রবিবার, ২৯ নভেম্বর ২০২০, ০২:০০ পূর্বাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

চাটমোহরে নিহতের ঘটনায় পুলিশী বাণিজ্য জমজমাট

২৩ এপ্রিল ভোট কেন্দ্রে হাঙ্গামার ছবি

image_pdfimage_print
২৩ এপ্রিল ভোট কেন্দ্রে হাঙ্গামার ছবি

২৩ এপ্রিল ভোট কেন্দ্রে হাঙ্গামার ছবি

জাহাঙ্গীর আলম, চাটমোহর (পাবনা) : পাবনার চাটমোহর উপজেলার বাহাদুরপুর গ্রামের সাধারণ মানুষ এখন চরম আতংকে রয়েছেন। ভোট কেন্দ্রে বিজিবির গুলিতে একজন নিহতের ঘটনায় ৮’শ গ্রামবাসী বিরুদ্ধে মামলা হওয়ার পর থেকেই আতংকে রয়েছেন এলাকাবাসী।

পুলিশী হয়রানীর ভয়ে গ্রাম ছেড়ে অন্যত্র অবস্থান করছেন অনেকেই। পুলিশ রাতে গিয়ে বিভিন্ন বাড়িতে হানা দিচ্ছে। পাশাপাশি ধরে নিয়ে যাওয়ার ভয় দেখিয়ে বাড়ি বাড়ি থেকে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

বাহাদুরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে সরকারি কাজে বাধাদানের অভিযোগে দায়ের করা মামলায় পুলিশ সোমবার এক জনকে আটক করেছে। আটককৃত হলো বাহাদুরপুর গ্রামের কেরামত আলীর ছেলে বিপ্লব হোসেন (৪৫)।

মামলা দায়েরের পর থেকেই বাহাদুরপুর ও মথুরাপুর এলাকার সাধারণ মানুষ চরম আতংকে রয়েছে। অভিযোগ উঠেছে পুলিশী হয়রানির শিকার হচ্ছেন সাধারণ মানুষ। অজ্ঞাতনামা ৮ শতাধিক ব্যক্তির নামে মামলা হওয়ায় পুলিশ যাকে তাকে আটকের জন্য অভিযান চালাচ্ছে।

ফলে সাধারণ মানুষ এখন পুলিশী ভয়ে আতংকিত। একটি সুবিধাবাদী চক্র পুলিশের হাত থেকে বাঁচানোর বানিজ্য শুরু করেছে বলে একাধিক সূত্র নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান। এছাড়া মামলার বাদী ওই ভোট কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার জনস্বাস্থ্য বিভাগের উপ-সহকারী প্রকৌশলী আলমগীর হোসেন রয়েছেন শংকায়। গত মঙ্গলবার তিনি শংকার কথা জানান।

নানাজন টেলিফোন করে মামলার বিষয়ে তাকে জিজ্ঞাসা করছে বলে তিনি জানালেন। তিনি শংকিত তার জীবন ও চলাফেরা নিয়ে।

তিনি জানালেন, মামলায় সাধারণ মানুষকে হয়রানী করা হবে চরম অন্যায়। মাত্র কয়েকজন এ ঘটনার সাথে জড়িত ছিল। গত ২৩ এপ্রিল শনিবারে ভোট কেন্দ্রে সংঘটিত ঘটনায় প্রিজাইডিং অফিসার আলমগীর হোসেন বাদী হয়ে ৪ জনকে নামীক আসামীসহ ৮ শতাধিক ব্যক্তির বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন। অজ্ঞাতনামা আসামী হিসেবে বিপ্লবকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

এদিন বিজিবির গুলিতে নিহত হন অতি দরিদ্র তালা-চাবি মেরামতকারী ইমদাদ হোসেন ইদ্দি (৬০)। বিজিবির এক সদস্যসহ কয়েকজন আহত হন। এই হত্যাকান্ডের ব্যাপারে কোন মামলা করা হয়নি।

এ ব্যাপারে চাটমোহর থানার ওসি সুব্রত কুমার সরকার জানান, প্রকৃত দোষীরাই কেবল আইনের আওতায় আসবে।

সাধারণ মানুষ যাতে হয়রানীর শিকার না হয়, সেজন্য পুলিশ তৎপর। সাধারণ মানুষের নিরাপত্তার বিষয়ে পুলিশ সচেতন। নিরাপরাধ কোন ব্যক্তি হয়রানির শিকার হবে না।

0
1
fb-share-icon1

Best WordPress themes


© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!