মঙ্গলবার, ১৪ জুলাই ২০২০, ০১:০৩ পূর্বাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

জুন মাসে কেমন হবে পাবনার করোনা পরিস্থিতি

রনি ইমরান : করোনার সংক্রমণে পিক সময় চলছে পাবনায়। গত মে মাসে পাবনায় মানুষের আচরণ, স্বাস্থ্যবিধি ও সচেতনার উপরই অনেকটা নির্ভর করবে পাবনায় জুন মাসের করোনা পরিস্থিতি কেমন হবে।

আবার কয়েকদিন আগে ঈদে ঢাকা থেকে পাবনায় যারা ঈদ করতে এসেছিলেন তাদের মধ্যে থেকে অন্যদের মধ্যে ভাইরাসটির ঠিক কতটা সংক্রমিণ করেছে সেটাও বোঝা যাবে চলতি জুনের প্রথম দিকেই।

এখন ভাইরাসটি কারো মধ্যে উপসর্গ প্রকাশ না পেয়ে সুপ্ত অবস্থায় থাকতে পারে। আবার কারো মধ্যে তা প্রকাশ পেয়েছে। সেটাও বোঝা যাবে আগামী সপ্তাহ খানেকের মধ্যেই।

এরইমধ্যে পাবনা জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে জেলার প্রতিটি উপজেলায় টেস্টের সংখ্যা বাড়ানো জন্য বার্তা পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে।

জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ মনে করছে যতবেশি টেষ্ট ততবেশী রোগী শনাক্ত হবে।

পাবনায় দৈনিক করোনায় ৪০/৪৫ টি টেস্ট করা হলেও সেই সংখ্যা বাড়ানো হচ্ছে। আগামী ১৫ দিন পাবনার জন্য খুবই ক্রিটিক্যাল সময়।

তাই করোনা থেকে বাঁচতে হলে কঠিন সতর্কতা আর স্বাস্থ্যবিধি মানার বিকল্প নেই বলে মনে করছেন পাবনার স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তারা।

পাবনায় সামাজিক ভাবে ছড়িয়ে পড়েছে করোনা ভাইরাস। এর আগে পাবনায় সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতে অঘোষিত লকডাউন করা হলেও বেশীরভাগ মানুষই অসচেতন হয়ে তা ভেঙে ফেলেছে অবশেষে।

ইতোমধ্যে শহরে কারো কারো সংক্রমণ হয়েছে সামাজিক ভাবেই। তারপরও সার্বিক দিক থেকে দেশের অন্যান্য জেলার তুলনায় পাবনা এখনো সুবিধাজনক অবস্থায় আছে বলে মনে করছেন জেলা সিভিল সার্জন ডাক্তার মেহেদী ইকবাল।

করোনাকালীন এই সঙ্কটময় সময়ে সকলে আতঙ্কিত না হয়ে ধৈর্য ধরে কঠিন স্বাস্থ্যবিধি নেমে চলার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।

সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করেই কর্মক্ষেত্রে কাজ করার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।
করোনা ভাইরাসে যদি কেউ আক্রান্ত হন এবং পরর্বতীতে যদি সে যদি সুস্থ হয়ে যায় সেক্ষেত্রে তার করনীয় কি হবে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন- ভাইরাসটির অনেক বিষয় এখনো অজানা খোদ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এই নিয়ে সঠিক বার্তা দিতে পারছেনা যে, করোনায় সুস্থ্য হওয়া ব্যক্তি দ্বিতীয় বার আক্রান্ত হবে কি হবে না ।

এ নিয়ে এখনো গবেষণা চলছে। তাই সুস্থ হওয়া ব্যক্তিদের আমার সর্তক করে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার পরামর্শ দিচ্ছি।

অনেকের শরীরে রোগ প্রতিরোধের ক্ষমতা বেশী থাকার কারনে করোনার উপসর্গ প্রকাশ নাও পেতে পারে বলে মনে করেন তিনি। তাই সকলকে স্বাস্থ্যবিধির উপর গুরুত্ব দেওয়া উচিৎ।

বলছিলেন, জেলা সিভিল সার্জন ডাক্তার মেহেদী ইকবাল।

পাবনার জনকন্ঠের সাংবাদিক কৃষ্ণ ভৌমিক মনে করেন করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে আমাদের যে স্বাস্থ্য মেনে চলার কথা সে তো তেমন দেখছি না। গত মাসেও যখন অঘোষিত লকডাউন ছিল, বেশীরভাগ মানুষ সামাজিক দূরত্ব মনেনি।

চলতি মে’তে পরিস্থিতি ভয়াবহ হতে পারে। পাবনায় মোট রোগীর সংখ্যা এখন ৪১ জন এবং ৪’টি রিপোর্ট এখনো পেন্ডিং আছে বলে জানিয়েছেন জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ।

error20
fb-share-icon0
Tweet 10
fb-share-icon20


© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
Wordpress Social Share Plugin powered by Ultimatelysocial
error: Content is protected !!