শনিবার, ৩১ অক্টোবর ২০২০, ০২:০৭ অপরাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

এখনও ৫ টাকায় দুপুরের খাবার মেলে যে হোটেলে

image_pdfimage_print

রাজশাহীর বাঘায় শিক্ষার্থীর জন্য ৫ টাকায় দুপুরের খাবার সরবরাহ করা হয়। দীর্ঘ তিন বছর থেকে এ খাদ্য সরবরাহ করে আসছেন আড়ানী পৌর বাজারের তালতলায় অন্নপূর্ণা হোটেল অ্যান্ড রেস্টুরেন্টের মালিক বিপ্লব সরকার।

জানা গেছে, ১৯৭১ সালে তার বাবা শ্যামল সরকার আড়ানী বাজারে একটি খাবার হোটেল দেন। এ হোটেলে ৭১ সালের মুক্তিযোদ্ধাদের শ্যামল সরকার কোনো কোনো সময় খাবার সরবরাহ করতেন। তার ছেলে বিপ্লব সরকার এ কাজটি করে আসছেন তিন বছর থেকে।

তবে প্রথম দিকে তার বাবাকে না জানিয়ে শিক্ষার্থীদের মাঝে খাবার সরবরাহ করত। তার বাবা এ বিষয়ে মাঝেমধ্যে বকাও দিত। কিন্তু বিপ্লব সরকার এ কাজ থেকে সরে আসেনি। বিপ্লবের বাবা যখন দুপুরে দিকে বাড়িতে চলে যায়। এ সময় বিপ্লব দোকানে বসেন।

টিফিনের সময় আড়ানী সরকারি মনোমোহিনী উচ্চ বিদ্যালয় ও আড়ানী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা দুপুরের খাবার খায়। ৫ টাকার বিনিময়ে পরিমাণমতো ভাত, ডাল, একটু ভাজি ও ভর্তা দেয়া হয়। তবে সপ্তাহে এক দিন মাছ ও মাংস দেয়া হয়।

যারা স্কুল ড্রেস পরে আসে শুধু তাদের মাঝে ৫ টাকার বিনিময়ে এ খাবার দেয়া হয়। যারা ড্রেস পরে আসে না তাদের খাবার দেয়া হয় না।

এ বিষয়ে বিপ্লব সরকার বলেন, ছাত্ররা প্রায় দিন টিফিনের সময় দুপুরে হোটেলে শিঙাড়া খেতে আসত। তৈলাক্ত জিনিস খেলে সমস্যা হবে ভেবে তাদের কাছে থেকে ৫ টাকা নিয়ে ভাত খেতে দিতাম। কিছু কিছু সময় অবাক হয়ে ছাত্ররা খেয়ে চলে যেত।

তিনি বলেন, এভাবে ছাত্রদের শিঙাড়া না দিয়ে ভাত খেতে দিতাম। এখনো দিচ্ছি। তবে প্রতিদিন তার হোটেলে ৬০-৮০ জন ছাত্র ৫ টাকার বিনিময়ে ভাত খায়।

বিপ্লব সরকার বলেন, আমি অর্থনৈতিক দুর্দশার কারণে নবম শ্রেণি পর্যন্ত লেখা পড়া করেছি। সংসারের অভাব-অনটনের কারণে হোটেলে বাবাকে সহযোগিতা শুরু করি। এখন বাবার অনেক বয়স হয়েছে। বাবাকে এখনোও সহযোগিতা করি। তবে হোটেলের পাশাপাশি বিপ্লব সরকারের লেপ-তোশকের দোকান রয়েছে। আমি লেখাপড়া করতে পারেনি। ছোট ছোট ছেলের দুপুরে এ টাকার বিনিময়ে খাবার দিতে পেরে ভালো লাগে।

বিপ্লব সরকারের বাবা শ্যামল সরকার বলেন, ছেলের এ কাজ প্রথমে দেখে তাকে অনেক বকাবকি করতাম। বকাবকি করেও যখন কোনো কাজ হলো না, হোটেলের দায়িত্ব ছেলেকে দিয়ে দিলাম। তবে ভালো চলছে।

এ বিষয়ে আড়ানী সরকারি মনোমোহিনী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধন শিক্ষক সঞ্জয় কুমার দাস বলেন, দীর্ঘদিন থেকে বিপ্লব সরকার ৫ টাকার বিনিময়ে দুপুরে শুধু শিক্ষার্থীদের মাঝে খাবার দেয় এটা শুনেছি।

আড়ানী পৌরসভার সাবেক মেয়র নজরুল ইসলাম মাস্টার বলেন, আমি মাঝেমধ্যে তার হোটেলে দুপুরে খেতে যাই। সেখানে স্কুলের ছেলেমেয়েরা ভাত খাওয়ার জন্য ভিড় জমায়। কিছু দিন পর জানতে পারি ৫ টাকার বিনিময়ে ছাত্রদের খাবার দেয়া হয়।

Best WordPress themes


© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!