সোমবার, ১৭ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৫:৪৫ অপরাহ্ন

স্পিনেই হোয়াইটওয়াশের লক্ষ্য উইন্ডিজকে

মিরপুরে ঠিক ১৮ দিন আগে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে দ্বিতীয় টেস্টে মাঠে নামার সময় বাংলাদেশের চিত্রটা ছিল ভিন্ন। সিলেট থেকে বিধ্বস্ত হয়ে দ্বিতীয় টেস্টে নামার প্রস্তুতি নিচ্ছিল বাংলাদেশ।

পাহাড় সমান চাপ সামলে তাতে উতরেও যান মাহমুদউল্লাহরা। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজে সাকিব আল হাসান ফিরেছেন। এবার ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে মিরপুরে দ্বিতীয় ও শেষ টেস্টে নামার আগে বাংলাদেশের দৃশ্যপটও পাল্টেছে।

চট্টগ্রামে সফরকারীদের স্পিন বিষে নীল করেছেন সাকিব-তাইজুলরা। মাঠে নামার আগে আত্মবিশ্বাসে টগবগে বাংলাদেশ। অন্তত সিরিজ আর হাতছাড়া হচ্ছে না। বরং সাকিবের ভাষায়, জিতলে স্পেশাল হবে বাংলাদেশের জন্য।

চট্টগ্রামের মতো মিরপুরেও ক্যারিবীয়দের জন্য স্পিন ফাঁদ পাতা হয়েছে। চার স্পিনারের ঘূর্ণি পাকে ফেলে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দ্বিতীয়বার ২-০তে সিরিজ জয় করতে চায় বাংলাদেশ। হোয়াইটওয়াশ করতে চায় ক্যারিবীয়দের।
উইকেট কেমন হবে, আগে থেকে অনুমান করে রেখেছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। তারপরও উইকেট দেখতে যাওয়ার আগে কৌতূহলী দেখাল ক্যারিবীয় অধিনায়ক ক্রেগ ব্রাফেটকে। উইকেট দেখে অবশ্য হতাশ হননি তিনি।

আশা করছেন এ উইকেটেও পেস বোলাররা কিছু করতে পারবেন। বাংলাদেশ দলের কোচ স্টিভ রোডসকে নিয়ে উইকেট কেমন দেখলেন সরাসরি জানালেন না সাকিব।

তার ধারণা, মিরপুরের উইকেটের যে ঐতিহ্য তাতে পেসারদের জন্য কিছুটা সহায়তা সব সময়ই থাকে। তাতে বাংলাদেশের একাদশে পেস বোলার এক থেকে দুই হওয়ার সম্ভাবনা নেই।

আর ভেন্যুর কিউরেটর শ্রীলংকার গামিনি সিলভা সব সময় উইকেট অননুমেয় করে রাখেন! সাকিবের নেতৃত্বেই ২০০৯ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজে বাংলাদেশ ২-০ তে সিরিজ জিতেছিল। আবারও সেই সুযোগ সাকিবদের সামনে। বাংলাদেশ অধিনায়ক বলেন, ‘সিরিজটা বাংলাদেশের জন্য স্পেশাল হবে। যদি আমরা ২-০ তে জিততে পারি। এজন্য যা কিছু করা দরকার, যেভাবে প্রস্তুতি নেয়া দরকার, আমরা সেভাবেই তৈরি আছি। সেটা না হলে অবশ্যই দ্বিতীয় ম্যাচ ড্র করে সিরিজ ১-০তে জয়ের চেষ্টা করব।’
ইমরুল কায়েস দ্বিতীয় টেস্টের দলে না থাকায় একাদশে একটি পরিবর্তন হয়েই ছিল। সৌম্য সরকারের সঙ্গে মিরপুরে ওপেনিংয়ে নামবেন সাদমান ইসলাম। অভিষেকের অপেক্ষায় থাকা সাদমানকে নিয়ে যথেষ্ট আশাবাদী টিম ম্যানেজমেন্ট। তবে মুশফিকুর রহিমের ডান হাতের বৃদ্ধাঙ্গুলের চোট ওলট-পালট করে ফেলেছে। উইকেটকিপার হিসেবে ব্যাকআপে রাখার জন্য দলে নেয়া হয়েছে রানখরায় ভোগা লিটন দাসকে।

দলের একটি সূত্র জানিয়েছে, মুশফিক খেলবেন শুধু ব্যাটসম্যান হিসেবে। কিপার হিসেবে সুযোগ পেতে যাচ্ছেন লিটন। তিনি খেললে একাদশের বাইরে যেতে হবে মোহাম্মদ মিঠুনকে। মিঠুন ঘরোয়া ক্রিকেটের লংগার ভার্সনে কিপিং করলেও আন্তর্জাতিক ম্যাচে তাকে নিয়ে ভরসা পাচ্ছে না টিম ম্যানেজমেন্ট। পরিবর্তন এ দুটিই। এদিকে বাংলাদেশের দ্বিতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে টেস্টে চার হাজার রানের জন্য মুশফিকুর রহিমের প্রয়োজন আর মাত্র আট রান।

বোলিং আক্রমণের পরিকল্পনা থাকছে চার স্পিনার নিয়েই। অফ-স্পিনার মেহেদী হাসান মিরাজের সঙ্গে নাঈম হাসান এবং দুই বাঁ-হাতি সাকিব ও তাইজুল ইসলাম। তাইজুলের সামনে রেকর্ডের হাতছানি। আর মাত্র ছয় উইকেট পেলেই বাংলাদেশের তৃতীয় বোলার হিসেবে একশ’ উইকেটের মালিক হবেন তিনি।

বাংলাদেশের দ্রুততম বোলার হিসেবে এ মাইলফলকে স্পর্শ করবেন তাইজুল। এছাড়া তার সামনে বছরের সর্বোচ্চ উইকেট নেয়ার হাতছানিও রয়েছে। আগের ম্যাচে অভিষেক হওয়া নাঈম হাসান পাঁচ উইকেট নিয়ে এরইমধ্যে একটি রেকর্ড গড়েছেন। সবচেয়ে কম বয়সে অভিষেকে পাঁচ উইকেট নিয়েছেন তিনি। সব মিলে চট্টগ্রাম টেস্টে সর্বশেষ দশ বছরে প্রথমবার স্পিনে ২০ উইকেট হারিয়েছে ক্যারিবীয়রা।

ক্যারিবীয় অধিনায়ক ক্রেগ ব্রাফেট বলেন, ‘অবশ্যই এখানে একটা সামঞ্জস্য (স্পিন ও পেস বোলিং) থাকবে। প্রথম টেস্টে স্পিন সবচেয়ে বেশি ক্ষতি করেছে আমাদের। এতে প্রমাণ হয় না যে পেসাররা উইকেট নিতে পারবে না। ভালো কিছু করার ক্ষেত্রে আমি পেস এবং স্পিন দুটোর ওপরই আস্থা রাখছি।’ প্রথম টেস্টে বাংলাদেশ মাত্র তিনদিনেই জয় পেয়েছে। মিরপুরে ব্যাটসম্যানরা কিছুটা সহায়তা পেয়ে থাকেন। তাই পাঁচদিনই খেলার কথা ভাবছেন দু’দলেরই অধিনায়ক।


বিজয় নিশান উড়ছে ঐ…

© All rights reserved 2018 newspabna.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!