শনিবার, ১৭ এপ্রিল ২০২১, ১০:৫৬ পূর্বাহ্ন

করোনার সবশেষ
করোনা ভাইরাসে বাংলাদেশে গত ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছেন ১০১ জন, শনাক্ত হয়েছেন ৪ হাজার ৪১৭ জন আসুন আমরা সবাই আরও সাবধান হই, মাস্ক পরিধান করি। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখি।  

এডওয়ার্ড কলেজে বাস সংকট, ছাত্র-ছাত্রীদের ভোগান্তি

12805982_1675873356009427_1551569461592158376_nপাবনা সরকারি এডওয়ার্ড কলেজে বাস সংকটের কারনে ছাত্র-ছাত্রীরা প্রতিনিয়ত ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে। এডওয়ার্ড কলেজে ২৫ হাজার ছাত্র-ছাত্রীর জন্য মাত্র ৪টি বাস রয়েছে।

যেখানে প্রতিটা বাসের আসন সংখ্যা মাত্র ৫০টি, সেখানে ২৫০ জন ছাত্র-ছাত্রী বাধ্য হয়েই সেই বাসে চড়ছে। ফলে অধিক ভিড়ের কারনে চাপাচাপি করে ছাত্র-ছাত্রীরা অতি কষ্টের মধ্যে তাদের যাত্রাপথ অতিক্রম করছে। বিশেষ করে ছাত্রীরা বেশি দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে।

জানা যায়, বর্তমানে এ ৪টি বাস ৬টি রুটে চলে, তার মধ্যে ৩টি বাস ডাবল রুটে চলে। এর মধ্যে ১টি বাস সবসময় ডাবল রুটে চলে আর দুটি বাস শিপটিংয়ে ডাবল রুটে চলে। এসব বাসগুলো ঈশ্বরদী, চাটমোহর, সাঁথিয়া, কাশিনাথপুর, ভাঙ্গুড়া, সাতবাড়িয়ায় যাতায়াত করে।

ছাত্র-ছাত্রীদের অভিযোগ, ‘ভর্তির সময় আমরা বাসের জন্য সেশন ফি বাবদ অতিরিক্ত ৪শ টাকা দেই কিন্তু আমরা বাসের পূর্ণ সুযোগ সুবিধা ভোগ করতে পারি না। কারন ৫০ সীটের বাসে আমরা প্রায় ২৫০ জন ছাত্র-ছাত্রী গাদাগাদি করে উঠি, ফলে খুব কষ্টে বাসের মধ্যে থাকতে হয়। বিশেষ করে গরমের দিন ভিড়ের কারনে আমাদের চরম সমস্যা হয়। কলেজের অনার্স প্রথম বর্ষের ছাত্রী মালা(১৯) ও সুমি(২০) জানায়, আমরা মেয়েরা বাসের মধ্যে সীট না পেয়ে দাঁড়িয়ে থাকি। ভিড়ের মধ্যে ছেলেদের সাথে ঠেলাঠেলি করে এক রকম বাধ্য হয়েই যাত্রাপথ অতিক্রম করি, ফলে আমাদের প্রতিনিয়ত দুর্ভোগের শিকার হতে হয়।”

তাই সরকারি এডওয়ার্ড কলেজের ছাত্র-ছাত্রীদের দাবি বর্তমানে যে ৪টি বাস আছে সেগুলো প্রত্যেকটাই ডাবল রুটে চালু করা হোক এবং তার সাথে নতুন বাস সংখ্যা বাড়ানো হোক।’ এ বিষয়ে সরকারি এডওয়ার্ড কলেজর পরিবহন আহ্বায়ক রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক এ. কে ফজলুল হক জানান, বর্তমানে কলেজে যে ৪টি বাস আছে সেগুলোর প্রত্যেকটা ডাবল রুটে চালু করা সম্ভব না। কারন বাসগুলো অতি পুরোনো তাই খুব দুর্বল হয়ে গেছে। যদি আমরা প্রত্যেকটা বাস ডাবল রুটে চালু করি তাহলে এখন যদিও বা কোন রকম চলছে কিছু দিন পর তাও চলবে না। তাছারা কলেজে ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যা বেড়েই চলেছে অথচ বাসের সংখ্যা বাড়ছে না। ৫০ সীটের বাসে ২৫০ জন ছাত্র-ছাত্রী চড়ার ফলে বাসের ওপর অত্যাধিক চাপ পড়ছে, এতে প্রতিদিনই বাস মেরামত করতে হচ্ছে। তিনি আরও জানান, সরকার কখনোই নিজ খরচে সরকারি কলেজে বাস কিনে দেন না বা বাসের যাতায়াত খরচ বহন করেন না। প্রত্যেকটা সরকারি কলেজ তার নিজের ফান্ড থেকে বাসের যাবতীয় খরচ বহন করে। তবে সরকারের অনুমোদন ছারা আমরা নিজ উদ্যোগে বাস কিনতে পারি না।

আমাদের কলেজ ফান্ডের বাস কেনার সামর্থ আছে তবে বেশি কেনার সামর্থ নেই। তাই আমরা বাস অনুদানের জন্যও সরকারের নিকট আবেদন করেছি। আমরা কলেজের বাস সংখ্যা বাড়ানোর জন্য গত ৩ বছর যাবৎ সরকারে কাছে আবেদন করছি। সর্বশেষ সরকার বাস ক্রয়ের একটা শর্তযুক্ত অনুমতি দিয়েছে।

কিন্তু সেই শর্তগুলো পালন করা কলেজের জন্য খুব কঠিন। তাই সরকারের নিকট কলেজ কর্তৃপক্ষের দাবি শর্তগুলো সহজসাধ্য করে দিলে তারা যেন নিজস্ব অর্থায়নে বাস ক্রয় করতে সক্ষম হন।

0
1
fb-share-icon1


শৈশব কৈশরের দুরন্ত-দুষ্টু ছেলেটিই আজকের এমপি প্রিন্স

শৈশব কৈশরের দুরন্ত-দুষ্টু ছেলেটিই আজকের এমপি প্রিন্স

শৈশব কৈশরের দুরন্ত-দুষ্টু ছেলেটিই আজকের প্রিন্স অফ পাবনা

Posted by News Pabna on Thursday, February 18, 2021

© All rights reserved 2021 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
x
error: Content is protected !!