টেবুনিয়া ও সুজানগর বাজারে ওষুধ প্রশাসনের ভ্রাম্যমান আদালত

vraman_addlatপাবনা জেলার টেবুনিয়া বাজার ও সুজানগর বাজারে অভিযান পরিচালনা করেছে জেলা ওষুধ প্রশাসন।

এর মাঝে মঙ্গলবার সহকারী কমিশনার (ভুমি) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট শওকত আলীর নেতৃত্ত্বে ওষুধ প্রশাসন, পাবনা এর ওষুধ তত্ত্বাবধায়ক কে, এম, মুহসীনিন মাহবুব এর উপস্থিতিতে ও পুলিশের সহায়তায় টেবুনিয়া বাজার, মালিগাছা ইউনিয়ন, সদর, পাবনা এলাকায় এক ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালিত হয়।

উক্ত ভ্রাম্যমান আদালতে ড্রাগ লাইসেন্স নবায়ন ব্যতিরেকে ফার্মেসী পরিচালনার অপরাধে মেসার্স হাজী মেডিকেল ষ্টোরকে ছয় হাজার জরিমানা করা হয়।

এসময় পরিদর্শনকালে মেসার্স এ প্লাস ফিড নামীয় পোলট্রি খাবারের দোকানে কিছু ঔষধ সংরক্ষিত অবস্থায় পাওয়া যায়। উপস্থিত নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট উপস্থিত দোকান মালিককে ঔষধের দোকান ছাড়া এরুপ ঔষধ সংরক্ষণ রাখা ও বিক্রয় থেকে বিরত থাকার জন্য মৌখিক নির্দেশনা প্রদান করেন। ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনার খবর পেয়ে উক্ত বাজারের সকল ঔষধের দোকান বন্ধ করে দেওয়ায় পরবর্তীতে অভিযান পরিচালনা করা সম্ভব হয়নি। পরবর্তীতে বিভিন্ন সময়ে ঔষধের অনিয়ম প্রতিরোধে অভিযান পরিচালিত হবে মর্মে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট জানান।

এছাড়াও বুধবার জেলার সুজানগর উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভুমি) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মাকছুদুল ইসলাম এর নেতৃত্ত্বে ঔষধ প্রশাসন, পাবনা এর ঔষধ তত্ত্বাবধায়ক কে, এম, মুহসীনিন মাহবুব এর উপস্থিতিতে ও পুলিশের সহায়তায় সুজানগর বাজার এলাকায় এক ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালিত হয়।

উক্ত ভ্রাম্যমান আদালতে ড্রাগ লাইসেন্স/ড্রাগ লাইসেন্স নবায়ন ব্যতিরেকে, ফার্মেসী পরিচালনা, অনুমোদনবিহীন বিক্রয় নিষিদ্ধ ঔষধ ও টেস্টি স্যালাইন, ফুড সাপ্লিমেন্ট বিক্রয়, মওজুদ ও বিক্রয়ের উদ্দেশ্যে প্রদর্শণ করার কারনে ভিন্ন ভিন্ন অপরাধে ড্রাগ অ্যাক্ট ১৯৪০-এর বিভিন্ন ধারা লংঘনের দায়ে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের জরিমানা করা হয়।

এর মধ্যে মেসার্স ভারত হারবাল মেডিকেলকে ( লাইসেন্সবিহীন) ১৫ হাজার টাকা অনাদায়ে তিন মাসের জেল, মেসার্স মিয়া ফার্মেসীকে ৫ হাজার টাকা ও মাহবুব মেডিসিন কর্ণারকে ৩ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। মোট মিলিয়ে ২৩ হাজার টাকা জরিমানা করা হয় ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে।

ঔষধ তত্ত্বাবধায়ক কে, এম, মুহসীনিন মাহবুব জানান, ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মোস্তাফিজুর রহমান এর নির্দেশনা অনুযায়ী ভবিষ্যতে জেলার সকল স্থানে এ ধরনের ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা অব্যাহত থাকবে।