‘ঈশ্বরদী-পাবনা-ঢালারচর রুটে ট্রেন চলাচল মার্চ মাসে’

ঈশ্বরদী-পাবনা-ঢালারচর রুটে ট্রেন চালু হবে মার্চ মাসে

ঈশ্বরদী-পাবনা-ঢালারচর রুটে ট্রেন চালু হবে মার্চ মাসে

ঈশ্বরদী প্রতিনিধি : যাত্রীসেবা উন্নত করার লক্ষ্যে পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের পাকশী বিভাগের বৃহত্তম ঈশ্বরদী জংশন ষ্টেশননহ অত্র অঞ্চলে ব্যাপক উন্নয়নের পরিকল্পনা হাতে নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন রেলওয়ের মহাপরিচালক।

মহাপরিচালক আমজাদ হোসেন জানান, আগামি মার্চ মাসে ঈশ্বরদী-পাবনা-ঢালার চর রেল লাইনে ট্রেন চালু হবে। এতে ঈশ্বরদী ও পাবনার মধ্যে রেলওয়ে সেতু বন্ধন তৈরি হবে। এলাকার কৃষি পণ্য বাজারজাতকরণসহ ব্যবসা-বাণিজ্য ও যোগাযোগ ব্যবস্থায় ব্যাপক উন্নয়ন সাধিত হবে। তিনি আরো বলেন, আজিমনগর ষ্টেশন হতে ঈশ্বরদী হয়ে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প এলাকা পর্যন্ত ডাবল রেললাইন নির্মাণের সিদ্ধান্ত হয়েছে।

মহাপরিচালক জানান,  গৃহিত পরিকল্পনা অনুয়ায়ী ইতিমধ্যে অনেক প্রকল্পের কাজ শেষ হয়েছে। আবার কিছু প্রকল্পের কাজ চলমান। শীঘ্রই আরো কিছু প্রকল্পের কাজ শুরু হবে। এসব প্রকল্পের কাজ সম্পন্ন হলে পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের আমুল পরিবর্তন হবে।

পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের পাকশী বিভাগের বিভিন্ন উন্নয়ন মূলক প্রকল্প এলাকা পরিদর্শনে আসার পর আজ শনিবার (০৩ ডিসেম্বর) দুপুরে রেলওয়ের পাকশীতে বিভাগীয় ব্যবস্থাপক (ডিআরএম) অসীম কুমার তালুকদারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় মহাপরিচালক এসব কথা বলেন।

এ সময় এডিজি ( আই) কাজী রফিকুল আলম, এডিজি (অপারেশন) হাবিবুর রহমান, এডিজি (আরএস) শামসুজ্জামান,পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের জিএম খায়রুল আলম, প্রধান প্রকৌশলী রমজান আলী, সিওপিএস বেলাল উদ্দিন, পিডি সুবক্তগীণ, ডিসিও আহসান উল্লাহ ভূইয়া, ডিইএন/১ আসাদুল হক, ডিটিও শওকত জামিল, পাকশী’র চেয়ারম্যান এনামূল হক বিশ্বাস, মুক্তিযোদ্ধা ও ঠিকাদার গোলাম মোস্তফা চান্নাসহ পাকশী বিভাগীয় কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মহাপরিচালক আমজাদ হোসেন বলেন, শীঘ্রই ঈশ্বরদী জংশন স্টেশন রিমডেলিং, রেল ইয়ার্ড আধুনিকায়ন ও ডুয়েল গেজ রেললাইন স্থাপন করা হবে । আন্তর্জাতিক পর্যায়ের ট্রেন এই ষ্টেশনের উপর দিয়ে সহজেই চলাচল করবে। পাকশী বিভাগসহ সকল বিভাগ পর্যায়ক্রমে নতুন নতুন রেল লাইন স্থাপন, নতুন নতুন ট্রেন চালু, খুলনা-দর্শনায় ডাবল রেললাইন নির্মাণ করা হবে। ২৫টি ষ্টেশনে আধুনিক সিগ্নেলিং সিষ্টেম চালু করা হবে। বঙ্গবন্ধু সেতুর পাশে শুধু ট্রেন চলাচলের জন্য পৃথক রেল সেতু নির্মাণ করা হবে বলে তিনি জানান।

ঈশ্বরদী হতে জয়দেবপুর পর্যন্ত ডাবল রেল লাইন নির্মাণ হলে রাজধানীর সাথে এই এলাকার মানুষের যাতায়াতের সময় অনেক সাশ্রয় হবে। এগুলো বাস্তবায়ন শুধু সময়ের ব্যাপার মাত্র বলে তিনি উল্লেখ করেন।

এই সভায় ডিজি পাকশীতে রেলের জমিতে অবৈধভাবে গড়ে ওঠা ‘পাকশী রিসোর্ট ’ (খান মঞ্জিল) ভেঙ্গে ফেলার ঘোষণা দিয়ে বলেন, জমির মালিক রেলওয়ে কর্র্তৃপক্ষ। অবৈধ এই রিসোর্ট অবশ্যই ভাঙ্গা হবে। আদালতে মামলা চলছে, মামলা শেষ হলেই আমরা তড়িৎ গতিতে অবৈধ রিসোর্টটি ভেঙ্গে ফেলবো। এছাড়া রেলের জমিতে অবৈধভাবে গড়ে উঠা বিভিন্ন স্থাপনা, বাড়ি-ঘর দ্রুত উচ্ছেদের তাগিদ দেন। পরে তিনি নবনির্মিত ঈশ্বরদী- ঢালারচর রেললাইনের বিভিন্ন অংশ পরিদর্শন করে সন্তোষ প্রকাশ করেন।

শ্রমিক লীগ নেতা ইকবাল নজরুল ও আওয়ামী লীগ নেতা গোলাম মোস্তফা চান্নাসহ দলীয় নেতৃবৃন্দের পক্ষ হতে পাকশীর সকল অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদসহ সমস্যার সমাধানকল্পে ৬ দফা দাবি সম্বলিত একটি আবেদন মহাপরিচালকের নিকট পেশ করা হয়।