গ্রামীণফোনের ‘আলোর যাত্রা’য় কালরাত স্মরণ

বাঙালির স্বাধীনতার ইতিহাসে অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ ২৫ মার্চের কালরাত স্মরণ করে শোককে সামনে এগিয়ে যাবার শক্তিতে পরিণত করার উদ্দেশ্যে শীর্ষ মোবাইল ফোন অপারেটর কোম্পানি গ্রামীণফোন অভিনব এক উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।

ওই রাতে গ্রামীণফোন পালন করবে ‘আলোর যাত্রা’ কর্মসূচি।

রাজধানীর মানিক মিয়া অ্যাভিনিউতে ২৫ মার্চ রাত সাড়ে ১০টায় মোমবাতি প্রজ্জ্বলনের মধ্যদিয়ে ‘আলোর যাত্রা’ শুরু হবে বলে বৃহস্পতিবার (২৪ মার্চ) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে গ্রামীণফোন।

অন্ধকার পেরিয়ে আলোর জয়োৎসবে আলোর প্রদীপ হাতে ওই কর্মসূচিতে অংশ নিতে যাচ্ছেন দেশের সব স্বনামধন্য ব্যক্তি, সরকারি উচ্চ পদস্থকর্মকর্তা, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব, গ্রামীণফোনের সব কর্মকর্তা- কর্মচারী ও লক্ষাধিক সাধারণ মানুষ।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গত ৪৪ বছরে সব বাধার বিপরীতে বিশ্বের বুকে বাংলাদেশ অর্থনৈতিকভাবে এগিয়ে গেছে। সমৃদ্ধ জাতিতে পরিণত হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। সেই সম্ভ‍াবনা বাস্তবায়ন করতে বাঙালিদের হৃদয়ে স্বাধীনতার চেতনাকে জাগিয়ে রাখতে হবে। আমাদের বহুদূরের যাত্রায় স্বাধীনতার এ প্রজ্জ্বলন অনুপ্রেরণা হিসেবে কাজ করবে। এটাই হবে এ উদ্যোগের মূলবার্তা।

পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর নিষ্ঠুর বর্বরতার স্বাক্ষী একাত্তরের ২৫ মার্চ কালরাত। ওই রাতে ঘুমন্ত নিরীহ বাঙালির ওপর বর্বর হামলা চালিয়ে নৃশংসভাবে অগণিত মানুষকে হত্যা করেছে তারা। পরবর্তী তাদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ায় বাঙালি জাতি। অতঃপর নয় মাসের রক্তক্ষয় যুদ্ধের মাধ্যমে বাঙালিরা স্বাধীনতা অর্জন করে।

কালরাত স্মরণে ‘আলোর যাত্রা’ কর্মসূচিতে অংশ নিতে সবাইকে আহ্বান জানিয়েছে গ্রামীণফোন।