দৈনিক সিনসার ১১ তম বর্ষপূর্তিতে কিছু স্মৃতি ॥ কিছু কথা

॥ আবদুল জব্বার ॥  আজ থেকে ১২ বছর পূর্বে ২০০৫ সালের ৬ জুলাই পাবনা শহর থেকে দৈনিক সিনসার প্রথম প্রকাশনা শুরু হয়। পত্রিকা প্রকাশের সময় প্রথম কার্যালয় ছিলো পাবনা শহরের ব্যস্ততম আবদুল হামিদ সড়কের ট্রাফিক মোড় সংলগ্ন তাঁতি সমবায় মার্কেটের দ্বিতীয় তলায় ।

ডিমাই সাইজের সাদা কালো রঙে ছেপে পত্রিকা বের করা হয়। পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক এস এম মাহবুব আলম । তিনি পত্রিকা প্রকাশনার পাশাপাশি পাবনার সুজানগর নাজিরগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয় এন্ড কলেজে শিক্ষকতা করেন।

প্রকাশনার শুরুতে পত্রিকার উপদেষ্টা ছিলেন , পাবনার বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আলহাজ্ব নুর উদ্দিন আহমেদ বাবলু।

আইন উপদেষ্টা ছিলেন , এ্যাড. ইদ্রিস আলী। সিনসা ফার্সি শব্দ, এর আবিধানিক অর্থ শান্তি । শুরুতে বার্তা সম্পাদক ছিলেন  সাইফুল ইসলাম।

প্রতিষ্টাকালিন সময়ে পত্রিকার সম্পাদক এস এম মাহবুব আলম নিজেই কম্পিউটারে সংবাদ কম্পোজ করে পাবনা শহরের এল এমবি মার্কেটের জনতা প্রেস থেকে ছাপানোর পর তাঁতি সমবায় মার্কেটের কার্যালয় থেকে প্রকাশ করতেন ।

২০০৭ সালে দৈনিক সিনসার নির্বাহী সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন সাংবাদিক ডা. আব্দুস সালাম । তিনি বর্তমানে পাবনা থেকে প্রকাশিত দৈনিক খবর বাংলার সম্পাদক ।

ওই সময়ে পত্রিকাটি ডাবল ডিমাই সাইজের ছাপানোর কাজ শুরু করা হয়। এ সময় আবদুল হামিদ সড়কের বার্তা প্রেস থেকে পত্রিকা ছাপানো হয়।

২০০৭ সালে দৈনিক সিনসার সিনিয়র স্টাফ রিপোটার হিসেবে আমি নিয়োগ পাই। এ সময় পত্রিকাটিতে আরো ১২ জন সাংবাদিককে নিয়োগ দেওয়া হয় ।

দৈনিক সিনসা পত্রিকায় আমি নিয়োগ পাওয়ার পর পত্রিকা সম্পর্কে কিছু পাঠকের মতামত এবং ধারনা সম্পর্কে অবহিত হই। কিছু পাঠক আমাকে প্রশ্ন করেন পত্রিকার নাম সিনসা করা হলো কেন ?

আমি এ বিষয়ে পূর্ব থেকে অবহিত ছিলাম বলে পাঠকের প্রশ্নের উত্তর দেওয়া আমার পক্ষে সহজতর হয়েছিল। পাঠকদের আরো প্রশ্ন ছিলো, পত্রিকাটি কোনো রাজনৈতিক দলের পক্ষে ভূমিকা রাখছে কি না ? আমি একজন মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে লক্ষ্য করেছি মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কে আমার অনেক লেখা প্রবন্ধ দৈনিক সিনসা পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে।

মহান মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কে সিনসা সম্পাদক এস, এম মাহবুব আলমের গভীর শ্রদ্ধা আমি অত্যন্ত আন্তরিকতার সহিত লক্ষ্য করেছি ।

