শনিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২০, ০২:২০ পূর্বাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

গত ২৪ ঘন্টায় পাবনায় ৩ জনের অস্বাভাবিক মৃত্যু

image_pdfimage_print

নিজস্ব প্রতিনিধি : গত ২৪ ঘন্টায় পাবনার দুটি উপজেলায় এক নারীসহ তিন জনের অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে।

ঘটনাগুলি গতকাল শনিবার (৩১ অক্টোবর) রাত ১০টার দিকে ঘটে।

এরমধ্যে দু’টি ঘটনা ঘটেছে পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলায় এবং দু’টি ঘটনাই ঘটেছে পরকিয়ার জের ধরে।

এদিকে পাবনার আটঘরিয়া উপজেলায় ছিনতাইকারীর কবলে পড়ে প্রায় একই সময় এক অটোভ্যান চালকের মৃত্যু হয়েছে।

ছিনতাইকারীদের ছুরিকাঘাতে নিহতের ঘটনায় জড়িত একজনকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে এলাকাবাসী।

আটঘরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসিফ মোহাম্মদ সিদ্দিকুল ইসলাম জানান, শনিবার রাতে চাটমোহর থেকে আটঘরিয়া যাবার কথা বলে তিনজন ছিনতাইকারী একটি অটোভ্যান ভাড়া করে।

পথিমধ্যে আটঘরিয়া উপজেলার ভরতপুর উত্তরপাড়া গ্রামে পৌঁছালে অটোভ্যানে থাকা ছিনতাইকারীরা অটোভ্যানটি ছিনতাইয়ের উদ্দেশ্যে চালক মোবারক হোসেন দুলাল (৩৫) কে ছুরিকাঘাত করে।

এসময় তার চিৎকারে এলাকাবাসী এসে আহত অটোভ্যান চালককে উদ্ধার ও এক ছিনতাইকারীকে আটক করে। অন্যারা পালিয়ে যায়।
আটক ছিনতাইকারী নাসির হোসেন (২৫) চাটমোহর উপজেলার চক উথুলী গ্রামের আব্দুল গফুরের ছেলে।

স্থানীয়রা আহত অটোভ্যান চালককে উদ্ধার করে প্রথমে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে, পরে তার অবস্থার অবনতি হলে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। নিহত ভ্যান চালক মোবারক হোসেন দুলাল আটঘরিয়া উপজেলার নওদাপাড়া গ্রামের মৃত সাদেক আলীর ছেলে।

এদিকে স্বামীর মানিব্যাগে প্রেমিকার ছবি রাখার প্রতিবাদ করায় ঈশ্বরদী উপজেলার সাহাপুর ইউনিয়নের আওতাপাড়ায় স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে স্বামী জাহিদ ও তার পরিবারের লোকদের বিরুদ্ধে।

ঘটনার পর থেকে পালাতক আছে স্বামীসহ পরিবারের লোকজন। নিহত স্ত্রী ঐশি খাতুন ঈশ্বরদী উপজেলার সাহাপুর ইউনিয়নের চর-আওতাপাড়া গ্রামের মাহাবুল আলমের মেয়ে। নিহত ঐশির ৮ মাস বয়সী একটি সন্তান রয়েছে।

নিহত ঐশির মা সাহানারা বেগম জানান, গত বছরের ২৫ জানুয়ারি ঈশ্বরদী উপজেলার ছলিমপুর ইউনিয়নের মানিকনগর গ্রামের হারুনের ছেলে জাহিদের সাথে ঐশির বিয়ে হয়।

বিয়ের কিছুদিন পর ঐশি তার পরিবারকে জানান, তার স্বামী পরকীয়ায় আসক্ত। এ নিয়ে তাদের মধ্যে পারিবারিক কলহ লেগেই থাকত।

সর্বশেষ ঐশি তার স্বামী জাহিদের মানিব্যাগে তার প্রেমিকার ছবি দেখে এর প্রতিবাদ করায় শনিবার রাতে তাকে তকে বেধড়ক মারপিট করে স্বামী জাহিদ।

এ পর্যায় জাহিদ ঐশির পরিবারকে ফোনে খবর দেন ঐশি গলায় ফাঁস দিয়েছে। দ্রুত তার পরিবারের লোকজন গিয়ে বিছানায় ঐশির নিথর দেহ পরে থাকতে দেখে তাকে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ঐশিকে মৃত ঘোষণা করেন।

