শুক্রবার, ১৫ জানুয়ারী ২০২১, ০৭:৫৮ অপরাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

নদীতে ঝাঁপ দিয়ে আসামীর মৃত্যু, লাশ নিয়ে স্বজনদের সড়ক অবরোধ

image_pdfimage_print

নিউজ ডেস্ক : বগুড়ার শিবগঞ্জে পুলিশের গ্রেপ্তার এড়াতে নদীতে ঝাঁপ দিলেও শেষ পর্যন্ত বাঁচতে পারেনি মাদক সংক্রান্ত একাধিক মামলার আসামী মোস্তাফিজুর রহমান মাসুম (৩৭)। উপজেলার মহাস্থান নামাপাড়া এলাকায় করতোয়া নদীতে ঝাঁপ দেওয়ার প্রায় ৭ ঘন্টা পর প্রায় সোমবার দুপুরে তার লাশ ভেসে ওঠে।

নিহত মাসুম স্থানীয় রায়নগর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক সদস্য বজলুর রশীদের ছেলে।

মাসুমের এমন মৃত্যুর জন্য পুলিশকে দায়ী করেছেন তার স্বজন ও পরিবারের সদস্যরা। তারা ওই অভিযানে যুক্ত সদস্যদের বিচারের দাবিতে মাসুমের লাশ নিয়ে সোমবার দুপুর দেড়টার দিকে মহাস্থান এলাকায় বগুড়া-ঢাকা মহাসড়ক অবরোধ করে। এতে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। অবশ্য পরে পুলিশী হস্তক্ষেপে প্রায় ৩০ মিনিট অবস্থান শেষে অবরোধকারীরা মহাসড়ক ছেড়ে গেলে যান চলাচল আবার শুরু হয়।

শিবগঞ্জ থানার ওসি এস এম বদিউজ্জামান জানান, মাদক ব্যবসার সঙ্গে জড়িতদের ধরতে এএসআই কুদ্দুস ৩ জন ফোর্স নিয়ে রোববার সন্ধ্যা সোয়া ৬টার দিকে মহাস্থান নামাপাড়া এলাকায় যায়। এক পর্যায়ে তারা নয়ন নামে এক মাদক ব্যবসায়ীকে ধরতে সক্ষম হলেও গ্রেফতার এড়াতে মোস্তাফিজুর রহমান মাসুম দৌড় শুরু করে। তখন পুলিশও তার পিছু নেয়। এরপর মাসুম করতোয়া নদীতে ঝাঁপ দেয়। পরে তাকে উদ্ধারের জন্য ফায়ার সার্ভিসের সদস্যদের ডাকা হয়। তারা নদীতে নেমে খোঁজাখুঁজি শুরু করে। কিন্তু রাতের অন্ধকার নেমে আসায় উদ্ধার অভিযান স্থগিত রাখা হয়। তবে সোমবার দুপুর দেড়টার দিকে ঝাঁপ দেওয়ার স্থান থেকে প্রায় ৫০০ মিটার দূরে বড়বাড়ি এলাকায় তার লাশ ভেসে থাকতে দেখা যায়।

স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য তোফাজ্জ্বল হোসেন তোফা জানান, মাসুমের মৃত্যুর জন্য তার স্বজনরা মাদক বিরোধী অভিযানে যুক্ত পুলিশ সদস্যদের দায়ী করেছে। তাদের বিচারের দাবিতে মাসুমের স্বজনরা তার লাশ নিয়ে দিকে বগুড়া-ঢাকা মহাসড়ক অবরোধ করে। এতে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। পরে পুলিশ অবরোধকারীদের বুঝিয়ে তাদের মহাসড়ক থেকে সরিয়ে দেয়। এতে ৩০ মিনিট পর দুপুর ২টার দিকে যান চলাচল আবারও শুরু হয়। মাসুম সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘সে মাদক সেবী ছিল।’

ওসি আরও জানান, মাসুম মাদক ব্যবসায়ী ছিল। তার বিরুদ্ধে এ সংক্রান্ত ৭টি মামলা রয়েছে। একটি মামলায় তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা ছিল। তিনি বলেন, ‘পোস্ট মোর্টেমের জন্য মাসুমের লাশ বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় একটি অস্বাভাবিক মৃত্যু (ইউডি) মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।’

0
1
fb-share-icon1

Best WordPress themes


© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!