেও প্রত্যাশা করেন তিনি। এ ছাড়া সুনির্দিষ্ট পাঁচ ব্যাধি- দুর্নীতি, মাদক, ভেজাল, জঙ্গি ও সন্ত্রাসবিরোধী অভিযান অব্যাহত রাখার দৃঢ়প্রত্যয় ঘোষণা করেছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী।

আজ বুধবার শুরু হচ্ছে একাদশ জাতীয় সংসদের অধিবেশন। তার আগে সমকালকে দেওয়া এক বিশেষ সাক্ষাৎকারে ওবায়দুল কাদের আরও বলেছেন, বিএনপি গণতান্ত্রিক সৌন্দর্যের প্রতি অসম্মান দেখাচ্ছে। পরাজয়ের যন্ত্রণায় বিদ্ধ হয়ে প্রলাপ বকছে তারা। অথচ তারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আমন্ত্রণে সাড়া দিয়ে আগামী ২ ফেব্রুয়ারি গণভবনে গিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলতে পারতেন।

ওবায়দুল কাদের বলেছেন, একমাত্র বিএনপি ছাড়া আর কেউই একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ বলছে না। দেশ-বিদেশের সবাই এই নির্বাচনকে ইতিবাচক হিসেবে গ্রহণ করেছে। এরই মধ্যে ভারত, চীন, যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, মধ্যপ্রাচ্য, ইউরোপীয় ইউনিয়ন, জার্মানিসহ বিভিন্ন দেশের পক্ষ থেকে বর্তমান সরকারকে শুভেচ্ছা জানানো হয়েছে। বিভিন্ন দেশের সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধানরা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জ্যেষ্ঠ কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অভিনন্দিত করছেন। অথচ জনগণ প্রত্যাখ্যাত বিএনপি পরাজয়ের যন্ত্রণায় বিদ্ধ হয়ে নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করার অপপ্রয়াস চালাচ্ছে। অথচ সর্বস্তরের জনগণ স্বতঃস্ম্ফূর্তভাবে গত নির্বাচনে ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছে। ওই নির্বাচন দেশ-বিদেশে ব্যাপক প্রশংসা পেয়েছে।

মির্জা ফখরুল কি পক্ষপাতদুষ্ট নির্বাচনে জয় পেয়েছেন : বিএনপিকে সংসদে আসার আহ্বান জানিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেছেন, বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর নির্বাচিত হয়েছেন। তাহলে কি তিনি পক্ষপাতদুষ্ট নির্বাচনে জয় পেয়েছেন? তিনি কীভাবে গত নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ বলছেন? আসলে বিএনপির সংসদে না আসার মানে হলো- তারা জনগণকে অসম্মান করছে। আর সংসদে বিএনপি সদস্যদের সংখ্যার বিষয়টি বিবেচনায় না আনার কথা প্রধানমন্ত্রীই জানিয়েছেন। সেই সঙ্গে বিএনপি যদি যুক্তিসঙ্গত কোনো বিষয় সংসদে উপস্থাপন করে, সেটা সক্রিয়ভাবেই বিবেচনা করার কথা বলেছেন প্রধানমন্ত্রী।

বিএনপির অংশগ্রহণে প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ হবে উপজেলা নির্বাচন :উপজেলা নির্বাচনে অংশগ্রহণের জন্য বিএনপির নীতিনির্ধারক নেতাদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে মুক্তিযোদ্ধা ওবায়দুল কাদের বলেছেন, নিশ্চয়ই বিএনপি তাদের সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা করবে। আর তাদের অংশগ্রহণের মধ্য দিয়ে উপজেলা নির্বাচন প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ হবে। কিন্তু বিএনপি নির্বাচনে না এলে অন্য রাজনৈতিক দলগুলো তো আর বসে থাকবে না। তারা নির্বাচনে আসবে।

উপজেলা চেয়ারম্যান পদের প্রার্থীরা এবারই প্রথম দলীয় প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে লড়বেন। সে ক্ষেত্রে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মনোনয়ন প্রতিযোগিতা তীব্র হবে বলে মনে করা হচ্ছে। এমনকি বেশিরভাগ উপজেলায় দলের একাধিক প্রার্থীর মুখোমুখি অবস্থান এবং এ নিয়ে গৃহদাহের আশঙ্কা ঘনীভূত হচ্ছে। এসব বিষয়ে দলের সাধারণ সম্পাদক স্পষ্ট করে বলেছেন, আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের কোনো অবস্থাতেই নৌকা প্রতীকের প্রার্থীদের বিরুদ্ধে যাওয়ার সুযোগ নেই। এ ক্ষেত্রে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গ করলে সাংগঠনিক শাস্তি পেতেই হবে।