এখানে স্বরনীয় যে, দৈনিক সিনসার সম্পাদক ও প্রকাশক এস, এম মাহবুব আলম পাবনার সাংবাদিক জগতের কিংবদন্তী দৈনিক ইছামতি ও পাবনা বার্তার প্রতিষ্টাতা সম্পাদক মরহুম শফিউর রহমান খানের ভাগিনা ।

ভাগিনার সাথে বড় মেয়ের বিবাহ দেওয়ার কারণে মাহবুব আলম সাংবাদিক শফি ভাইয়ের জামাই হন।

সাংবাদিক শফি ভাইয়ের সাথে আমার ছিল অত্যন্ত ঘনিষ্ট সম্পর্ক । এ কারণে সিনসার সম্পাদক মাহবুব আলমকে আমি জামাই বলে সম্বোধন করি ।

সম্পাদক জানান, পত্রিকা প্রকাশের সময় আলহাজ্ব নুর উদ্দিন আহমেদ বাবলু অনেক বুদ্ধি পরামর্শ দিয়ে সহযোগিতা করেছেন এবং আমাকে সাহস যোগিয়েছেন। এ কারণে আমি তার কাছে কৃতজ্ঞ ।

পাঠকরা আমার পত্রিকার প্রাণ, পত্রিকা পাঠকদের মতামতের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে নিজেই তার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছেন বলে তিনি আমাকে জানান। সেদিন সম্পাদক মাহবুব জামাইকে ইচ্ছা করেই আমি এ বিষয়ে আমার কোনো মতামত জানাইনি।

সেদিন জামাই মাহবুব আলমের পত্রিকা পাঠকদের প্রতি ভালোবাসা এবং মহান মুক্তিযুদ্ধের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা লক্ষ করে একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে আমাকে অনুপ্রানিত করেছিল। আমি সেদিন থেকে মহান মুক্তিযুদ্ধের সমর্থক পত্রিকা হিসেবে দৈনিক সিনসা পত্রিকাকে নতুন করে জানতে শিখলাম ।

আমি নিজেও মহান স্বাধীনতার পক্ষের স্থানীয় একটি দৈনিক পত্রিকা মনে মনে খুঁজতে ছিলাম। আমি সাংবাদিকতার পাশাপাশি একজন লেখক।

দেশের রাজনীতি সামাজিক অবস্থা এবং চলমান পরিস্থিতি নিয়ে লেখালেখি করি। মহান মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে আমার লেখা অনেক প্রবন্ধ দৈনিক সিনসা পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে ।

২০১০ সাল থেকে দৈনিক সিনসা ৮ পৃষ্ঠায় ডাবল ডিমাই আকারে যাত্রা শুরু করে ।

এ যাত্রা উপলক্ষে পাবনা প্রেসক্লাব মিলনায়নে এক আনন্দঘন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন , পাবনা – ৫ আসনের সংসদ সদস্য গোলাম ফারুক প্রিন্স।

বিগত ২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে আমার লেখা “ইতিহাসের পাতা থেকে” নামক একটি বই ঢাকার বইমেলায় মোড়ক উন্মোচিত হয়। ওই বইয়ের ৫৭ টি লেখার মধ্যে অধিকাংশ লেখাই দৈনিক সিনসা পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে ।

আমি দৈনিক সিনসার সিনিয়র স্টাফ রিপোর্টার হিসেবে কর্মরত রয়েছি। পত্রিকার পাঠকদের উদ্দেশ্যে বলছি আমার অধিকাংশ লেখা মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কিত।

আমার উল্লেখযোগ্য লেখাগুলোর মধ্যে রয়েছে , ইতিহাসের দায়মুক্তির পথে বাংলাদেশ ,ইতিহাসের পাতা থেকে বঙ্গবন্ধু এবং বাংলাদেশ, নেলসন ম্যান্ডেলার বাংলাদেশে রাষ্টীয় সফর এবং প্রাসঙ্গিক কিছু কথা, ছাত্রলীগের অসংলগ্ন কর্মকান্ড সামলানো যাবে না এটা গ্রহণ যোগ্য নয়, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৭ বছরের অগ্রযাত্রা, জামায়াত বিএনপির নেতা – কর্মিদের আওয়ামীলীগে যোগদান কিসের আলামত?

