রবিবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২১, ০৬:০৯ অপরাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

চাটমোহরে প্রেমিকার বাড়িতে স্ত্রীকে মারপিটের অভিযোগ

image_pdfimage_print

স্টাফ রিপোর্টার : পাবনার চাটমোহরে স্ত্রীকে রেখে অন্য নারীর সাথে অবৈধ সম্পর্ক গড়ে তোলার প্রতিবাদ করায় কথিত প্রেমিকার বাড়িতে স্ত্রীকে মারপিট করা হয়েছে মর্মে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার (২৫ অক্টোবর) উপজেলার হরিপুর ইউনিয়নের হরিপুর মৃধাপাড়া গ্রামে।

মারপিটের শিকার কুষ্টিয়া জেলার মিরপুর উপজেলার কালিনাথপুর গ্রামের মোঃ বদর উদ্দিনের মেয়ে নাহিদা আকতার হিরা অভিযোগ করেন তার স্বামী পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলার পাকশী বাঘইল পুর্বপাড়া গ্রামের আবুর হোসেনের ছেলে আবু সাঈদ পাবনায় একটি এনজিওতে চাকুরি করতো।

একই এনজিওতে কর্মরত পাবনার চাটমোহর উপজেলার হরিপুর মৃধাপাড়া গ্রামের আঃ কুদ্দুসের মেয়ে লতা খাতুনের সাথে অবৈধ সম্পর্ক গড়ে তোলে। তারা স্বামী-স্ত্রীর মতেই চলাফেরা করতো।

বিষয়টি জানতে পেরে আবু সাঈদের স্ত্রী নাহিদা আকতার হিরা স্বামীকে লতার সাথে সম্পর্ক না করার জন্য বলেন।

এতে আবু সাঈদ ক্ষিপ্ত হয়ে নাহিদা আকতারকে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করতে থাকে। এরই একপর্যায়ে গত শুক্রবার নাহিদা আকতার হিরা জানতে পারেন তার স্বামী আবু সাঈদ হরিপুর মৃধাপাড়া গ্রামে লতার পিতার বাড়িতে অবস্থান করছে।

নাহিদা তার পিতা বদর উদ্দিনকে সাথে নিয়ে হরিপুর ইউনিয়ন পরিষদে গিয়ে ইউপি চেয়ারম্যানের কাছে গিয়ে ঘটনাটি বলেন।

তারা লতার পিতার বাড়িতে গিয়ে আবু সাঈদ ও লতাকে হাতেনাতে ধরেন। এ সময় ক্ষিপ্ত হয়ে আবু সাঈদ ও লতাসহ অন্যরা নাহিদা আকতারকে মারপিট করে।

ইউপি চেয়ারম্যান চৌাকদার পাঠিয়ে আবু সাঈদ ও লতাকে ধরে আনেন।
চেয়ারম্যানকে তারা জানান, তাদের মধ্যে বিয়ে হয়েছে, তারা স্বামী স্ত্রী। এ ছাড়া নাহিদাকে আবু সাঈদ তালাক দিয়েছে। কিন্তু বিয়ে করা বা তালাক দেওয়ার সপক্ষে কোন কাগজপত্র দেখাতে পারেনি সে।

ইউপি চেয়ারম্যান নাহিদা আকতার ও তার পিতাকে আইনের আশ্রয় নেওয়ার পরামর্শ দিয়ে আবু সাঈদ ও লতাকে ছেড়ে দেন।

নিরুপায় হয়ে নাহিদা আকতার হিরা চাটমোহর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। এ ছাড়া শনিবার (২৬ অক্টোবর) চাটমোহরের সাংবাদিকদের কাছেও লিখিত অভিযোগ দেন।

এ ব্যাপারে হরিপুর ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ মকবুল হোসেন জানান, বিষয়টি জানার পর আমি চৌকিদার পাঠিয়ে ওদের নিয়ে আসি। তারা বিয়ে করেছে বলে জানালে আমি ছেড়ে দেই। তিনি বলেন, ছেলেটা বলেছে, সে নাকি তার স্ত্রীকে তালাক দিয়েছে। আমি আইনের আশ্রয় নিতে বলেছি।

নাহিদা আকতার হিরা জানান, আমাকে তালাক দিয়েছে কিনা জানিনা। কোন কাগজপত্র পাইনি। আমি অবৈধ সম্পর্কের প্রতিবাদ করায় আমাকে নির্যাতন করা হয়েছে। তিনি বলেন আমি থানায় ও ওই এনজিওর নির্বাহী পরিচালকের কাছেও অভিযোগ দিয়েছি।

অভিযুক্ত আবু সাঈদের সাথে কথা বলার জন্য তার ব্যবহৃত মোবাইল নস্বরে কয়েক বার ফোন দেওয়া হলেও তিনি তা রিসিভ করেননি।

থানার সাব ইন্সপেক্টর নাসির উদ্দিন জানান, নাহিদা আকতার একটি অভিযোগ দিয়েছে। ওসি স্যারের সাথে কথা বলে পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

0
1
fb-share-icon1

Best WordPress themes


© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!