গণতান্ত্রিক সৌন্দর্যের প্রতি অসম্মান দেখাচ্ছে বিএনপি :প্রধানমন্ত্রী আগামী ২ ফেব্রুয়ারি গণভবনে বিএনপিসহ ৭৫টি রাজনৈতিক দলের নীতিনির্ধারক নেতাদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করবেন। তবে বিএনপির শীর্ষ নেতারা প্রধানমন্ত্রীর আমন্ত্রণে সাড়া দেবেন না বলে এরই মধ্যে জানিয়ে দিয়েছেন। এ ব্যাপারে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেছেন, বিএনপির নেতারা কেন প্রধানমন্ত্রীর আমন্ত্রণে সাড়া দেবেন না, সেটা নিয়ে কোনো যুক্তি দাঁড় করাতে পারছেন না। আসলে নির্বাচনে পরাজয়ের বেদনা থেকে তারা আবোলতাবোল অনেক কিছুই করছে। গণতান্ত্রিক সৌন্দর্যের প্রতি অসম্মান দেখাচ্ছে। অথচ প্রধানমন্ত্রীর আমন্ত্রণে সাড়া দিয়ে বিএনপি নেতারা গণভবনে গিয়ে কিছু কথা বলতে পারতেন। কিন্তু শুভেচ্ছা বিনিময়েও তাদের অসন্তুষ্টি, অনীহা। এর মানে তারা তাদের নেতিবাচক রাজনীতি থেকে বেরোতে পারেনি। ওবায়দুল কাদের সংসদে যোগ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়ায় গণফোরামের দুই নেতা মৌলভীবাজার-২ আসনের সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহমেদ ও সিলেট-২ আসনের মোকাব্বির খানকে স্বাগত জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, এটাই গণতান্ত্রিক মানসিকতা।

দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স :দুই দফায় ছাত্রলীগ সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন ওবায়দুল কাদের। সাবেক সভাপতিদের মধ্যে এমন কৃতিত্ব আর কারোর নেই। কারাবন্দি থাকা অবস্থায় একবার তিনি ছাত্রলীগের সভাপতি নির্বাচিত হয়েছিলেন। সরকারের অবস্থান তুলে ধরে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সবসময়ই দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স অবস্থানে রয়েছেন। তার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ সরকার দুর্নীতি ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে অবস্থান নিতে গিয়ে নিজেদের মধ্যেও আপস করেনি। খুনের মামলায় দশম সংসদের আওয়ামী লীগ দলীয় এমপিকে জেলে নেওয়া হয়েছে। দুর্নীতির দায়ে আওয়ামী লীগের এমপি দণ্ডিত হয়েছেন। এ কারণে কক্সবাজারের টেকনাফে এমপি পদে দলীয় প্রার্থী বদল করা হয়েছে। সিরাজগঞ্জে সমকালের সাংবাদিক হত্যা মামলায় আওয়ামী লীগের মেয়র কারাগারে রয়েছেন। আওয়ামী লীগ সবসময়ই অপরাধকে অপরাধ হিসেবেই দেখেছে। অপরাধী দলীয় লোক হলেও ছাড় পায়নি, আগামীতেও পাবে না।

মাদক, ভেজাল, জঙ্গি ও সন্ত্রাসবিরোধী অভিযান চলবে :ওবায়দুল কাদের বলেছেন, জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়ে আবার রাষ্ট্রীয় দায়িত্বে আসায় দুর্নীতিবিরোধী অভিযান আরও জোরদার করেছে সরকার। এটা লোক দেখানো কিছু নয়। তা ছাড়া দুর্নীতির বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান আওয়ামী লীগের নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি। তা আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহারেই রয়েছে। তাই দুর্নীতির পাশাপাশি মাদক, ভেজাল, জঙ্গি ও সন্ত্রাসবিরোধী অভিযান অব্যাহত থাকবে। এ অভিযান আরও জোরদার করা হবে। সরকার শতভাগ সুশাসন নিশ্চিত করার জন্য দুর্নীতি, মাদক, ভেজাল এবং সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে আরও কঠোর অবস্থানে যাবে। এ ক্ষেত্রে নূ্যনতম আপস কিংবা নমনীয়তা দেখানো হবে না। যে কোনো মূল্যের বিনিময়ে হলেও সব ধরনের অপরাধবিরোধী অভিযান চলবে।

