মঙ্গলবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২১, ০৮:১৪ অপরাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দরে ৭ নম্বর বিপদ সংকেত

image_pdfimage_print
ঘূর্ণিঝড় রোয়ানু

ঘূর্ণিঝড় রোয়ানু

ঢাকা অফিস:  সময় যত যাচ্ছে ততই উপকূলের দিকে এগিয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় ‘রোয়ানু’। ঘূর্ণিঝড়টি গত ২৪ ঘণ্টায় অন্তত ২৫০ কিলোমিটার এগিয়েছে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

ঘূর্ণিঝড়ের আশঙ্কায় চট্টগ্রাম বন্দরকে ৭ নম্বর, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দরকে ৬ নম্বর এবং মংলা ও পায়রা বন্দরকে ৫ নম্বর বিপদ সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

আবহাওয়া কার্যালয় থেকে শুক্রবার বিকেলে এ সতর্কবার্তা দেখাতে বলা হয়।

পাশাপাশি চট্টগ্রাম বন্দরের নৌযানগুলোতে রাত ৮টার আগেই নিরাপদ স্থানে সরে যেতে নির্দেশ দিয়েছে আবহাওয়া অফিস।

ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে কক্সবাজার উপকূলে সকাল থেকে বৃষ্টি শুরু হয়েছে এবং সাগর ও উপকূলীয় এলাকায় জোয়ারের পানি স্বাভাবিকের চেয়ে বেড়েছে।

এদিকে রোয়ানুর প্রভাবে উপকূলীয় জেলা পটুয়াখালী, বরগুনা, বাগেরহাট, ভোলা, নোয়াখালী, সাতক্ষীরা ও খুলনার আকাশ মেঘলা রয়েছে। এসব এলাকায় থেমে থেমে মাঝারি ধরনের বৃষ্টিপাত অব্যাহত রয়েছে বলে নতুন বার্তার প্রতিনিধিরা জানিয়েছেন।

পূর্বের সংবাদ

ঘূর্ণিঝড় রোয়ানু : সমুদ্র্র্রে ৪ নম্বর হুঁশিয়ারি সংকেত 

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় ‘রোয়ানু’ ক্রমেই উপকূলের দিকে অগ্রসর হচ্ছে। ঘূর্ণিঝড়টি গত ২৪ ঘণ্টায় অন্তত আড়াইশ’ কিলোমিটার এগিয়েছে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

আবহাওয়া অধিদপ্তর বৃহস্পতিবার চার সমুদ্রবন্দরে ‘২ নম্বর দূরবর্তী হুঁশিয়ারি সংকেত’ দেখাতে বললেও এখন ‘৪ নম্বর স্থানীয় হুঁশিয়ারি সংকেত’
দেখাতে বলেছে।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়ের সচিব শাহ কামাল বলেন, ঘুর্ণিঝড়টি এখনও দুর্বল হয়নি। আবহাওয়া অধিদপ্তর ৭ নম্বর বিপদ সংকেত দেখালে তারা স্থানীয়দের সরিয়ে নেবেন।

‘৭ নম্বর বিপদ সংকেত’র অর্থ জানতে চাইলে আবহাওয়া অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা বলেন, বন্দরসমুহ ছোট বা মাঝারী তীব্রতার ঝঞ্জাবহুল এক সামুদ্রিক ঝড়ের কবলে নিপতিত। ঝড়ে বাতাসের সর্বোচ্চ একটানা গতিবেগ ঘণ্টায় ৬২-৮৮ কিমি। ঝড়টি বন্দরের উপর বা নিকট দিয়ে উপকূল অতিক্রম করতে পারে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর জানায়, রোয়ানু’র কারণে ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৫৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ৬২ কিলিমিটার যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ৮৮ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। ঘুর্ণিঝড় কেন্দ্রের নিকটবর্তী এলাকায় সাগর খুবই উত্তাল রয়েছে।

প্রস্তুতি হিসেবে আবহাওয়া অফিস উত্তর বঙ্গোপসাগর ও গভীর সাগরে অবস্থানরত সকল মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে উপকূলের কাছাকাছি থাকতে বলেছে। যাতে তারা স্বল্প সময়ের নির্দেশে নিরাপদ আশ্রয়ে যেতে পারে। সেই সঙ্গে তাদেরকে গভীর সাগরে বিচরণ না করতে বলা হয়েছে। কারণ এটি উপকূলে অগ্রসর হলে আরও শক্তি সঞ্চয় করবে।

0
1
fb-share-icon1

Best WordPress themes


© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!