শনিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২১, ০৫:০৩ পূর্বাহ্ন

চাটমোহরে নির্বাচনী সহিংসতায় প্রার্থীসহ আহত ২০

মোঃ নূরুল ইসলাম, চাটমোহর, পাবনা : পাবনার চাটমোহরে ৩টি ইউনিয়নে আলাদা নির্বাচনী সহিংসতায় স্বতন্ত্র এক চেয়ারম্যান প্রার্থীসহ অন্তত ২০ জন আহত হয়েছেন। ভাঙ্গচুর করা হয়েছে প্রতিপক্ষের নির্বাচনী অফিস ও একাধিক মোটরসাইকেল।

২৩ নভেম্বর মঙ্গলবার সন্ধ্যায় উপজেলার গুনাইগাছা, হরিপুর ও পার্শ্বডাঙ্গাা ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থী ও বিদ্রোহী প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে হামলা-ভাঙ্গচুরের ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে ৩ জনকে আটক ও ২টি মোটরসাইকেল জব্দ করেন।

স্থানীয় বাসিন্দা ও পুলিশ সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার গুনাইগাছা ইউনিয়নে বিদ্রোহী প্রার্থী মোঃ রজব আলী বাবলুর নির্বাচনী প্রচারণায় বাধা দেওয়া ছাড়াও দোকানপাটে হামলা ও ভাঙ্গচুরের অভিযোগ উঠেছে নৌকার প্রার্থী মোঃ নুরুল ইসলামের সমর্থকদের বিরুদ্ধে।
মঙ্গলবার সন্ধ্যায় আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী স্বতন্ত্র (আনারস) চেয়ারম্যান প্রার্থীসহ অন্যরা গ্রামের মধ্যে ও স্থানীয় বাজারে নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছিলেন। এ সময় ১৫/২০টি মোটরসাইকেল যোগে হেলমেট পরিহিত যুবকরা দেশীয় অস্ত্র নিয়ে অতর্কিত হামলা চালায়। তারা চেয়ারম্যান প্রার্থী রজব আলী বাবলুকে মারধর করে এবং জীবননগর ও চরপাড়া বাজারে আনারস প্রার্থীর সমর্থকদের দোকান ভাঙ্গচুর ও মারপিট করে। এ সময় লোকজন বেরিয়ে এলে হামলাকারীরা দ্রুত পালিয়ে যায়। চরপাড়ায় রায়হান ও সোলেমানের দোকান ভাঙ্গচুর করা হয়েছে।

এ ঘটনায় বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী রজব আলীসহ আহত হয়েছেন অন্তত ১০ জন। ৮ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করেন। এ ঘটনায় ৩ জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে পুলিশ। জব্দ করা হয়েছে ২টি মোটরসাইকেল।

আহতরা হলেন, বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থী (আনারস) মোঃ রজব আলী বাবলু (৫৫), চরপাড়া গ্রামের রায়হান আলী (৩০), জালেশ্বর গ্রামের বাবু হোসেন (৩০), চরপাড়া গ্রামের মনসুর আলী (৩৫), সাইফুল ইসলাম (২০), আলাল হোসেন (৪৫), আক্কাস বিশ্বাস (৫৫), বড়শালিখা গ্রামের রজব আলী (৫৮) ও গুনাইগাছা গ্রামের ইসরাইল হোসেন (৫৬)।

চেয়ারম্যান প্রার্থী মোঃ রজব আলী বাবলু অভিযোগ করে বলেন, আমার সমর্থকদের নিয়ে ভোট চাইতে গেলে নৌকার লোকজন আমার উপর হামলা চালায়। তারা দেশীয় অস্ত্র নিয়ে আমাকে হত্যার উদ্দেশে হামলা করে। এ সময় আমার অনেক সমর্থক আহত হয়।
চরপাড়ায় আমার সমর্থকদের দোকানপাট ভাঙ্গচুর করেছে। তিনি আরো বলেন, নৌকার প্রার্থী নির্বাচনে হেরে যাওয়ায় আশঙ্কায় হামলা ও ভাঙ্গচুরের পথ বেছে নিয়েছেন। আমাকে বিভিন্নভাবে সময়ে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে যাচ্ছে। সুষ্ঠু ভোট নিয়ে আমি শঙ্কার মধ্যে আছি।

তবে নৌকার প্রার্থী মোঃ নুরুল ইসলাম হামলার বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, আমার লোকজন হামলা করেনি। অন্য কেউ হয়তো বিদ্রোহী প্রার্থীর লোকজনের উপর হামলা করেছে। তিনি উল্টো দাবি করেন, নৌকার কর্মীদের মারপিট করা হয়েছে।

এদিকে একইদিন রাত ৮টার দিকে উপজেলার হরিপুর ইউনিয়নের হরিপুর ও চড়ইকোল বাজারে প্রতিদ্বন্দি দুই প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, হামলা, মারপিট ও ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে। ছুরিকাঘাতে ৩ জনসহ উভয় পক্ষের অন্ততঃ ১৫ জন আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে ১০ জনকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এ সময় স্বতন্ত্র প্রার্থীর ২টি নির্বাচনী অফিস ও ৫টি মোটরসাইকেলও ভাংচুর করা হয়েছে। এ নিয়ে উভয় প্রার্থীর কাছ থেকে পরস্পর বিরোধী বক্তব্য পাওয়া গেছে।

নৌকার প্রার্থী মোঃ মকবুল হোসেন দাবি করেন ,তার কর্মীরা ভোট চাইতে বের হলে হরিপুর বাজারে আনারসের অফিস থেকে হামলা চালানো হয়। এ সময় হামলাকারীদের ছুরিকাঘাতে ৩ জনসহ অন্তত ১০ জন আহত হন। স্বতন্ত্র প্রার্থীর কর্মীদের হাতে নানা রকম ধারালো অস্ত্র ছিল। নৌকার আহত কর্মীদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

তবে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী প্রভাষক মোঃ আফজাল হোসেন বলেন, নৌকার কর্মী-সমর্থকরা পরিকল্পিতভাবে আমার ২টি নির্বাচনী অফিসে হামলা চালিয়ে ভাঙ্গচুর করে। ৫টি মোটর সাইকেল ভাঙ্গচুর করা হয়েছে। নৌকার লোকজনের হামলায় আমার ৩/৪ জন কর্মী আহত হয়েছেন। তাদের হাসপাতালে নিতে পারছি না। তিনি বলেন, নৌকার প্রার্থী নির্বাচনে হেরে যাওয়ায় আশঙ্কায় হামলা ও ভঙ্গচুরের পথ বেছে নিয়েছে। এদিকে ওই ইউনিয়নের চড়ইকোল বাজারেও দুই পক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টাা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।

সহকারী পুলিশ সুপার (চাটমোহর সার্কেল) সজীব শাহরিন ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সৈকত ইসলাম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলেছেন।

চাটমোহর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মদ আনোয়ার হোসেন বলেন, হামলা ও মারপিটের খবর পেয়েই পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। এ ঘটনায় কয়েকজনকে হাসপাতালে ভর্তির কথা শুনেছি। এলাকায় পুলিশ রয়েছে, পরিস্থিতি বর্তমানে নিয়ন্ত্রণে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৩ জনকে আটক করা হয়েছে। ২টি মোটরসাইকেল জব্দ করা হয়েছে। আইনগত ব্যরস্থা নেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে। আগামী ২৮ নভেম্বর চাটমোহর উপজেলার ১১টি ইউনিয়নে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

0
1
fb-share-icon1


© All rights reserved 2021 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
x
error: Content is protected !!