শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ০৭:২২ অপরাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

চাটমোহর থানার ওসি’র বিরুদ্ধে এলাকাবাসীর বিক্ষোভ

চাটমোহর থানার ওসি’র বিরুদ্ধে এলাকাবাসীর বিক্ষোভ। ইনসেটে ওসি (তদন্ত) মোঃ আনোয়ারুল ইসলাম

image_pdfimage_print

চাটমোহর প্রতিনিধি : গতকাল সোমবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে পাবনার চাটমোহর থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) মো. আনোয়ারুল ইসলামের বিরুদ্ধে মামলায় ভয়ভীতি দেখিয়ে লাখ লাখ টাকা আদায়, এলাকাবাসীকে মিথ্যে মামলায় জড়ানো এবং তার অপসারণের দাবীতে  ৪টি গ্রামের মানুষ বিক্ষোভ মিছিল করেছে।

ডিবিগ্রাম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক (অবসরপ্রাপ্ত বিডিআর) মো. তোফাজ্জল হোসেনের নেতৃত্বে  উপজেলার ডিবিগ্রাম ইউনিয়নের কাটাখালী বাজারে প্রায় ৩ শতাধিক জনসাধারণ বিক্ষোভ মিছিল শেষে পথসভায় মিলিত হয়।

মিছিল থেকে ওসি তদন্ত মো. আনোয়ারুল ইসলামকে প্রত্যাহার, এলাকাবাসীকে ভয়ভীতি দেখিয়ে আদায় করা লাখ লাখ টাকা ফেরত দিতে স্লোগান দেয়া হয়।

মিছিল শেষে পথসভায় বক্তব্য দেন, ডিবিগ্রাম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো. আব্দুস সামাদ বিএসসি, চাটমোহর উপজেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. কুতুব উদ্দিন, যুবলীগ নেতা মো. হাফিজুল ইসলাম প্রমুখ।

এসময় বক্তারা অভিযোগ করে বলেন, মথুরাপুর ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ডের চৌকিদার মো. ইউনুছ আলীর সহায়তায় ওসি মো. আনোয়ারুল ইসলাম রামপুর, মস্তালীপুর, কাটাখালী, পাঁচবাড়ীয়া গ্রামের নিরীহ জনসাধারণকে একটি গণধর্ষণ মামলায় জড়ানোর ভয়ভীতি দেখিয়ে লাখ লাখ টাকা আদায় করেন।

এরমধ্যে গফুর খাঁর ছেলে উজ্জলকে থানা থেকে ছাড়িয়ে নিতে এক চেয়ারম্যানের মাধ্যমে ৯২ হাজার টাকা, ভাদু মোল্লার স্ত্রী মোছা. ছকিনা খাতুনের ছেলে রাজু আহম্মেদকে মামলার চার্জশীট থেকে বাদ দেবার কথা বলে ৩০ হাজার টাকা, ডিবিগ্রাম ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. সাহেব আলীর ছেলে মো. আব্দুল আলীমের বাবার নিকট থেকে ৫৫ হাজার টাকা, মস্তালীপুর গ্রামের আব্দুল মালেকের ছেলে মো. জহুরুল ইসলামকে থানা থেকে ছেড়ে দেবার কথা বলে ৬০ হাজার টাকা আদায় করেন।

এছাড়া এলাকার অন্যান্য নিরীহ মানুষকে গণধর্ষন মামলায় জড়ানোর কথা বলে ওসি তদন্ত মো. আনোয়ারুল ইসলাম কয়েক লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন।

বক্তারা অবিলম্বে ওসি তদন্ত আনোয়ারুল ইসলামকে চাটমোহর থানা থেকে প্রত্যাহারের দাবী জানান। অন্যথায় কঠোর কর্মসুচী দেয়া হবে বলে পথসভায় হুশিয়ারী দেন তারা।

এ ব্যাপারে চাটমোহর উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মো. আব্দুল আলীম বলেন, চাটমোহরবাসীর জন্য এটি একটি ন্যাক্কারজনক ঘটনা। ছাত্রলীগের নেতাকর্মীকে অযথা গণধর্ষন মামলায় জড়াতে অপতৎপরতা চালিয়ে ওসি তদন্ত মো. আনোয়ারুল ইসলাম আর্থিক সুবিধা লুটেছেন। তাকে দ্রুত প্রত্যাহার করা না হলে আমরা কঠোর কর্মসুচীতে যাবো।

এ ব্যাপারে চাটমোহর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ্যাড. সাখাওয়াত হোসেন সাখো জানান, চাটমোহরে এখন মগের মল্লুক চলছে। পুলিশ কর্মকর্তার সাথে যদি ছাত্রলীগ নেতাকর্মীর এমন ঘটনা ঘটে থাকে তবে আমি এ ঘটনায় ধিক্কার জানাই।

তিনি বলেন, স্বাধীন দেশে পুলিশ হবে মানুষের বন্ধু, অত্যাচারী নয়। ওসি তদন্ত এমন ঘটনার অবতারণা করে থাকলে চাটমোহরবাসী তথা দলীয় নেতাকর্মীকে নিয়ে তাকে চাটমোহর থেকে তাড়ানো হবে।

এ ব্যাপারে পাবনা-৩ আসনের এমপি আলহাজ্ব মো. মকবুল হোসেন জানান, পুলিশের কোন কর্মকর্তা এই ঘটনার সাথে জড়িত থাকলে তার বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। তিনি বলেন, আমি ন্যায়ের পক্ষে, কোন অন্যায়কে আমি প্রশ্রয় দেবোনা।

এ ব্যাপারে চাটমোহর থানার ওসি তদন্ত মো. আনোয়ারুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ওই মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আমি নই। ওই মামলার বিষয়ে আমি কিছুই জানিনা।

ভয়ভীতি দেখিয়ে লাখ লাখ টাকা ঘুষ আদায় করেছেন এমন প্রশ্ন করা হলে তিনি জানান, আমি এ বিষয়ে কিছুই জানিনা।

Best WordPress themes


© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!