শনিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২০, ০৪:১৪ পূর্বাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

এই ভরা বর্ষায় পানি নেই পাবনার ইছামতি নদীতে

image_pdfimage_print

নিজস্ব প্রতিনিধি : দেশের বন্যা পরিস্থিতি যখন প্রতিদিন সংবাদ শিরোনাম হচ্ছে। পাবনায় যমুনার পানি বিপদ সীমার ৬ সে.মি. ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

পাকশী হার্ডিঞ্জ ব্রিজ পয়েন্টে পদ্মা নদীর পানি যখন বিপদ সীমার মাত্র ২ সে.মি. নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

ঠিক সে সময় পাবনা শহরের মধ্যে দিয়ে প্রবাহিত এক সময়ের স্রোতস্বিনী ইছামতি নদীতে পানি নেই!

অর্থাৎ এই ভরা বর্ষায় পানি নেই ইছামতি নদীতে।

গত ২০১৭ সালের ২৩ আগস্ট ইছামতি নদীতে নৌকার শোডাউন করা হয়েছিলো। প্রায় ৩০ বছর পর ইছামতি নদীতে আসা পানিতে নৌকা ভাসিয়ে সেদিন ‘ইছামতি বাঁচাও পাবনাকে বাঁচাও’ স্লোগানে নদীপাড় মুখরিত হয়ে ওঠেছিলো।

সেই সময় পদ্মা নদীর পানি বাড়ার কারণে এবং পাউবো পদ্মার মুখে দেয়া স্লুইসগেটের পাল্লা খুলে দেয়। এতে ৩০ বছর পর ইছামতি নদীতে দেখা দিয়েছিল স্রোত।

এতে করে এক সপ্তাহের মধ্যে নদীতে জমে থাকা দুই যুগের কলঙ্ক ধুয়ে মুছে যায়। এর আগে ১৯৮৮ সালের বন্যায় ইছামতি নদীতে পানির দেখা পাওয়া গিয়েছিলো।

অবশ্য ২৩ আগস্টের নৌ র‌্যালির পরের সপ্তাহেই আবার আগের মতো শুকিয়ে যায় ইছামতি নদী।

ইতিহাস বলছে, বাংলার নবাব ইসলাম খাঁ ১৬০৮-১৬১৬ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত দায়িত্ব পালনকালে সৈন্য পরিচালনার সুবিধার্থে পদ্মা ও যমুনা নদীর সংযোগ স্থাপনার্থে পাবনার মধ্য শহরে একটি খাল কাটেন, যার নাম দেন ইছামতি।

এক সময়ের খরস্রোতা এই নদী দিয়ে চলতো নৌকা-ছোট জাহাজ। এই নদী দিয়েই বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর তার নিজস্ব বোটে শাহজাদপুর আসা-যাওয়া করতেন।

কিন্তু সেই স্রোতস্বিনী প্রবাহমান ইছামতি তার যৌবন হারিয়ে আজ মৃত প্রায়। অস্তিতই বিপন্নের পথে।

Best WordPress themes


© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!