ঢাকাবৃহস্পতিবার , ২৭ জানুয়ারি ২০২২

ডিবির জ্যাকেটে যুক্ত হচ্ছে ‘কিউ আর কোড’

News Pabna
জানুয়ারি ২৭, ২০২২ ৯:৩৪ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ সদস্যদের জ্যাকেটে যুক্ত হচ্ছে কুইক রেসপন্স কোড বা কিউআর কোড। যা ডিবির প্রতিটি সদস্যকে পৃথক কোড সংযুক্ত করে জ্যাকেট দেয়া হবে। শীঘ্রই এই কোড সংযুক্ত জ্যাকেট দেয়া হবে। ডিবির দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, প্রযুক্তির এই পোশাকে এক ধরনের বিশেষ রং থাকবে যার বিচ্ছুরণ থেকে আসল ও নকল পুলিশের পার্থক্য ধরা যাবে। এমনকি বিশেষ ধরনের কাপড় দিয়ে এ পোশাক তৈরি করা হচ্ছে যাতে এটি বাজারে পাওয়া না যায়।

ডিবি প্রধান অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার এ কে এম হাফিজ আক্তার জানিয়েছেন, নতুন পোশাকে বুকের ওপরই থাকবে কিউআর কোড। পোশাক তৈরিতে এমন কাপড় ব্যবহার করা হয়েছে যা শীত ও গরম উভয় ঋতুতে আরামদায়ক। এছাড়া পোশাকে এক ধরনের বিশেষ রং থাকবে, যার বিচ্ছুরণ থেকে আসল-নকল পুলিশের পার্থক্য ধরা যাবে। এমনকি বিশেষ ধরনের কাপড় দিয়ে এ পোশাক তৈরি করা হচ্ছে, যেন এটি বাজারে পাওয়া না যায়। এর আগে ডিবির জ্যাকেট তৈরি করে ভুয়া ডিবি পরিচয় দিয়ে গ্রেফতার হয়েছিলেন অনেকেই।

ডিবির দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, চলতি মাসের শেষে অথবা ফেব্রুয়ারির শুরুতে এ পোশাক সরবরাহ করা হতে পারে। নতুন পোশাকে বুকের ওপরই থাকবে কিউআর কোড। পোশাক তৈরিতে এমন কাপড় ব্যবহার করা হয়েছে যা শীত, গরম উভয়ের জন্য আরামদায়ক। এছাড়া পোশাকে এক ধরনের বিশেষ রং থাকবে যার বিচ্ছুরণ থেকে আসল ও নকল পুলিশের পার্থক্য ধরা যাবে। এমনকি বিশেষ ধরনের কাপড় দিয়ে এ পোশাক তৈরি করা হচ্ছে। যাতে এটি বাজারে পাওয়া না যায়।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানায়, সাধারণ ইউনিফর্ম থাকায় প্রতারক ও অপরাধীরা সহজেই এমন ইউনিফর্ম তৈরি করে ভুয়া ডিবি সেজে ছিনতাই, ডাকাতি, অপহরণের মতো বড় বড় অপরাধ করছে। এসব অপকর্মের কথা মাথায় রেখে ডিবির পোশাকের নতুন পরিবর্তন আনা হচ্ছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানায়, ডিবির সব কর্মকর্তাদের তথ্য আগে থেকেই নিজস্ব সার্ভারে জমা থাকবে। এরপর মোবাইলের এ্যাপ দিয়ে সদস্যের কিউআর কোড স্ক্যান করলেই তাদের পরিচয় চলে আসবে। আর যদি কোন ভুয়া ডিবির পোশাকের কোড স্ক্যান করা হয় তাহলে ‘ইনভ্যালিড কিউআর কোড’ নামে একটি বার্তা দেখা যাবে।

ডিবি দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, অনেক সময় ডিবির জ্যাকেট নিয়ে মানুষ প্রতারণা করছে। ডিবির পরিচয় দিয়ে বিভিন্ন সময় অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড সংঘটিত করছে। কিন্তু দেখা যাচ্ছে, সেসব ঘটনার কিছুই আমরা জানি না কিংবা তারা ডিবির লোকও না। এ ধরনের প্রতারণা বন্ধ করতেই ডিবির জ্যাকেট চেঞ্জ করা হচ্ছে। যেন জনগণ জানতে পারে কোনটা ডিবি আর কোনটা ডিবি না। এরইমধ্যে অত্যাধুনিক প্রযুক্তিসম্পন্ন কুইক রেসপন্স কোড সংবলিত জ্যাকেট প্রস্তুতির কাজ চলছে।

এ ব্যাপারে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগের যুগ্ম কমিশনার (দক্ষিণ) মাহবুব আলম জনকণ্ঠকে জানান, কোন ব্যক্তি যাতে ভুয়া ডিবি পরিচয়ে মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করতে না পারে সেজন্য নতুন পোশাক তৈরি করা হচ্ছে। কিউআর কোড ছাড়াও পোশাকে এমন কিছু নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা থাকছে, যার কারণে সহজে জালিয়াতি করা সম্ভব হবে না। এই পরিকল্পনা হাত নিয়ে কাজ করা হচ্ছে। শীঘ্রই ডিবির প্রতিটি সদস্যকে নতুন এই পোশাক দেয়া হবে।