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা ভিসি প্রফেসর ড. মাজহার আলী কাদেরী স্মরণে, ড. ইউনুসের পক্ষে সাফাই গেয়ে খালেদা জিয়া কাদের সন্তষ্ঠ করতে চান, আর স্বপ্ন নয় প্রত্যাশিত পদ্মা সেতু,  মানব সভ্যতার ইতিহাসে ফিদেল ক্যাস্ত্রো অমর,

সাংবাদিক দম্পত্তি সাগর- রুনি হত্যাকান্ড এবং প্রাসঙ্গিক কিছু কথা, মুক্তিযুদ্ধের চেতনাই আমাদের মুল শক্তি, চলমান সংকট উত্তরণে ‘সর্ব দলীয় সরকার’ কি ঐতিহাসিক দায়িত্ব পালন করতে পারবেন?

আওয়ামীলীগের নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি কি শুধুই বিজয় হওয়ার জন্য?, ড. ইউনুছ মার্কিনিদের প্রিয়ভাজন কেন, ২৯ মার্চ পাবনার ঐতিহাসিক মালিগাছা মুক্তিযুদ্ধ দিবস, একুশে আগষ্ট নারকীয় গ্রেনেড হামলা তদন্তে সিআইডির জজমিয়া নাটক ও আমাদের প্রত্যাশা,

যে গল্প শুনে বন্যা ঘুমিয়ে পড়লো,সরকারের দলীয় করণপ্রীতি এবং প্রাসঙ্গিক কিছু কথা, ঈশ্বরদী ইপিজেডে সমস্যা সম্ভাবনা ও করণীয়, বাজেট প্রনয়ণ করা হোক মুক্তিযুদ্ধের চেতনার ধারায়, পাবনার বীর মুক্তিযোদ্ধা শিরিন বানু মিতিল,চলমান সংকট নিরসনে সরকারকে সাংবিধানিক দায়িত্ব পালন করতে হবে,

শিশু রাজন হত্যাকান্ড এবং কিছু কথা,মানবিক সমাজ নির্মানে রুখে দাঁড়াতে হবে, বিশ্বজিত হত্যাকান্ডে রিকসা চালক রিপনের ভূমিকা এবং আমাদের করণীয়, বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের পুলিশ জামায়াত -শিবিরের হামলায় প্রাণ দিচ্ছে এ লজ্জা রাখবো কোথায় এবং বাংলাদেশের সমুদ্র জয় এবং প্রাসঙ্গিক কিছু কথা ইত্যাদি।

২০১২ সাল হতে দৈনিক সিনসার নিজস্ব প্রেস মের্সাস সিনসা প্রেস এন্ড প্যাকেজিং নিপুন ভবন স্কয়ার সড়ক হতে ছাপা শুরু হয় ।

এ সময় থেকে দৈনিক সিনসা রঙিন আকারে আট পৃষ্ঠায় প্রকাশিত হতে থাকে। এরপর পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদক ডা. আবদুল সালাম দৈনিক সিনসা থেকে থেকে বের হয়ে নিজেই একটি দৈনিক পত্রিকা বের করেন।

এ সময় পাবনার ব্যাংকার আওয়ামীলীগ সমর্থক বিশিষ্ট কবি আলহাজ্ব আমিনুর রহমান খানকে দৈনিক সিনসার নির্বাহী সম্পাদক পদে নিয়োগ দেয়া হয়।

২০১৬ সালের ১৪ এপ্রিল দৈনিক সিনসা পত্রিকা সরকারি বিজ্ঞাপন তালিকাভূক্ত হয়। সরকারের চলচিত্র ও প্রকাশনা অধিদপ্তরের তালিকায় পাবনা জেলার ৫টি পত্রিকা সরকারি বিজ্ঞাপন তালিকা ভূক্ত।

