বৃহস্পতিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২০, ০১:১৮ পূর্বাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

চাটমোহরে স্ত্রীর হাত পুড়িয়ে দিয়েছে পাষন্ড স্বামী

নির্যাতনের শিকার গৃহবধূ আঁখি খাতুন

image_pdfimage_print
নির্যাতনের শিকার গৃহবধূ আঁখি খাতুন

নির্যাতনের শিকার গৃহবধূ আঁখি খাতুন

জাহাঙ্গীর আলম (চাটমোহর) পাবনা : চাটমোহরে স্ত্রীকে ঘরে আটকিয়ে মারপিটের পর কড়াইয়ের ছ্যাকা দিয়ে স্ত্রী’র বাম হাত পুড়িয়ে দগ্ধ করে দু’দিন ধরে ঘরে তালাবদ্ধ করে রাখে তার পাষন্ড স্বামী হযরত আলী।

বুধবার বিকেলে ঘরের তালা খোলা পেয়ে পাষন্ড স্বামীর হাত থেকে পালিয়ে নানার বাড়িতে গিয়ে আশ্রয় নেয় নির্যাতনের শিকার গৃহবধূ আঁখি খাতুন।

জানা যায়, উপজেলার হরিপুর ইউনিয়নের ধূলাউড়ি কুঠিপাড়া গ্রামের লুৎফর রহমানের ছেলে হযরত আলীর সাথে সোন্দভা গ্রামের আলম হোসেনের মেয়ে আঁখি খাতুন (১৮) ভালবেসে বিয়ে করে দুই বছর আগে।

কিন্তু অভিভাবকের অমতে বিয়ে করায় এবং যৌতুক নিতে না পারায় আঁখির উপর নেমে আসে নির্যাতন। স্বামী-শ্বাশুড়ী বিয়ের ৫/৬ মাস পর থেকে গৃহবধু আঁখির উপর নানা অজুহাতে মারপিট করতো। গত মঙ্গলবার সকালে রান্না দেরী হওয়ার তুচ্ছ কারণ দেখিয়ে স্বামী হযরত আলী প্রথমে আঁখিকে মারপিট করে এবং পরে পাশে থাকা গরম কড়াইয়ের সাথে তার হাত চেপে ধরে। এতে আঁখির বাম হাত দগ্ধ হয়।

এখানেই ক্ষান্ত না হয়ে পাষন্ড স্বামী তাকে ঘরে দু’দিন ধরে তালাবদ্ধ করে রাখে। পরে বুধবার বিকেলে ঘরের তালা খোলা পেয়ে সবার অগোচরে স্বামীর বাড়ি থেকে পালিয়ে নানার বাড়িতে গিয়ে আশ্রয় নেয় আঁখি। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে বৃহস্পতিবার সকালে আঁখিকে তার নানা সাবান আলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন।

হাসপাতালে যন্ত্রণা কাতর গৃহবধু আঁখি জানান, গত দুই বছর আগে ভালোবেসে স্বজনদের অমতে হযরতকে বিয়ে করেন তিনি। বিয়ের প্রথম ক’মাস বেশ ভালোই কাটছিলো তাদের। পরে শ্বাশুড়ী শিল্পী খাতুন প্রায়শই তাকে বিভিন্নভাবে নির্যাতন করতো।

সম্প্রতি তাকে তার স্বামী ও শ্বাশুড়ী মিলে মারপিট ও মানসিকভাবে তার উপর নির্যাতন চালাতো। আঁখির নানা সাবান আলী জানান, ছোট বেলা থেকেই আমার বাড়িতেই আঁখি বড় হয়েছে। আমরা গত এক সপ্তাহ আগে আঁখিকে নির্যাতনের কথা শুনে থানায় গিয়ে অভিযোগ দায়ের করি। পরে থানার এএসআই মোজাম্মেল হক হযরতকে আটক করতে গেলে ধূলাউড়ী গ্রামের গ্রাম্য প্রধান ওসমান প্রামাণিক বিষয়টি মীমাংসার কথা বলে সময় চেয়ে নেন ওই দারোগার কাছে। পরে এই ঘটনার পরই হযরত ক্ষিপ্ত হয়ে আমার নাতনীর ওপর এমন বর্বর নির্যাতন চালিয়েছে। আমি এ ঘটনার বিচার চাই।

এ ব্যাপারে থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সুব্রত কুমার সরকার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, রাতে একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

0
1
fb-share-icon1

Best WordPress themes


© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!