আটঘরিয়ায় ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে আহত ২০

UP-Election2016033106170000পাবনা: পাবনার আটঘরিয়া উপজেলার মাজপাড়া গ্রামে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী আব্দুল গফুর মিয়ার সমর্থকদের সঙ্গে স্বতন্ত্র প্রার্থী জাহাঙ্গীর হোসেনের সমর্থকদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে উভয়পক্ষের কমপক্ষে ২০ জন আহত হয়েছে।

শুক্রবার (১৫ এপ্রিল) বিকেল ৩টার দিকে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

আহতদের মধ্যে ১০ জনকে আটঘরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনার পর থেকে এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।

মাজপাড়া থেকে কামাল হোসেন জানান, বৃহস্পতিবার (১৪ এপ্রিল) রাত ১১টার দিকে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও মাজপাড়া ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুল গফুর মিয়া নওদাপাড়া মজনুর বাড়ি সংলগ্ন আওয়ামী লীগের অস্থায়ী কার্যালয়ে নির্বাচনী বৈঠক করছিলেন। এ সময় একই ইউনিয়নের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী জাহাঙ্গীর হোসেনসহ তার সমর্থকদের সঙ্গে কথা কাটাকাটি ও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।

এরই জের ধরে শুক্রবার বিকেলে মাজপাড়া গ্রামে উভয়গ্রুপের লোকজন সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। এ সময় উভয়পক্ষের প্রায় ২০ জন আহত হন। আহতদের মধ্যে গুরুতর অবস্থায় নজরুল ইসলাম (৪৫), রাকিবুল (৩৫), জাহিদুল ইসলাম (৩৫), রাজু আহম্মেদ (২৮), হানেফ আলী (৫২), শহিদুল ইসলাম (৩৮), আলম হোসেন (২৬), হায়াত আলী (৪০), মোজাম্মেল হক (৫০) ও সোনাউল্লাহকে (৬৫) আটঘরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুল গফুর মিয়া বলেন, স্বতন্ত্র প্রার্থী জাহাঙ্গীর হোসেনসহ তার সমর্থকেরা অর্তকিত হামলা চালিয়ে আমার সমর্থকদের মারপিট করে এবং অফিসের চেয়ার টেবিল ভাঙচুর করে।

তিনি আরো বলেন, হামলার ঘটনায় বাদী হয়ে আটঘরিয়া থানায় ২৪ জনকে আসামি করে একটি অভিযোগ দাখিল করেছি।

এদিকে হামলার ঘটনা অস্বীকার করে স্বতন্ত্র প্রার্থী জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, তার নির্বাচনী অফিসে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরাই হামলা চালিয়েছে। এ ব্যাপারে পাবনা জেলা প্রশাসক বরাবর একটি স্মারকলিপি দিয়েছেন তিনি।

আটঘরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান জানান, সংঘর্ষ ও হামলার ঘটনায় থানায় পৃথক দু’টি অভিযোগ পেয়েছেন। অভিযোগ তদন্ত সাপেক্ষে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।