সোমবার, ২৫ মে ২০২০, ১০:৪৮ পূর্বাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

চাটমোহরে আবারও চক্ষু চিকিৎসার নামে প্রতারণা- লাখ টাকা জরিমানা

স্টাফ রিপোর্টার : পাবনার চাটমোহরে চক্ষু ক্যাম্প চলাকালে মোহাম্মদ আলী (বিএমডিসি রেজিঃনং ৬৪০২০) নামক এক চিকিৎসককে এক লাখ টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যজিস্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সরকার অসীম কুমার।

ডাঃ মোহাম্মদ আলী নাটোর জেলার গুরুদাসপুর উপজেলার চাঁচকৈড় বাজারের আনোয়ার হোসেনের ছেলে।

আজ বৃহস্পতিবার (২৫ এপ্রিল) দুপুরে উপজেলার বিলচলন ইউনিয়নের বোঁথর গ্রামের বিলচলন ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, ডাঃ মোহাম্মদ আলীর মালিকানাধীন নাটোরের গুরুদাসপুরের চাঁচকৈড় বাজার এলাকায় অবস্থিত অনুমোদনবিহীন আনোয়ার হোসেন চক্ষু ও জেনারেল হাসপাতালের আয়োজনে বৃহস্পতিবার বিলচলন ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ে মাত্র ত্রিশ টাকা ফি নিয়ে চক্ষু মেডিকেল ক্যাম্প অনুষ্ঠিত হবে মর্মে গত বুধবার মাইকিং করা হয় ও লিফলেট বিতরণ করা হয়।

ডাঃ মোহাম্মদ আলী (এমবিবিএস, সিসিডি, ডিএমইউ, ডিও-চক্ষু রোগ বিশেষজ্ঞ ও সার্জন ইসলামিয়া চক্ষু হাসপাতাল ঢাকা-ডায়াবেটিক রোগ বিশেষজ্ঞ, বার্ডেম ঢাকা) এবং মনজুরুল ইসলাম মাসুম (এম.এল.ওপি.বি.এন.এস.বি সিরাজগঞ্জ চক্ষু হাসপাতাল ডি.ও.এল.ভি, ইউ.ওব.সাউথ এশিয়া (ঢাকা) চিকিৎসা সেবা প্রদান করবেন বলে লিফলেটে জানানো হয়।

বৃহস্পতিবার ডাঃ মোহাম্মদ আলীর ক্লিনিকে কর্মরত মনজুরুল ইসলাম এ ক্যাম্পে না আসলেও ডাঃ মোহাম্মদ আলী ক্যাম্পে রোগি দেখা শুরু করেন এবং অনেক রোগির নিকট থেকে অতিরিক্ত চার-পাঁচশত করে টাকা আদায় করেন।

এলাকাবাসীর সন্দেহ হলে তারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, সহকারি কমিশনার ভূমি ও থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে বিষয়টি অবহিত করলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ভ্রাম্যমান আদালত বসান।

এ সময় সহকারি কমিশনার (ভূমি) ইকতেখারুল ইসলাম, চাটমোহর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃপ কর্মকর্তা ডাঃ সবিজুর রহমান ও থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সেখ নাসির উদ্দিন উপস্থিত ছিলেন।

ভ্রাম্যমান আদালত সূত্রে জানা গেছে, ভূয়া প্রচারণা, বেআইনী চক্ষু ক্যাম্প স্থাপন, বিশেষজ্ঞ না হয়েও লিফলেটে বিশেষজ্ঞ কথা ব্যবহার করা, তিনি যেসকল হাসপাতালে কর্মরত নন, সে সকল হাসপাতালের নাম ব্যবহার করে প্রচারণা চালানো ও অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের কথা স্বীকার করায় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০১০ অনুযায়ী তাকে এক লাখ টাকা জরিমানা অনাদায়ে এক মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ডাদেশ দেওয়া হয় এবং রোগিদের টাকা ফেরত দেয়া হয়।

তিনি সারা দেশের আর কোথাও অনুমোদন বিহীন চক্ষু ক্যাম্প করবেন না বলে মুচলেকাও দেন। এরপরে জরিমানার টাকায় তিনি মুক্ত হন।

এ ব্যাপারে ঢাকার ইসলামিয়া চক্ষু হাসপাতালের পরিচালক নজরুল ইসলাম জানান, ডাঃ মোহাম্মদ আলী আমাদের হাসপাতালের চিকিৎসক নন। তিনি আমাদের হাসপাতালের নাম ব্যবহার করে রোগিদের সাথে প্রতারণা করছেন।

উল্লেখ্য, মাত্র এক সপ্তাহ আগে গত বৃহস্পতিবার (১১ এপ্রিল) দুপুরে পাবনার চাটমোহরের বিলচলন ইউনিয়নের উত্তরসেনগ্রাম উচ্চ বিদ্যালয়ে একই ধরণের চক্ষু ক্যাম্প চলাকালে ডাঃ মোহাম্মদ আলীর সহকারী ডাঃ মোঃ মনজুরুল ইসলাম (মাসুম) কে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করে ভ্রাম্যমান আদালত।

ওই সময় নাটোরের গুরুদাসপুরের আনোয়ার হোসেন চক্ষু ও জেনারেল হাসপাতালের আয়োজনে উত্তরসেনগ্রাম উচ্চ বিদ্যালয়ে চক্ষু মেডিকেল ক্যাম্প অনুষ্ঠিত হবে মর্মে কয়েক দিন যাবত মাইকে এইরকম প্রচার চালানো হয় ও লিফলেট বিতরণ করা হয়।
তবে সেদিন ডাঃ মোহাম্মদ আলী অনুপস্থিত থাকায় ডাঃ মোহাম্মদ আলীর প্যাডে নিজের স্বাক্ষর দিয়ে প্রেসক্রিপশন করেন ভুয়া ডাঃ মোঃ মনজুরুল ইসলাম (মাসুম)।

স্থানীয়রা এ ঘটনা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সরকার অসীম কুমার ও থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সেখ মোঃ নাসীর উদ্দিনকে অবহিত করলে ভূয়া ডাঃ মোঃ মনজুরুল ইসলামকে থানা হেফাজতে নিয়ে আসা হয়।

রাতে সহকারী কমিশনার ভূমি ইকতেখারুল ইসলাম ভূয়া ডাঃ মোঃ মনজুরুল ইসলামকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেন। একই ঘটনা দ্বিতীয়বার ঘটলো চাটমোহরেই।

error20
fb-share-icon0
Tweet 10
fb-share-icon20


© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
Wordpress Social Share Plugin powered by Ultimatelysocial
error: Content is protected !!