শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর ২০২০, ০২:৩৬ পূর্বাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

ঈশ্বরদীতে শিক্ষিকার মারপিটে শিক্ষার্থী হাসপাতালে

ঈশ্বরদীতে শিক্ষিকার মারপিটে শিক্ষার্থী হাসপাতালে

image_pdfimage_print

ঈশ্বরদী প্রতিনিধি : পাবনার ঈশ্বরদীতে শ্রেণিকক্ষে দুষ্টুমি করার সন্দেহে এক শিশু শিক্ষার্থীকে অমানুষিক নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে। আহত শিক্ষার্থীর নাম শাহরিয়ার হোসেন (১৩)। সে পাবনার ঈশ্বরদীর ছলিমপুর ইউনিয়নে জয়নগর পিজিসিবি উচ্চবিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণির ছাত্র।

আহত শিক্ষার্থীর সহপাঠীদের বরাত দিয়ে স্কুলের একজন শিক্ষক জানান, বৃহস্পতিবার দুপুরে শ্রেণিকক্ষে কয়েকজন ছাত্র দুষ্টুমি করছিল। শাহরিয়ার হোসেনও সেখানে ছিল। এ সময় শ্রেণিকক্ষে ঢোকেন স্কুলের বাংলার শিক্ষক নিলুফার ইয়াসমিন। তিনি এ সময় শাহরিয়ারকে দুষ্টুমি করার সন্দেহে লাঠি দিয়ে পেটান। পাঁচ-ছয় মিনিট পেটানোর পর শাহরিয়ার শ্রেণিকক্ষের ভেতরে মাটিতে পড়ে যায়। পরে সহপাঠীরা আহত অবস্থায় শাহরিয়ারকে তার বাসায় নিয়ে যায়।

ওই শিক্ষার্থীর বাবা ওয়াহেদুজ্জামান জানান, বৃহস্পতিবার বিকেলেই শাহরিয়ারকে ঈশ্বরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। ভর্তির পর থেকে রাত নয়টা পর্যন্ত সে অচেতন ছিল। পরে রাত ১১টার দিকে তাকে বাসায় নিয়ে যাওয়া হয়। তিনি অভিযোগ করেন, তাঁর ছেলেকে মারপিটের ঘটনাটি কাউকে না বলার জন্য ওই শিক্ষক ও কয়েক ব্যক্তি তাঁকে চাপ দিচ্ছিলেন। তাই ভয়ে তিনি কাউকে জানাননি। কিন্তু শুক্রবার পর্যন্ত স্কুল কর্তৃপক্ষ ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা না নেওয়ায় তিনি সাংবাদিকদের বিষয়টি জানিয়েছেন।

ঈশ্বরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম জানান, শাহরিয়ার ভয় পেয়ে আতঙ্কের মধ্যে রয়েছে। তার বাঁ হাত, বুক, পিঠসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের ১০-১২টি চিহ্ন রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, লাঠি বা বেত দিয়ে আঘাত করা হয়েছে।

অভিযুক্ত শিক্ষক নিলুফার ইয়াসমিন বলেন, অনেক শিক্ষকই বেধড়ক ছাত্র পেটান। কিন্তু তিনি সেভাবে শাহরিয়ারকে মারেননি।

স্কুলের প্রধান শিক্ষক আবদুর রাজ্জাক বলেন, বিষয়টি বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটিকে জানানো হয়েছে। পরিচালনা কমিটি সভা ডেকে অভিযুক্ত শিক্ষকের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেবে।

বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি কে এম কামরুজ্জামান বলেন, শিক্ষার্থীকে পিটিয়ে আহত করার ঘটনায় ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে সোমবারের মধ্যে অভিযোগ গঠন করে পিজিসিবির প্রধান কার্যালয়ে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হচ্ছে। কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সিদ্ধান্তে তাঁর বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ঈশ্বরদী উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সেলিম আক্তার বলেন, শিক্ষার্থীকে বেত বা লাঠি দিয়ে পেটানো বা নির্যাতন করা শাস্তিমূলক অপরাধ। সরকার প্রজ্ঞাপন জারি করে এটি নিষেধ করেছে। পিজিসিবি বিদ্যালয়ের শিক্ষক নিলুফার ইয়াসমিন এ ধরনের অন্যায় করলে তাঁর বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্ট দপ্তর ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানানো হবে।

Best WordPress themes


© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!