শনিবার, ১৭ এপ্রিল ২০২১, ০৮:৪৬ অপরাহ্ন

করোনার সবশেষ
করোনা ভাইরাসে বাংলাদেশে গত ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছেন ১০১ জন, শনাক্ত হয়েছেন ৩ হাজার ৪৭৩ জন আসুন আমরা সবাই আরও সাবধান হই, মাস্ক পরিধান করি। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখি।  

করোনার মধ্যে ভাঙ্গুড়ায় মাইকিং করে জনসমাগম করার অভিযোগ

ভাঙ্গুড়া প্রতিনিধিঃ পাবনার ভাঙ্গুড়ায় করোনার মধ্যে মাইকিং করে এবং বাড়ি বাড়ি গ্রামপুলিশ পাঠিয়ে জনসমাগম করার অভিযোগ উঠেছে ইউপি চেয়ারম্যান শ্রী অশোক কুমার ঘোষ প্রনোর বিরুদ্ধে।

তিনি উপজেলার দিলপাশার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও অত্র ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক।

বুধবার (০৭ এপ্রিল) বেলা ১১টার দিকে ওই ইউনিয়ন পরিষদ প্রাঙ্গনে কয়েক শতাধিক মানুষের সমাগম ঘটে।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, এলাকা থেকে সরকারি চাল উদ্ধারের ঘটনায় চেয়ারম্যান নিজেকে নির্দেশ প্রমাণ করতে মাইকিং করে সুফলভোগী কার্ডধারীদের ডেকে এনে জনসমাগম করেছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, পরিষদ চত্বরে নয়টি ওয়ার্ডের তিনশত ২৬জন কার্ডধারী সুফলভোগীসহ প্রায় পাঁচশত নারী-পুরুষ সেখানে সমবেত হয়েছে।
সেখানে ছিল না কোন সামাজিক দূরত্ব। আবার অনেকের মুখে মাস্কও ছিল না।

হাট উধুনিয়া, বেতুয়ান,পাটুল ও কাজীটোল গ্রাম থেকে আসা কার্ডধারী সুফলভোগীরা বলেন, গতকাল সন্ধ্যায় চেয়ারম্যান আমাদের বাড়িতে চৌকিদার পাঠিয়ে সবাইকে কার্ড সঙ্গে করে সকাল ৯টার মধ্যে পরিষদে আসতে বলেছে, তাই এসেছি।

মাইকিং করে মানুষের সমাগম করার ব্যাপারে জানতে চাইলে ইউপি চেয়ারম্যান শ্রী অশোক কুমার ঘোষ প্রনো বলেন, আজ তদন্ত কমিটির আসার কথা তাই কার্ডধারীদের স্বাস্থ্য বিধি মেনে পরিষদে আসতে বলেছি।

তদন্ত কমিটির আহ্বায়ক ও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ কাওছার হাবীব বলেন, তদন্তের বিষয়ে সেখানে যাওয়া হয়েছিল। কিন্তু সেখানে পৌঁছেই অনেক লোকের সমাগম দেখতে পেয়ে সবাইকে বাড়ি পাঠিয়ে দিয়েছি।

এ ব্যাপারে ভাঙ্গুড়া থানার ওসি মুহম্মদ আনোয়ার হোসেন বলেন, কেউ আমাকে বিষয়টি জানায়নি। তবে খোঁজ নিয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) সৈয়দ আশরাফুজ্জামান বলেন, সরকারের নির্দেশনা অমান্য করে কেউ যদি জনসমাগম করে থাকে তদন্তের মাধ্যমে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার (২৫ মার্চ) বৃহস্পতিবার বিকালে দিলপাশার ইউনিয়ন পরিষদের কার্ডধারীদের কাছ থেকে একই ইউনিয়নের মাগুড়া গ্রামের রফিজ মন্ডলের ছেলে খোকন ও হাটউধুনিয়া গ্রামের মৃত আজাহার আলীর ছেলে বাবুল আক্তার খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির ৮৫ বস্তা সরকারি চাল ক্রয় করেন।

পরে বস্তা পরিবর্তন করে একটি ট্রলিতে লোড দিয়ে হাটঊধুনিয়া বাজারে নিয়ে যাওয়ার পথে লোকজন বাধা দেন।

উপায় না দেখে ট্রলির চালক চালের বস্তাগুলো শ্মশান ঘাটের নিকট রাস্তার উপর ফেলে রেখে সটকে পড়েন।

খবর পেয়ে সন্ধ্যায় দিলপাশার গ্রামের শ্মশান ঘাট এলাকা থেকে পুলিশ চালগুলো উদ্ধার করে। পরে উপজেলা প্রশাসন ৫ সদস্য করে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেন।

0
1
fb-share-icon1


শৈশব কৈশরের দুরন্ত-দুষ্টু ছেলেটিই আজকের এমপি প্রিন্স

শৈশব কৈশরের দুরন্ত-দুষ্টু ছেলেটিই আজকের এমপি প্রিন্স

শৈশব কৈশরের দুরন্ত-দুষ্টু ছেলেটিই আজকের প্রিন্স অফ পাবনা

Posted by News Pabna on Thursday, February 18, 2021

© All rights reserved 2021 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
x
error: Content is protected !!