খবর পেয়ে পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য পাবনা জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।

ঈশ্বরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নাছির উদ্দিন রোববার (০১ নভেম্বর) দুপুরে জানান, এখন পর্যন্ত কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

অপরদিকে পরকীয়া প্রেমের অভিযোগে ইসাহাক আলী (২৮) নামে এক যুবককে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে।

ঘটনাটি ঘটেছে পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলার সাঁড়া ইউনিয়নের সাঁড়াঘাট (ব্ল্যাকপাড়া) এলাকার জয়নাল মোল্লার বাড়িতে।

আমাদের ঈশ্বরদী প্রতিনিধি জানান, এক কথিত পীরের আস্তানায় এক নারীর সঙ্গে পরকীয়া প্রেমের অভিযোগে ইসাহাক আলী (২৮) নামের ওই যুবককে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে।

গতকাল শনিবার (৩১ অক্টোবর) রাত ১০টার দিকে ওই যুবক রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। নিহত ইসাহাক আলী উপজেলার পাকশী ইউনিয়নের সিভিল হাট গ্রামের দুলাল হোসেনের ছেলে।

স্থানীয় এলাকাবাসী ও পারিবারিক সূত্র জানায়, ঈশ্বরদী উপজেলার সাঁড়া ইউনিয়নের সাঁড়াঘাট (ব্ল্যাকপাড়া) এলাকার জয়নাল মোল্লার বাড়িতে প্রায় ৫ বছর পূর্বে নুর নবী মওলাপুরী দরবার শরীফ নামে একটি মাজার প্রতিষ্ঠা করেন জয়নাল মোল্লার জামাতা কথিত পীর হাফিজুল ইসলাম।

সেখানে প্রতি মাসের শেষ বৃহস্পতিবার অথবা শুক্রবার সারা রাতব্যাপী গান বাজনার আসর বসতো।

সেই মাজারের ভক্ত হিসেবেই পাকশী ইউনিয়নের সিভিল হাট গ্রামের দুলাল হোসেনের ছেলে ইসাহক আলী যাতায়াত করতেন।

মাজারে যাতায়াতের এক পর্যায়ে কথিত পীর হাফিজুল ইসলামের শ্যালিকা স্বামী পরিত্যক্তা খালেদা খাতুন কুটিলার (২৬) সাথে প্রেমের সম্পর্ক হয় ইসাহকের।

গত শুক্রবার গভীর রাতে আসর চলাকালে আস্তানার পাশের একটি কক্ষে ইসাহক ও কুটিলাকে একসঙ্গে দেখে ফেলেন কুটিলার ভাই রবিউল মোল্লা।

এসময় সে চিৎকার করলে বড় ভাই বাবু মোল্লাও সেখানে উপস্থিত হন। কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে দুই ভাই বাবু মোল্লা ও রবিউল মোল্লা লোহার রড ও হাতুড়ি দিয়ে ইসাহকের মাথায় এলোপাতাড়ি আঘাত করেন।

এতে তার নাক ও কান দিয়ে প্রচুর রক্তক্ষরণ হলে ইসাহক আলীকে ঘরেই বন্দি করে রাখেন তারা।

শনিবার ভোর রাতে ইসাহক আলীর অবস্থার অবনতি হলে মাইক্রোবাসে করে গোপনে তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় শনিবার রাত ১০টার দিকে ইসাহাক আলীর মৃত্যু হয়।

এলাকাবাসী আরো জানায়, ইসাহাক ও কুটিলা দুই জনই বিবাহিত। ইসহাকের স্ত্রী ও পাঁচ বছরের একটি সন্তান রয়েছে আর কুটিলারও চার বছরের একটি সন্তান রয়েছে। কুটিলার স্বামী প্রায় ৫/৬ বছর আগে কীটনাশক পানে আত্মহত্যা করেন। তারপর থেকে কুটিলা কখনও বাবার বাড়ি কখনও ভগ্নিপতি পীর হাফিজুলের বাড়িতে সময় কাটান।

এ বিষয়ে ঈশ্বরদী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শেখ নাসীর উদ্দীন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ঘটনাটি সত্য। তবে এখনও কেউ অভিযোগ নিয়ে আসেনি। অভিযোগ পেলে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

0
1
fb-share-icon1

Best WordPress themes


© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!