News Pabna
ঢাকামঙ্গলবার , ২৪ মে ২০২২

কাজীরহাট-আরিচা নৌপথে ৩টি ফেরির ২টি নষ্ট, ট্রাকের জটলা

News Pabna
মে ২৪, ২০২২ ২:০৭ অপরাহ্ণ
Link Copied!

 

আরফি খাঁন, বেড়া-সাঁথিয়া, পাবনাঃ ফেরি সংকটের কারণে আরিচায় পার হওয়ার জন্য পাবনার বেড়া উপজেলার কাজিরহাট ফেরিঘাটে প্রায় তিন শতাধিক পণ্যবাহী ট্রাক দুই থেকে আড়াই কিলোমিটার রাস্তা জুড়ে দাড়িয়ে আছে। এ অবস্থায় জরুরি পণ্যবাহী ট্রাকগুলোকে ঘাট কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে যমুনা সেতু হয়ে ঘুরে যাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।

এদিকে কাজীরহাট-আরিচা নৌপথে তিনদিন ধরে এই রুটে চলাচল করার তিনটি ফেরির মধ্যে দুইটি ফেরি নষ্ট হওয়ার কারনে দির্ঘ এই জানজট সৃষ্টি হয়েছে। কিন্তু এই নৌপথে যানবাহনের চাপ ব্যাপক বেড়ে যাওয়ায় মাত্র তিনটি ফেরিতেও নৌপথ পরিচালনায় বেসামাল পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে এরপরও আরো দুইটি নষ্ট। ফেরিঘাট সংলগ্ন মহাসড়কে সব সময় আটকে থাকছে শত শত পণ্যবাহী ট্রাক।

ঘাট কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা যায়, ফেরি কপোতি যান্ত্রিক ক্রুটির কারণে গত তিনদিন মেরামতের জন্য আরিচাতে অবস্থান করছে এ ছাড়া ডাম্প ফেরি রাণী ক্ষেত যমুনা নদীতে প্রচন্ড স্রোতে কারণে চলতে পারছে না। অপর রো-রো-ফেরি রোকেয়া পন্টুন সমস্যার কারণে বন্ধ করে রাখা হয়েছে। একটি ফেরি ‘কদম’ দিয়ে পরিবহন পারাপার করায় যে অচলাবস্থা সৃষ্টি হয়েছে তা সহজেই কাটানো সম্ভব হবে না বলে জানা যায়। তবে ডাম্প ফেরি “কপোতি” আজকের মধ্যে মেরামত হলে নৌ-পারাপারে যুক্ত হতে পারে। রো-রো-ফেরি রোকেয়া ঘাটে ভিড়তে না পারার কারণে মন্থর গতিতে পরিবহন পারাপার করতে হচ্ছে।

কবে নাগাদ ডুবে যাওয়া পন্টুন মেরামত করে রো-রো-ফেরি চলাচলের সক্ষমতা অর্জন করতে পারবে এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিআইডব্লিউটিএ’র একজন কর্মকর্তা জানান, তারা পন্টুন মেরামতের কাজ চলমান রেখেছেন নদীতে দ্রুত পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় প্রতিকুলতার মধ্যে চলছে পন্টুন মেরামতের কাজ। দুই একদিনের মধ্যে পন্টুনটি স্থাপন করা সম্ভব হতে পারে। ওই পন্টুনটি চালু করে রো-রো-ফেরি চলাচলের উপযুক্ত না করা পর্যন্ত চলমান সংকট কাটানো সম্ভব নয় বলে জানান তিনি।

মঙ্গবার ২৪ মে সকালে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, কাজিরহাট ট্রাক টার্মিনাল থেকে শুরু করে কাশিনাথপুর কাজিরহাট সড়কের প্রায় দুই কিলোমিটার জুড়ে তিনশাতাধিক ট্রাক ও অন্যান্য যানবাহন আরিচায় যাওয়ার অপেক্ষায় দাঁড়িয়ে আছে। অগ্রাধিকার ভিত্তিতে যাত্রীবাহী ছোট গাড়িগুলোকে ফেরিতে ওঠার সুযোগ দেওয়ায় কোনো কোনো পণ্যবাহী ট্রাককে আরিচায় যাওয়ার জন্য দেড় থেকে দুদিন ধরে অপেক্ষা করতে হচ্ছে। এ ছাড়া দুধ, সবজিসহ নানা জরুরি পণ্যবাহী ট্রাকগুলোকে ঘাট কর্তৃপক্ষ বঙ্গবন্ধু যমুনা সেতু হয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিচ্ছে।

আটকে থাকা ট্রাকচালক হারুন আলী, সবুর আলীসহ তিন-চারজন অভিযোগ করে জানান, ২৪ ঘন্টারও বেশি সময় ধরে তাঁরা পণ্য নিয়ে এই ফেরিঘাটে আটকে রয়েছেন। যানজটের কারণে অনেক যানবাহনই এখন বঙ্গবন্ধু সেতুর পরিবর্তে এই ফেরিঘাট হয়ে ঢাকা আসা-যাওয়া করায় যানবাহনের চাপ অনেক বেড়ে গেছে। অথচ মাত্র তিনটি ‘লক্কড়-ঝক্কড়’ মার্কা ফেরিতে যানবাহন পারাপার চলছে। এগুলোর কোনো কোনোটি প্রায়ই যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে বিকল হয়েও পড়ছে।

এর মধ্যে যাত্রীবাহী গাড়িগুলো ফেরিতে ওঠায় অগ্রাধিকার পাওয়ায় প্রতিটি ফেরিতে মাত্র তিন থেকে চারটি ট্রাক ওঠার সুযোগ পাচ্ছে। এ অবস্থা চলতে থাকলে ঘাটে ট্রাকের জট বাড়তেই থাকবে। তাঁরা আরও জানান এভাবে আটকে থাকায় খাওয়া ও টয়লেট নিয়ে তাঁদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। যাত্রী ও যানবাহনের চালকেরা অভিযোগ করে জানান, এই নৌপথে কমপক্ষে ছয়টি ফেরির প্রয়োজন।

কাজি হাট টার্মিনাল এসিস্টেন্ট আবুল হাসনাইন জানান সোমবার বিকেল পর্যন্ত কাজির হাট ফেরিঘাটে তিন শতাধিক পণ্য পরিবহন সিরিয়াল দিয়ে পারের জন্য অপেক্ষা করছে। তাঁরা একটিমাত্র ফেরি চব্বিশ ঘন্টায় ৫০ থেকে ৬০টি পরিবহন পার করতে পারছেন।

এদিকে ঘাটে এসে পারের অপেক্ষায় থেকে চরম বিড়ম্বনার মধ্যে পড়েছেন চালক ও হেলপারেরা। তারা রাস্তার ওপর প্রচন্ড গরমের মধ্যে দিনরাত অপেক্ষা করছেন। অনেকে ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেছেন। কর্তৃপক্ষের উদাসীনতার কারণেই এ নৌ-পথটি বন্ধ হওয়া দারপ্রান্তে চলে এসেছে।