ঢাকাশনিবার , ২৩ এপ্রিল ২০২২

আটঘরিয়ায় মামা বেকারিতে নোংরা পরিবেশে তৈরি হচ্ছে খাবার

News Pabna
এপ্রিল ২৩, ২০২২ ১১:০১ অপরাহ্ণ
Link Copied!

 

আটঘরিয়া প্রতিনিধি : পাবনার আটঘরিয়া উপজেলার গোড়রী বাজারে মামা বেকারি কারখানায় নোংরা পরিবেশে তৈরি হচ্ছে বিভিন্ন রকমারি খাবার। কোনো নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে উপজেলার গোড়রী বাজারে একটি টিনের তৈরি ঘরের ভেতরেই তৈরি করা হচ্ছে বিভিন্ন বেকারি পণ্য। আর এই সব খাবার যাচ্ছে পাড়া-মহল্লার বিভিন্ন দোকান থেকে শুরু করে নামিদামি বেকারিতে।

বিক্রি হচ্ছে বিস্কুট, কেক, পাউরুটি সহ নানা বাহারি খাবার। কখনও কি কেউ ভেবে দেখেছেন এই খাবারগুলো কোথায় তৈরি হচ্ছে? কী দিয়ে তৈরি হচ্ছে? এসব খাদ্যপণ্যের মান নিয়ন্ত্রণ ও যাচাই করার দায়িত্বে যারা আছেন তারা তাদের দায়িত্ব কতটা পালন করছেন? এক কথায় না।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, খাবার দেখে বোঝার উপায় নেই এটি কোন বেকারির উৎপাদন। এসব বেকারিতে মানা হয় না নিরাপদ খাদ্য তৈরির কোন নিয়ম। তৈরি করা খাবারে বসছে মশা-মাছি আর পোকা। আবার ধূলা বালি ও শ্রমিকের ঘাম। কারখানায় নেই স্যানিটেশন এবং অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা। এমনকি প্রতিষ্ঠানের সাইনবোর্ড পর্যন্ত নেই।

আশপাশে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে নানা ধরনের তৈরি পণ্য। ডালডা দিয়ে তৈরি করা ক্রিম রাখা পাত্রগুলোতে ঝাঁকে ঝাঁকে মাছি ভনভন করছে। উৎপাদন ও মেয়াদোত্তীর্ণ বাহারি মোড়কে বনরুটি, পাউরুটি, কেক, বিস্কুট, পুডিংসহ বিভিন্ন ধরনের বেকারি সামগ্রী তৈরি করা হচ্ছে।

আটঘরিয়া উপজেলায় এমন আরো প্রতিষ্ঠান আছে যাদের অবস্থাও এমন ধরনের। ভোর রাতে ফ্যাক্টরির ভ্যানে বিভিন্ন এলাকার পাড়া মহল্লায়, অলিগলির জেনারেল স্টোর ও চায়ের দোকানে ওই সব পণ্য পৌঁছে দেন ডেলিভারিম্যানরা।

বিভিন্ন চায়ের স্টলে গিয়ে দেখা যায়, বিকল্প বেকারির মোড়কে একাধিক পলি প্যাকেটে ঝুলছে পারুটি, বাটারবন, কেক, পেটিস, সিঙ্গাড়াসহ অন্যান্য খাদ্যপণ্য।
গোড়রী বাজারের মামা ব্রেড এ্যান্ড বিস্কুট ফ্যাক্টরির মালিক মানিক সরদার ও সুজন আহমেদ জানান, কয়েকদিন যাবত এ কারখানা শুরু করেছেন। তাই পরিবেশ তৈরি করতে একটু সময় লাগবে। তারা আরও বলেন, ট্রেড লাইসেন্স ও সরকারি অনুমোদন নিতে সময়ের প্রয়োজন।