শনিবার, ১৫ অগাস্ট ২০২০, ০৮:০৯ অপরাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

ঈশ্বরদীতে যে কারনে দেড় মাসের কন্যা শিশুকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা!

দেড় মাস বয়সী আতিকা জান্নাতের লাশ

ঈশ্বরদী প্রতিনিধি : ঈশ্বরদীতে পরিকল্পিতভাবে বাবা, দাদা ও দাদী হত্যা করে চুরির নাটক সাজিয়ে পুলিশ ও এলাকাবাসীদের বোকা বানাতে চেয়েছিল।

গতকাল শনিবার (২০ জানুয়ারি) নিউজ পাবনা ডটকম পত্রিকাসহ দেশের প্রায় প্রত্যেকটি পত্রিকায় ঈশ্বরদীতে শিশুকণ্যা চুরি নিয়ে একটি রিপোর্ট প্রকাশিত হয়। কিন্তু ঈশ্বরদী পুলিশ প্রশাসনের প্রচেষ্টায় শিশু হত্যাকান্ডের ঘটনা উদ্ঘাটিত হয়েছে।

দেড় মাস বয়সী আতিকা জান্নাতের লাশ উদ্ধার এবং এই ঘটনায় শিশুটির বাবা খান মোঃ আশরাফুল ইসলাম, দাদা মোঃ আইয়ুব আলী খান, দাদী সেলিনা খান ও শিশুটির বাবার মামী জোস্না খাতুনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

শনিবার ‘চুরি হওয়া’ শিশুকে খুঁজে পেতে মাইকিং, পুলিশি অভিযান রাত এগারোটার দিকে ঘরের আলমারির মধ্যে কাপড়ে জড়ানো অবস্তায় শিশুটির লাশ উদ্ধারের পর তাকে হত্যার অভিযোগে ৪ জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

ঈশ্বরদীর কলেজ রোড এলাকার অরনকোলায় চাঞ্চল্যকর এ ঘটনা ঘটে। আজ রোববার (২১ জানুয়ারি) ঈশ্বরদী থানা থেকে আসামীদের পাবনা জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

ঈশ্বরদী সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জহুরুল হক ও থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আজিম উদ্দীন জানান, শনিবার নিশি খাতুন তার বড় মেয়েকে নিয়ে ছাদে ভেজা কাপড় বিছিয়ে দিতে ও রোদ পোহাতে গেলে এই ফাঁকে পরিকল্পনা অনুযায়ী শিশুটিকে গলা টিপে হত্যা করে তাকে একটি কাপড়ে জড়িয়ে ঘরের আলমারিতে লুকিয়ে রাখে পাষন্ড বাবা আশরাফুল।

তাকে সাহায্য করে তার বাবা-মা ও মামী। পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে এসব কথা স্বীকার করেছে আশরাফুলসহ গ্রেফতারকৃত ৪ জন।

নিজের ঘরেরই আলমারিতে পাওয়া গেছে শিশুটির লাশ। শিশু জানাতের অপরাধ কি ছিল- এব্যাপারে অপরাধীরা পুলিশকে জানিয়েছে, কণ্যা শিশু, কালো বর্ণের এবং সাত মাসে ভূমিষ্ট হওয়া অপুষ্ট সন্তান। একটি ঘৃণ্য অপরাধ পরিকল্পনার সত্য প্রকাশ করতে সমর্থ হয়েছে ঈশ্বরদী থানা পুরিশ।

ঘটনা প্রবাহ-
পুলিশের নিকট প্রদত্ত জবানবন্দিতে ঘটনার পূর্ণ চিত্র তুলে ধরা হলো। আতিকার দাদী তার ছেলের বৌ নিশিকে বলে আমি হাসপাতালে যাচ্ছি। তুমি রান্না ঘরে কাজ কর। দাদী ব্যাগে আরেক সেট কাপড় নিয়ে রেডি হয়ে ঘরেই অবস্থান করতে থাকে।

শিশুর মা কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়লে সে কাপড় বদলিয়ে হাতের ব্যাগে আরেক সেট কাপড় নেয় এবং ঘুমন্ত শিশুকে শ্বাসরোধে হত্যা করে আলমারীতে রাখে।

