মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর ২০২০, ০৬:৫৩ অপরাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

ইসলাম নিয়ে কটূক্তি: রিমান্ডে তিথি

image_pdfimage_print

ইসলাম ধর্ম ও মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) সম্পর্কে কটূক্তির অভিযোগে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের বহিষ্কৃত শিক্ষার্থী তিথি সরকারকে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় একদিনের রিমান্ড দিয়েছেন আদালত। অন্যদিকে, পল্টন থানায় দায়ের করা মামলায় তিথির স্বামী শিপলু মল্লিকের রিমান্ড নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১২ নভেম্বর) ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট জিয়াউর রহমান এ আদেশ দেন।

এদিন দুই আসামিকে আদালতে হাজির করে তিনদিন করে রিমান্ড আবেদন করে মামলার তদন্ত সংস্থা সিআইডি। তিথি ও তার স্বামীর রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিন আবেদন করেন তাদের আইনজীবী কিশোর মনির।

উভয়পক্ষের শুনানি শেষে আদালত তিথির একদিনের রিমান্ড এবং শিপলুর রিমান্ড ও জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন আদালত।

এর আগে বুধবার রাতে তিথি সরকারকে গ্রেফতারের কথা জানায় পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)।

পরদিন বৃহস্পতিবার সিআইডি কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে ডিআইজি জামিল আহমদ বলেন, গত ২৫ অক্টোবর মিরপুরের পল্লবীর বাসা থেকে বেরিয়ে তিথি প্রেমিক শিপলু মল্লিকের সঙ্গে বাগেরহাটে গিয়ে বিয়ে করেন। এরপর তারা ৯ নভেম্বর ঢাকা ফিরে আসেন। পরে নরসিংদীর ওই বাড়িতে আত্মগোপন করেন তিথি। ৩১ অক্টোবর সিআইডির সাইবার মনিটরিং টিম দেখতে পায়, সিআইডির মালিবাগ কার্যালয়ের চারতলা থেকে তিথি সরকারকে ‘হাত পা-বাঁধা অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে’ বলে একটি মিথ্যা পোস্ট সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করা হয়। এটি ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করে। প্রকৃতপক্ষে সিআইডিতে এরকম কোনো ঘটনা ঘটেনি। এই ঘটনার তদন্তে নেমে গুজব রটনাকারী নিরঞ্জন বড়াল নামের একজনকে রামপুরার বনশ্রী এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়। নিরঞ্জনসহ অজ্ঞাত আরো কয়েকজনের বিরুদ্ধে গত ২ নভেম্বর পল্টন থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে একটি মামলা করা হয়।

সিআইডি কর্মকর্তা জামিল বলেন, তদন্তে জানা যায়, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের তিথি সরকার তার ফেসবুক আইডি ব্যবহার করে বিভিন্ন সময় ধর্মীয় উসকানিমূলক পোস্ট, কমেন্ট ও তথ্য শেয়ার করেন। যার ফলে বিশ্বদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা এর বিরুদ্ধে আন্দোলন ও সমাবেশ করে। ভবিষৎ বিপদ এড়াতে এবং নিজেকে নিরাপদ রাখতে নিজের সংগঠনের (ধর্মীয় একটি সংগঠন) কিছু নেতাকর্মীর পরামর্শে ফেসবুক আইডি হ্যাকড হয়েছে মর্মে গত ২৩ অক্টোবর পল্লবী থানায় একটি জিডি করেন তিথি। তিথি সরকার স্বেচ্ছায় আত্মগোপনে থেকে অপহরণের নাটক সাজিয়েছিলেন। তার ধারণা ছিল এভাবে আত্মগোপনে থেকে নিজেকে লুকিয়ে অপহরণের দায়ভার অন্যর ওপর চাপিয়ে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত সংক্রান্ত ঘটনা থেকে রেহাই পাবেন বা ঘটনা অন্যদিকে ধাবিত হবে।

তিথিকে গ্রেফতারের আগে তার স্বামী শিপলু মল্লিককে বুধবার বেলা পৌনে ১২টার দিকে রাজধানীর কাপ্তানবাজার এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয় বলে জানান তিনি।

তাদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতা এবং ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেয়াসহ অন্যান্য অভিযোগে আরেকটি মামলা করার প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে বলে জানান জামিল আহমদ।

উল্লেখ্য, ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের অভিযোগে গত ২৬ অক্টোবর জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার স্বাক্ষরিত আদেশে তিথি সরকারকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার করা হয়।

৫ নভেম্বর তিথি সরকারের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করা হয়। ঢাকার সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক আসসামছ জগলুল হোসেনের আদালতে আবু মুসা রিফাত নামের এক ব্যক্তি মামলাটি করেন।

মামলার অভিযোগ বলা হয়, আসামি তিথি সরকার জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় প্রাণিবিদ্যা বিভাগের একজন শিক্ষার্থী। তিনি ১৬ অক্টোবর থেকে ২৩ অক্টোবর পর্যন্ত বিভিন্ন সময়ে ইচ্ছাকৃতভাবে নিজের ফেসবুক আইডি থেকে ইসলাম ধর্ম ও মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) সম্পর্কে কটূক্তি করে ইসলাম ধর্মের মূল্যবােধ ও অনুভূতিতে আঘাত করেছেন। তিনি গত ১৬ অক্টোবর তার ফেসবুক পোস্টে লেখেন, মানুষের ইমােশন নিয়ে খেলে এমন ধর্ম পৃথিবীতে একটাই। পরবর্তীতে তিনি আরাে যুক্ত করেন, আল্লাহ ওয়াদা পালনে ব্যর্থ। ছাগলের কাছে আল্লা পরাজিত ওয়াদা রক্ষা করতে, আল্লাহ যথাযথভাবে কোরআন সংরক্ষণ করতে ব্যর্থ হয়েছে এ কথা আমরা সহজেই বুঝতে পারি। তিনি কোরআন শরীফে জঙ্গিবাদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে বলে উল্লেখ করেন।

অভিযোগে আরো উল্লেখ করা হয়, তিথি সরকার তার ফেসবুক আইডিতে মুসলমান সম্প্রদায়কে শুয়ােরের জাত বলে প্রচার করেন। বেশ্যাবৃত্তিকে ইসলামে হালাল বলে প্রচার করেন। তিনি মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) সম্পর্কে বলেন, মুহাম্মদের মেয়েকে বিয়ে দিয়েছে ওমরের কাছে, আবার ওমরের মেয়েকে বিয়ে করেছে, কে কার শ্বশুর।

তার ফেসবুক আইডি পর্যালােচনা করলে দেখা যায় যে, তিনি ইসলাম ধর্মের মূল্যবােধ ও অনুভূতিতে আঘাতের জন্য ফেসবুক আইডি থেকে বিভিন্ন সময় কটূক্তি করে বিভিন্ন পোস্ট লিখেছেন ও প্রচার করেছেন। আসামি তিথি সরকার বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের (জবি শাখা) দফতর সম্পাদক ছিলেন। ইতোমধ্যে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেবার কারণে তাকে উক্ত সংগঠক থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। একই অভিযোগে গত ২৬ অক্টোবর জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে রেজিস্ট্রার স্বাক্ষরিত আদেশে তিথি সরকারকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার করা হয়।

0
1
fb-share-icon1

Best WordPress themes


© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!