সোমবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ১২:০৪ অপরাহ্ন

গণতন্ত্রের জন্য শক্তিশালী বিরোধীদল চাই: কাদের

পরাজিত হয়ে বিএনপি আবোল তাবোল কথা বলছে মন্তব্য করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিএনপি এখন চরম হতাশায় ভুগছে। গণতন্ত্রের জন্য আমরাও শক্তিশালী বিরোধীদল চাই।

শুক্রবার বিকেলে আওয়ামী লীগ সভাপতির ধানমন্ডি কার্যালয়ে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ আওয়ামী লীগ এবং সহযোগী সংগঠনের নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময় শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন তিনি।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বিরোধীদল শক্তিশালী থাকুক তারা বিজয়ী হোক এটা আমরা চাই। যদি তারা দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হয় তাহলে নির্বাচন ও রাজনীতিতেও পরাজিত হবে। শক্তিশালী গণতন্ত্রের জন্য আমরাও শক্তিশালী বিরোধীদল চাই। পরাজিত হয়ে বিএনপি হতাশায় ভুগছে। তারা নিজেরাই ঐক্যবদ্ধ না, জনগনকে কিভাবে ঐক্যবদ্ধ করবে?

সেতুমন্ত্রী বলেন, শেখ হাসিনার যোগ্যতা,দক্ষতা ও সততার গুনে মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের শক্তি, তরুণ প্রজন্ম, নারীসহ সমগ্র বাংলাদেশের জনগণ তাকে গ্রহণ করেছে। যে কারণে আওয়ামী লীগকে জনগণ ভোট দিয়ে বিজয়ী করে। আওয়ামী লীগ ধারাবাহিকভাবে জয়ী হচ্ছে আর বিএনপির ধারাবাহিক পরাজয় হতে থাকবে। এই ধারাবাহিক ব্যর্থতায় বিএনপির মধ্যে চরম হতাশা বিরাজ করছে।

আগামীকাল শনিবার খালেদা জিয়া কারাবন্দি দুই বছর পূর্তি হতে যাচ্ছে এক্ষেত্রে বিএনপি ও খালেদা জিয়ার ভবিষ্যৎ রাজনীতি কি সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, সাম্প্রতিককালে রাজনীতিতে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বহমান। বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধের আদর্শে ধারণ করে তরুণ সমাজ ও নারীরা সবাই মিলে একই দিকে ঝুঁকছে। শেখ হাসিনার মতো একজন আস্তাভাজন সৎ, দক্ষ নেতৃত্ব এটা বাংলাদেশের জন্য মোস্ট ইম্পরট্যান্ট। এই মুক্তিযুদ্ধের দেশে সাম্প্রদায়িক ধারায় ফিরিয়ে নেয়ার রাজনীতি চলবে না। যতোদিন বিএনপি এই সাম্প্রদায়িক জঙ্গিবাদের পৃষ্ঠপোষকতা ছাড়বে না, ততোদিন আন্দোলন ও রাজনীতি সফল হবে না। নেতিবাচক, সাম্প্রদায়িক, জঙ্গিবাদী উগ্রপন্থীরা আন্দোলনে ও নির্বাচনেও সফল হবে না।

সিটি নির্বাচনে বিদ্রোহী কাউন্সিলর প্রার্থী নিয়ে তিনি বলেন, আমাদের অভ্যন্তরীন কিছু দুর্বলতা অবশ্যই আছে। এটা উত্তরণের জন্য মহানগরে ওয়ার্ড, থানায় সম্মেলন করে কমিটি করা হবে। আওয়ামী লীগের সাধারণ ওয়ার্ডে বিজয়ী কাউন্সিলর ৯৮ জন, সংরক্ষিত ৩৪ জন, মোট ১৩২ জন। ১৬ জন বিদ্রোহী কাউন্সিলর বড় কোনো সংখ্যা নয়।

কাদের বলেন, ফেব্রুয়ারির মধ্যে ঢাকা মহানগর উত্তর, দক্ষিণ ও সহযোগী সংগঠনের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। কমিটি দফতরে ও প্রধানমন্ত্রীর কাছে জমা দিতে বলা হয়েছে। আর যেসব জেলার যাদের মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়েছে তাদের এপ্রিলের মধ্যে সম্মেলন শেষ করতে বলা হয়েছে। আগামীকাল বিকেল চারটায় ঢাকা মহানগরের নবনির্বাচিত মেয়র ও ঢাকার এমপিদের সঙ্গে বসা হবে।

মতবিনিময় সভায় উপস্থিত ছিলেন- আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য আব্দুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক, মির্জা আজম, দফতর সম্পাদক বিল্পব বড়ুয়া, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক আব্দুস সবুর, সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক আসীম কুমার উকিল প্রমুখ।


© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!