হাতে বাচ্চা আছে এই ভাবে মুখ ঢেকে দাদী হেটে হেটে অরনখোলা হাটের দিকে যেয়ে অটোতে চড়ে মুলাডুলি পর্যন্ত যায়।

মুলাডুলিতে কাপড় পরিবর্তন করে ব্যাগটি ফেলে দিয়ে ছেলের লোকো রোডে ছেলের মা-বাবা কম্পিউটারের দোকান এবং হাসপাতাল হয়ে ফিরে আসে। একটি প্রেসক্রিপশন ছেলে আগেই সংগ্রহ করে রেখেছিল।

উল্লেখ্য, দাদী এসময় তার বাড়িতে বেড়াতে আসা জ্যোস্না বেগমের পুরাতন কাপড় ব্যবহার করেছিল।

এদিকে বৌ মেয়েকে পাওয়া যাচ্ছে না এই সংবাদ দিলে ছেলে ও মা একসাথে বাসায় আসে।

দুপুর ১২ টার দিকে তারা পুলিশকে ডেকে বাচ্চা চুরির জন্য প্রতিবেশীকে দায়ী করতে থাকে।

শিশুর বাবা এসময় বিভিন্ন চিরকুট পুলিশকে দেখায়, যাতে তাদের হুমকি দিয়ে বিভিন্ন কথা লেখা ছিল। পরে চিরকুটের লেখার সাথে শিশুর দাদার হুবহু মিল পুলিশ খুজে পায়।

এসময় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ঈশ্বরদী সার্কেল জহুরুল হক, ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে প্রতিবেশীকে থানায় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের নির্দেশ দেন এবং স্থানীয় জনগনকে সাথে নিয়ে সম্ভাব্য সকল স্থানে তল্লাশী করেন।

এমনকি দাশুরিয়া ও মুলাডুলিসহ সকল স্থানে সরেজমিনে গিয়ে শিশুর খোজ করেন।

তরপরেও কোথায়ও শিশুটির সন্ধান না পেয়ে এবং প্রতিবেশীকে জিজ্ঞাসাবাদ করে সন্তোষজনক কোন তথ্য না পাওয়ায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ওই পরিবারকে সন্দেহ করেন।

তিনি সার্বক্ষনিক বাড়িতে পুলিশের পাহারা বসিয়ে রাখেন এবং কৌশলে জিজ্ঞাসাবাদ করতে থাকেন।

এদিকে বেড়াতে আসা শিশুর বাবার মামী গুরুত্বপূর্ন তথ্য দিলে মহিলা পুলিশ দিয়ে তাকে থানায় পাঠিয়ে নিবির ভাবে জিঙ্গাসাবাদ করার ব্যবস্থা করেন।

খবর পেয়ে পাবনার পুলিশ সুপার জিহাদুল কবির পিপিএম ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার প্রশাসন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

শনিবার রাত ১০ টার দিকে শিশুর দাদী অন্ধকার বারান্দায় পড়ে থাকা হাতে লেখা একটি চিঠি পাওয়ার কথা পুলিশকে জানায়।

তাতে লেখা আছে যে “নিশি নিচে আসায় তোর মেয়েকে নিতে পারিনি, আলমারিতে আছে, ভাবিচি পরে নেব, পরে আর নিতে পারিনি, ক্ষমা করিস।”

পরে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ঈশ্বরদী সার্কেল জহুরুল হকের উপস্থিতিতে আলমারী খুলে শিশুর বাবা আশরাফুল শিশুর মৃতদেহ বের করে এবং নাটকের যবনিকাপাত হয়।

এই পর্যায়ে শিশুর বাবা, দাদা ও দাদীকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করলে তারা অকপটে হত্যাকান্ডের সকল নাটকীয় ঘটনার সবকিছু স্বীকার করে বলে জানায় পুলিশ।

error20
fb-share-icon0
Tweet 10
fb-share-icon20


পাবনার কৃতি সন্তান নাসা বিজ্ঞানী মাহমুদা সুলতানা

পাবনার কৃতি সন্তান নাসা বিজ্ঞানী মাহমুদা সুলতানা

পাবনার কৃতি সন্তান নাসা বিজ্ঞানী মাহমুদা সুলতানা

Posted by News Pabna on Monday, August 10, 2020

© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
Wordpress Social Share Plugin powered by Ultimatelysocial
error: Content is protected !!