চাটমোহরে জমে উঠছে ঈদ বাজার

জাহাঙ্গীর আলম, চাটমোহর থেকে : পাবনার চাটমোহর পৌর শহরে জমে উঠছে ঈদ বাজার। সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত কেনাকাটায় ব্যস্ত ক্রেতারা। বিভিন্ন মার্কেট, বিপণী বিতান, শপিংমল ও হকার্সপট্টিতে কেনাকাটায় ব্যস্ত সময় পার করছেন ক্রেতারা। চাটমোহর থানার প্রাচীর সংলগ্ন অস্থায়ী দোকানগুলোতেও ভীড় লক্ষণীয়।

ঈদ উদযাপনের লক্ষ্যে নারী, পুরুষ, শিশু-কিশোরসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ কিনছেন তাদের পছন্দসই সামগ্রী। ক্রেতারা মূলত পোশাক সামগ্রী, প্রসাধনী ও জুতো কিনছেন। সকাল থেকে আসা ক্রেতাদের ভিড়ে শহরে সৃষ্টি হয় যানজটের। ক্রয়-বিক্রয় চলছে গভীর রাত পর্যন্ত।

থানার প্রাচীর সংলগ্ন অস্থায়ী দোকানপাটের কারণে রাস্তা সংকুচিত হয়ে অহরহ সৃষ্টি হচ্ছে যানজটের। দোকান মালিকরা জানান, পাঁচ-সাত দিন ধরে কেনাকাটা ভালই চলছে।

দেশীয় শাড়ির মধ্যে সিল্ক, কাতান ও টাঙ্গাইলের শাড়ির চাহিদার পাশাপাশি লেহেঙ্গা পোশাক কেনার জন্য হুমড়ি খেয়ে পড়ছেন ক্রেতারা। বিভিন্ন মাপের গার্মেন্টস পোশাক বিক্রি হচ্ছে এক হাজার থেকে পাঁচ হাজার টাকা পর্যন্ত। তবে এবার দেশী পোষাকের চাহিদা সবচেয়ে বেশী বলে জানালেন মির্জা মার্কেটের বস টেইলার্সের মালিক অজয় কুন্ডু।

মিনার বস্ত্র বিতানের মালিক রবিউল করিম বলেন, আগের চেয়ে এবার কাপড়ের কোয়ালিটি অনেক ভাল সে কারণে দাম একটু বেশি। থ্রি পীচ সাতশ’ থেকে দুই হাজার টাকার কাপড় বেশি বিক্রি হচ্ছে বলে জানান তিনি। সিট কাপড়ের চাহিদাও বেড়েছে।

জেএস মার্কেটের বিল্পব হোসেন, সদর আলীসহ কয়েকজন ব্যবসায়ী বললেন, ক্রেতারা তাদের সাধ ও সাধ্যের মধ্যে সমন্বয় করে কেনাকাটা করছেন। তবে ভারতীয় পোশাকের চাহিদা এবার কম। পাঁচশ টাকা পিচ থেকে শুরু করে দুই হাজার টাকার মধ্যে বেশি বিক্রি হচ্ছে। বাজারে দেশি পোশাকেরই চাহিদা বেশি বলে জানা গেছে। দামও গতবারের মতো রয়েছে।

রাস্তার পাশের ছোট দোকানগুলো থেকে কেনাকাটা করছেন নিম্ন ও মধ্যবিত্ত আয়ের ক্রেতারা। কাপড়ের দোকানের পাশাপাশি জুতার ও কসমেটিক্স্ দোকানগুলোতেও ক্রেতা সমাগম লক্ষ্য করা গেছে। জুতার দোকানগুলো ক্রেতা আকর্ষণ বাড়াতে ১০ থেকে ২০% পর্যন্ত ছাড় দিয়েছে ঈদ উপলক্ষে।

ঈদের কেনাকাটা সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে পর্যাপ্ত নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে মার্কেটগুলোতে। এতে খুশি বলে জানালেন ব্যবসায়ীরা।

মার্কেটগুলোতে নতুন কালেকশন আর নতুন ফ্যাশনের সঙ্গে আপডেট রাখতে দোকানদাররা যেমন ব্যস্ত তেমনি পছন্দের কালেকশনটি সবার আগে লুফে নিতে ক্রেতারাও মরিয়া হয়ে উঠেছেন। ক্রেতাদের পদচারণায় মুখরিত হয়েছে পৌর এলাকার মার্কেটগুলো। এসব মার্কেটগুলোতে বেচাকেনার ভিড় দেখা যাচ্ছে সব বয়সী মানুষের।

বিশেষ করে নারী ক্রেতার সংখ্যাই এবার বেশি। সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত চলছে বিকিকিনি। শুধু কসমেটিকস নয়, স্বর্ণের দোকানেও উচ্চ বিত্তদের ভীড় লক্ষ্যনীয়।

শুধু পৌর শহরই নয়, ভীড় বেড়েছে গ্রামাঞ্চলের হাট-বাজারেও। বিশেষ করে হান্ডিয়াল, রেলবাজার ও শরৎগঞ্জ বাজারে ঈদের বাজার জমজমাট। সব মিলিয়ে জমে উঠেছে চাটমোহরের ঈদ বাজার।