মন্ত্রিসভায় আসতে পারেন ১৪ দলের নেতারা :সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ছাড়া আওয়ামী লীগের আর কোনো নেতার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন চারটি সরকারের মন্ত্রিসভায় থাকার সৌভাগ্য হয়নি। চার দফায় মন্ত্রী হয়েছেন তিনি। মন্ত্রিসভার আকার বাড়ানো প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, মন্ত্রিসভায় সংযোজন, সম্প্রসারণ কিংবা বিয়োজনের এখতিয়ার শুধু প্রধানমন্ত্রীর। আপাতত মন্ত্রিসভায় বড় ধরনের সম্প্রসারণের সম্ভাবনা না থাকলেও সংরক্ষিত নারী আসনে নির্বাচনের পর মন্ত্রিসভায় নতুন মুখ আসতে পারে। সে ক্ষেত্রে ১৪ দলের কোনো নেতা আসবেন কি-না, সেটা আলোচনা করে ঠিক করা হবে। ১৪ দলের নেতারা মন্ত্রিসভায় আসতে পারেন। তবে সেটা এখন নয়। মনে রাখতে হবে, ১৪ দল আওয়ামী লীগের দুঃসময়ের জোট। সুসময়ে আওয়ামী লীগ তাদের পরিত্যাগ করবে, এটা হয় না। সংশয়, সন্দেহ, ক্ষোভ, অসন্তোষ ও যন্ত্রণা থাকতেই পারে। এসব দূর করার জন্য প্রয়োজনে আলোচনাও হতে পারে। আলোচনার দরজা তো খোলাই রয়েছে। আর ১৪ দলের শরিকরা সরকারে থাকবে, নাকি বিরোধী দলে যাবে- এ সিদ্ধান্ত আলোচনার ভিত্তিতেই নেওয়া হবে।

এক হাজার ৫০৮ জন নারীর প্রত্যাশা :একাদশ সংসদে আওয়ামী লীগের সংরক্ষিত নারী এমপির সংখ্যা হবে ৪৩। এ জন্য দলের মনোনয়ন প্রত্যাশা করছেন এক হাজার ৫০৮ জন নারী। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাদের বিষয়ে বিশদ খোঁজখবর নিচ্ছেন জানিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, সংরক্ষিত নারী আসনে প্রার্থী নির্বাচনের বেলায় আওয়ামী লীগের ত্যাগী ও পরীক্ষিত নেতাকর্মীদের অগ্রাধিকার দেওয়া হবে। এ ক্ষেত্রে নতুনরা প্রাধান্য পাবেন। আর নতুনদের প্রাধান্য দেওয়া হলে স্বাভাবিকভাবেই পুরনোদের কেউ কেউ বাদ পড়বেন। গত দুই সংসদে সংরক্ষিত নারী এমপিদের মধ্যে বেশিরভাগই বাদ পড়বেন।

সৎ, সাহসী ও ভালো মানুষ শেখ হাসিনা :আগামী দিনের রাজনীতিতে আওয়ামী লীগের নতুন নেতৃত্বের প্রসঙ্গে দলের সাধারণ সম্পাদক বলেছেন, জাতি পঁচাত্তর-পরবর্তী বাংলাদেশের রাজনীতিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মতো যোগ্য নেতৃত্ব আর দেখেনি। তার নেতৃত্বেই গোটা জাতি সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। একের পর এক উন্নয়নের সোপান তৈরি হচ্ছে। তা ছাড়া প্রধানমন্ত্রী ব্যক্তিজীবনে বাস্তবিক অর্থেই একজন ভালো মানুষ। অসম্ভব রকমের সৎ এবং দারুণ সাহসী। একজন মানুষ হিসেবে অসাধারণ। শেখ হাসিনা এখন আর রাজনীতিক নন, তিনি রাষ্ট্রনায়ক। তিনি এখন আর দলীয় নেতা নন, জাতীয় নেতা। নানাভাবে এসবের প্রমাণও হয়েছে। তিনি সবসময়ই তরুণদের প্রাধান্য দেন। এরই ধারাবাহিকতায় তিনি নবীন-প্রবীণের সমন্বয়ে নতুন মন্ত্রিসভা সাজিয়েছেন। গত নির্বাচনে নবীন-প্রবীণের মিশেলে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মনোনয়নের মধ্য দিয়ে নিজের প্রজ্ঞা, দক্ষতা ও নান্দনিকতার উজ্জ্বল প্রমাণ রেখেছেন।

আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলনেও এসব কিছুর ইতিবাচক প্রভাব পড়বে বলে মনে করছেন ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, নতুন নেতৃত্ব নির্বাচনের বেলায় কাউন্সিলরদের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ওই কাউন্সিলরদের মতামত নিয়ে আওয়ামী লীগকে নতুন করে ঢেলে সাজাবেন। এর মধ্য দিয়ে আওয়ামী লীগে আরেকটি নতুন মাত্রা যোগ হবে।

আওয়ামী লীগের আগে যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, শ্রমিক লীগ ও কৃষক লীগের সম্মেলন :আনুষ্ঠানিক প্রস্তুতি কিংবা কোনো ধরনের তোড়জোড় শুরু না হলেও এ বছরের অক্টোবরে আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলন হবে বলে জানিয়েছেন দলের সাধারণ সম্পাদক। তিনি বলেছেন, বেশিরভাগ সাংগঠনিক জেলা ও উপজেলার মেয়াদ ফুরিয়ে গেছে। জাতীয় সম্মেলনের আগে ওই সব জেলা-উপজেলার সম্মেলন করতে হবে। দলের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম কার্যনির্বাহী সংসদের পরবর্তী বৈঠকে এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। সেই সঙ্গে আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলনের আগে যুবলীগের কংগ্রেস, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, জাতীয় শ্রমিক লীগ ও কৃষক লীগের সম্মেলন আয়োজন নিয়ে আলোচনা করা হবে।

প্রধানমন্ত্রীর আগ্রহ থাকাতেই আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক :গত সম্মেলনের অভিজ্ঞতা তুলে ধরে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেছেন, প্রধানমন্ত্রীর আগ্রহ থাকাতেই তিনি দলের সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন। শেখ হাসিনার সম্মতি না থাকলে দলের কোনো স্তরের নেতাকর্মীই তাকে সাধারণ সম্পাদক হিসেবে প্রত্যাশা করতেন না। পরবর্তী সময়ে তিনি ইউনিয়ন পরিষদ, পৌরসভা, সিটি করপোরেশন ও উপজেলা থেকে শুরু করে গত সংসদ নির্বাচনে সাংগঠনিক দক্ষতার প্রমাণ দিয়েছেন। পঁচাত্তর-পরবর্তী আওয়ামী লীগ ঘরানার রাজনীতিতে বর্তমান সময়ের মতো ঐক্য আর কখনোই ছিল না। গত নির্বাচনে ২৯৯টি আসনের কোথাও বিদ্রোহের ছিটেফোঁটাও দেখা যায়নি।

সরকারের ভুলত্রুটি ধরিয়ে দেবে জাতীয় পার্টি :নির্বাচনের পর বিরোধী দলে থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে জাতীয় পার্টি। আর প্রধান বিরোধী দল জাতীয় পার্টির কাছ থেকে সরকারের গঠনমূলক সমালোচনা প্রত্যাশা করছেন ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, সরকারের ভুলত্রুটি ধরিয়ে দেবে জাতীয় পার্টি। একই সঙ্গে তারা সংসদে দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করবে বলে আশা করি।

সুশাসন প্রতিষ্ঠায় নেতাকর্মীদের সর্বাত্মক সহায়তা প্রত্যাশা :আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেছেন, নির্বাচনী অঙ্গীকার কিংবা প্রতিশ্রুতিগুলো অক্ষরে অক্ষরে পালন করা হবে। এ জন্য দলের নেতাকর্মীদের অতীতের ভুল থেকে শিক্ষা নিতে হবে। জনগণের সঙ্গে আরও ভালো ব্যবহার করতে হবে। শুধু উন্নয়ন করলেই হবে না। আচার-আচরণে পরিবর্তন এনে আরও গ্রহণযোগ্য হতে হবে। সুশাসন প্রতিষ্ঠায় আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের সর্বাত্মক সহায়তা প্রত্যাশা করছেন নোয়াখালী-৫ আসন থেকে কয়েক দফায় নির্বাচিত এই সংসদ সদস্য।


    পাবনায় নামাজের সময়সূচি
    ওয়াক্তসময়
    সুবহে সাদিকভোর ০৪:১০
    সূর্যোদয়ভোর ০৫:৩১
    যোহরদুপুর ১১:৫৭
    আছরবিকাল ১৬:৩১
    মাগরিবসন্ধ্যা ১৮:২৩
    এশা রাত ১৯:৫৩
© All rights reserved 2019 newspabna.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!