এর মধ্যে প্রচার সংখ্যার দিক থেকে দৈনিক সিনসা প্রথম স্থানে অবস্থান করছে। সপ্তাহের প্রতি বুধবার পত্রিকার সাহিত্য পাতায় বিশিষ্ট কবি সাহিত্যিকদের মজার মজার কবিতা ও লেখা প্রকাশ করা হয়।

৮ পৃষ্ঠার পত্রিকার ২য় পাতায় সম্পাদকীয় এবং উপসম্পাদকীয় সহ ৪নং পাতায় রয়েছে শিক্ষা সাগর এবং আর্ন্তজাতিক সংবাদ । ৫ম পাতায় ধর্মপাতা, নারী রকমারী , লতাপাতার গুনাগুন,বিজ্ঞান ও গণিত , বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি, স্বাস্থ্য পাতা, জানা অজানা, লাইফ স্টাইল , বিচিত্র সংবাদ , রান্না , পুষ্টিগুন , ইত্যাদি পাঠকদের মন জয় করে নিয়েছে। ৭ম পাতায় খেলাধুলার খবর, এবং বিনোদন।

২০০৭ সালে পত্রিকার ১ম বর্ষপূর্তিতে পাবনার তৎকালীন জেলা প্রশাসক গোলাম মাওলা প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ।

পাবনা শহরের রূপকথা রোডস্থ-হোটেল স্বাগতম এন্ড চাইনিজ রেষ্টুরেন্টে বর্ষপূর্তি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। ২০১২ সালে পাবনার সদর উপজেলার গয়েশপুর ইউনিয়নের জালালপুর প্রশান্তিভুবনে দৈনিক সিনসার ৭ম বর্ষপূর্তিতে পাবনার উন্নয়নে অবদান রাখার জন্য বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে ২০ জন গুণীজনকে সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করা হয়।

২০১৪ সালে পাবনা শহরের আবদুল হামিদ সড়কের ইভিনিংটার্চ হোটেল এন্ড রেষ্টুরেন্টে পত্রিকার ৯ম বর্ষপূর্তি অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন , ভূমিমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা শামছুর রহমান শরিফ ডিলু।

এ অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, পাবনা -৫ আসনের সংসদ সদস্য গোলাম ফারুক প্রিন্স, পাবনা জেলা পরিষদের প্রশাসক এম, সাইদুল হক চুন্নু ,তৎকালীন পাবনা জেলা প্রশাসক মোস্তাফিজুর রহমান , পুলিশ সুপার মিরাজ উদ্দিন আহমেদ , পাবনা প্রেস ক্লাবের সভাপতি প্রফেসর শিবজিত নাগ , পাবনা চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রিজের সভাপতি আলহাজ্ব আবদুল লতিফ বিশ্বাস , অধ্যক্ষ মাহাতাব উদ্দিন বিশ্বাস, রানা গ্রুপের চেয়ারম্যান রুহুল আমিন বিশ্বাস রানা, মাসপো গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আলী মর্তুজা বিশ্বাস সনি প্রমূখ।

অনুষ্ঠানে ২০ জন কবিকে এবং সমাজের বিভিন্ন স্তরে অবদান রাখার জন্য ১৫ জন গুণীজনকে সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। দৈনিক সিনসা পত্রিকার ১২তম বর্ষে পদার্পণে সিনসা পরিবারের একজন সদস্য হিসেবে আমি পত্রিকার সম্মানিত পাঠক , বিজ্ঞাপনদাতা শুভাকাংখিদের প্রতি আন্তরিক শুভেচ্ছা ও ধন্যবাদ জানাচ্ছি ।

সেই সাথে আগামীতে দৈনিক সিনসা’র চলার পথে আপনারদের সকলের আন্তরিক সহযোগিতা কামনা করছি। [ লেখক, বীরমুক্তিযোদ্ধা ও মানবাধিকার কর্মী]